1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
দিরাইয়ে কলেজ ছাত্রকে বর্বর নির্যাতন - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

দিরাইয়ে কলেজ ছাত্রকে বর্বর নির্যাতন

  • Update Time : সোমবার, ৭ আগস্ট, ২০২৩
  • ১৬৯ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

দিরাইয়ে সিলেটের এমসি কলেজের মাস্টার্স পড়–য়া এক শিক্ষার্থীকে আধা কেজির মরিচের প্যাকেট চুরির অপবাদ দিয়ে বেধরক পিটিয়েছে নারায়ণ বর্মণ নামের স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যবাসায়ীর কর্মচারীরা। গুরুতর আহত ওই শিক্ষার্থী প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, পরে সিলেটের বেসরকারি একটি হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করছে। নিরীহ ওই পরিবার থানায় মামলা দিতে চাইলেও স্থানীয় প্রভাবশালীদের চাপে শেষ পর্যন্ত মামলা দিতে পারে নি।
গুরুতর আহত সিলেট এমসি কলেজের মাস্টার্স প্রথম বর্ষের ওই শিক্ষার্থী অংশুমান দে (ছদ্মনাম) রোববার বিকাল পৌনে পাঁচটায় এই প্রতিবেদককে জানায়, শুক্রবার বিকালে বাড়ির বাজার করার জন্য দিরাই বাজারের নারায়ণ বর্মণের দোকানে যাই। ওখানে যাওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই ওই দোকানের কর্মচারীগণ আমার হাতের ব্যাগ তাদেরকে দেবার জন্য বলেন। আমি ব্যাগ দিয়ে দেই। পরে তারা আমাকে মোবাইল দিতে বলেন, আমি কিছুই বুঝতে পারি নি, বললাম মোবাইল কেন দেব, এরপর মোবাইল আমার হাত থেকে নিয়ে তারা আমাকে মারতে থাকে। আমি দৌঁড়ে বের হয়ে যেতে চাইলে তারা আমাকে আটকায়। ঘরের ভেতরে ঢুকিয়ে দুই হাত দুই পা বেঁধে কয়েকজন মিলে রোল দিয়ে পায়ে, হাঁটুর উপরের মাংসে এবং শরীরে কিল ঘুষি মারতে থাকে। পায়ের এবং হাতের নখে রোল দিয়ে দিয়ে আঘাত করা ছাড়াও হাতের বুড়ি আঙ্গুল থেঁতলে দেয় তারা। মাথায়-মুখে কিল ঘুষি মারতে থাকে। আমি ওঠতে বসতে পারি না। হাঁটতে পারি না। মাথার চতুরর্দিক ফুলা। আমি বাঁচবো কী না, জানি না ভাই। আমাকে মারপিট করার সময় আমি বলেছিলাম, পানি খাবো, তারা আমার গলার রূপার চেইন খুলে মুখের ভেতর ঢুকাতে চায়, বলে পানির বদলে এটা খেতে থাক। একজন বললো, হাঁ কর তোর মুখে প্রশ্রাব করবো। আমাকে তারা বললো, আমি মরিচের প্যাকেট চুরি করেছি। আমার পরিবার সবজি ক্ষেত করে থাকে। আমার ঘরে যে মরিচ আছে, সারাবছর খেয়েও বিক্রয় করা যাবে। আমার জীবন নষ্ট করে দিয়েছে এরা। ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে আমার মারপিটের ছবি ছড়ানো হয়েছে। আমি এখন কীভাবে মানুষের কাছে মুখ দেখাই বলুন আপনারা।’
মারপিটে আমার অবস্থা এমন হয়েছিল শুক্রবার সন্ধ্যায় আমাকে যখন দিরাই থানায় নিয়ে যাওয়া হয়, পুলিশ আমাকে রাখতে রাজি হয় নি। এমনকি তারা আমাকে ছুঁয়ে দেখেনি। নারায়ণ বর্মণকে পুলিশ বলেছে, চিকিৎসা করিয়ে দিন। শেষে আমাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
নির্যাতিত শিক্ষার্থীর বাড়ি দিরাইয়ের ভরারগাঁও গ্রামে। ওই গ্রামের পঞ্চায়েতও অভিযুক্ত ব্যবসায়ী নারায়ণ বর্মণের সঙ্গে নির্যাতিত ছেলের পরিবারকে আপোস করার জন্য বাড়িতে গিয়ে প্রস্তাব দিয়েছে।
ওই শিক্ষার্থীর বড় ভাই তাপস দে বললেন, শনিবার থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েছিলাম। এলাকার প্রভাবশালীরা বললেন, তারা আজ রোববার সকাল ১০ টার মধ্যে বিষয়টি সামাজিকভাবে শেষ করে দেবেন। রোববার সকাল আটটায় গ্রাম পঞ্চায়েতসহ প্রভাবশালীগণ নারায়ণ বর্মণ ও তার কর্মচারীদের নিয়ে বাড়িতে এসে আমার বাবা-মাকে হাতে পায়ে ধরা শুরু করেন। আমার বাবা শেষে বলেছেন, এলাকার মানুষকে অবজ্ঞা করে আমরা কী থাকতে পারবো। এই অবস্থার মধ্যে পড়েছি আমরা।
দিরাইয়ের একজন গণমাধ্যম কর্মী বললেন, ঘটনাটি অনেক বড়। কিন্তু শুক্রবার রাতে এবং শনিবার দিনেও নির্যাতিত শিক্ষার্থীর পরিবারের কেউ কথা বলতে রাজি হয় নি। আজ রোববার তো আপোসেই মিমাংসা হয়ে গেছে।
নারায়ণ বর্মণের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে বললেন, ‘শুক্রবারে আমি অসুস্থ্য ছিলাম। দোকানে তিনজন কর্মচারী ছিল। বিকালে আমাকে তারা ফোন দিল চোর ধরেছি। আমি সঙ্গে সঙ্গে বলে দিয়েছিলাম, আমি আসছি, তোমরা তাকে আটকিয়ে রাখো। এসে দেখি ছেলেটাকে কর্মচারীরা মারধর করেছে। অন্য লোকজনও মেরেছে। পরে হাসপাতালে নিয়ে তাকে চিকিৎসা করিয়েছি। রোববার সকালে এলাকার ময়মুরুব্বিদের (মাতবর) নিয়ে তাদের বাড়ি গিয়ে হাতে পায়ে ধরে বিষয়টি শেষ করে এসেছি।
সালিশকারকদের একজন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পারভেজ আহমদ বললেন, যে ছেলেটির উপর চুরির অভিযোগ করা হয়েছে। সে এবং তার পরিবারের অন্য সদস্যরা সরল প্রকৃতির মানুষ। আমরা অভিযুক্ত ব্যবসায়ী নারায়ণ বর্মণকে নিয়ে গিয়ে তার বাবা-মা’র পায়ে ধরিয়েছি। তারা ক্ষমা করে দিয়েছেন। বিশ^বিদ্যালয় পড়–য়া শিক্ষার্থীকে চুরির অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে মারপিট করার পর ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে। এখন তার বাড়িতে গিয়ে ক্ষমা চাইলেই তার সম্মান কী ফেরানো যাবে, এমন প্রশ্নের উত্তরে পারভেজ বললেন, তা পারা যাবে না, কিন্তু সবাই শেষ করতে গেছেন, এজন্য আমিও গিয়েছি।
দিরাই থানার ওসি মুক্তাদীর আহমদ বললেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। কিন্তু নির্যাতিতদের পক্ষ থেকে মৌখিক কিংবা লিখিত অভিযোগ না পাওয়ায় আমাদের পক্ষে কিছু করা সম্ভব হয় নি।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com