শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

পেঁচার শত্রুতায় সূর্যের কি কিছু যায় আসে-সাংসদের চাবুক প্রসঙ্গে জাফর ইকবালকে আবেদ খানের পরামর্শ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৩ মে, ২০১৫
  • ২৫৮ Time View

অনলাইন ডেস্ক:জনৈক সংসদ সদস্য যখন অধ্যাপক জাফর ইকবালকে চাবুক মারার ইচ্ছে পোষণ করলেন, তখন এ অধ্যাপককে রবীন্দ্রনাথের কবিতার দুটি চরণ স্মরণ করার পরামর্শ দিলেন বিশিষ্ট কলামিস্ট ও দৈনিক জাগরণ পত্রিকার সম্পাদক আবেদ খান। দৈনিক ইত্তেফাক ও একটি অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে তিনি জাফর ইকবালকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন, ‘স্নেহভাজন জাফর ইকবালকে বলি রবীন্দ্রনাথের ‘কণিকা’র দুটি চরণ স্মরণ করতে। ‘পেঁচা রাষ্ট্র করে দেয় পেলে কোনো ছুতা/ জানো না আমার সঙ্গে সূর্যের শত্রুতা?’ আসলেই পেঁচার শত্রুতায় সূর্যের কি কিছু যায় আসে?
তিনি তার লেখনিতে বলেছেন, ‘সিলেটের ওই সাংসদ অধ্যাপক জাফর ইকবালকে চাবুক মারার ইচ্ছে পোষণ করেছেন। কিন্তু ওই সংসদ সদস্য সম্ভবত এটা বোঝার মতো বুদ্ধি রাখেন না যে, তার এই পদপ্রাপ্তির পেছনে জাফর ইকবালদের মতো অনেক মুক্তচেতনাসম্পন্ন প্রগতিশীল মানুষের ব্যাপক অবদান রয়েছে। ওই সংসদ সদস্য সম্ভবত এটাও বোঝেন না যে, তার চাবুকের আঘাত আমার মতো মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী অসংখ্য মানুষের সর্বশরীর রক্তাক্ত ও ক্ষতবিক্ষত করেছে। আমার ধারণা, এটা বোঝার ক্ষমতাও তার নেই যে, এই উক্তির মাধ্যমে এদেশের লক্ষ-কোটি তরুণ প্রজন্ম, যারা জাফর ইকবালের অনুপ্রেরণায় বাংলাদেশকে চিনতে শিখেছে, বঙ্গবন্ধুকে অন্তর দিয়ে ভালবাসতে শিখেছে, বঙ্গবন্ধু কন্যার আন্তরিকতার ওপর আস্থা রাখতে শিখেছে, তারা কী প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়েছে। এই জাফর ইকবালই তাদের শিখিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস, জেলায় জেলায় তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করেছেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হূদয়ে ধারণ করতে, চিনিয়েছেন স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির স্বরূপ এবং রূপান্তর। তিনি যাকে চাবুক মারতে চেয়েছেন সেই জাফর ইকবাল বিদেশে সর্বোচ্চ ডিগ্রি লাভের পর বিদেশে অর্থসম্পদ বৈভবের প্রলোভন উপেক্ষা করে উচ্চশিক্ষিত স্ত্রীকে সঙ্গী করে দেশে এসেছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিত্তের হাতছানি অবলীলায় প্রত্যাখ্যান করে সিলেটের শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়কে তার শিক্ষা এবং জ্ঞান বিতরণের আশ্রম হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করেছেন, সুস্থ শিক্ষার জন্য, উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তনের জন্য, নতুন প্রজন্মকে সত্য ও ন্যায়ের সাধকে পরিণত করার জন্য প্রাণপাত করে চলেছেন। ওই বাচাল সংসদ সদস্যের মতো লোক বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে বহু এসেছে এবং গেছে। কিন্তু একজন জাফর ইকবালকে পেতে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে বহু বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। অতএব সময় থাকতেই এ পাপের স্খলন প্রয়োজন।’

তিনি বলেছেন, ‘সিলেটের যে সংসদ সদস্যটি জাফর ইকবালকে চাবুক মারার কথা বলেছেন তিনিও বহুকাল বিদেশেই ছিলেন বলে শুনেছি। তিনি দেশে ফিরেছেন চলতি হাওয়ার পন্থি হিসেবে এবং শেখ হাসিনার বদান্যতার ও আওয়ামী লীগের হয়তো কারও কল্যাণে সংসদ সদস্য হিসেবে ক্ষমতার অংশীদার হওয়ার জন্য। এখানেই জাফর ইকবালের সঙ্গে তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পার্থক্য। এখানেই পার্থক্য সুচিন্তার আর স্বার্থচিন্তার। জাফর ইকবালের পিতা ছিলেন শহীদ। একাত্তরে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। কারণ তিনি অত্যন্ত দায়িত্বপূর্ণ সরকারি পদে থেকেও কুণ্ঠাহীনভাবে মুক্তিযুদ্ধকে সমর্থন করেছিলেন এবং মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি সহায়তা করেছিলেন। তাই তার সন্তানদের প্রত্যেকে মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে নিঃশর্তভাবে নিষ্ঠাবান। আর যিনি তাকে চাবকানোর কথা বলেন তার পিতৃপরিচয় কী? কী ভূমিকা ছিলো তার একাত্তরে? সেই সংসদ সদস্য কি তার পিতার অসমাপ্ত কাজ সম্পূর্ণ করার জন্যই রাজনৈতিক মঞ্চে আবির্ভূত হয়েছেন?’

ওই সংসদ সদস্যের চাবুক কতখানি শক্ত এবং জোরালো—তা জানার ইচ্ছে প্রকাশ করে আবেদ খান তার লেখনিতে বলেছেন, ‘কতজনকে চাবকাবেন তিনি? একজনকে? দশজনকে? একশ’জন, হাজারজন, লক্ষ জনকে? তিনি হয়তো জানেনই না, তিনি যে দলের সংসদ সদস্য সেই দলের প্রধান মানুষটি জাফর ইকবাল সম্পর্কে কী মনোভাব পোষণ করেন। আমি জানি না, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কিংবা যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব উল্লিখিত সংসদ সদস্যের অনুরক্ত কতিপয় অপরিণামদর্শী আঞ্চলিক সদস্যের বালখিল্যতার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবেন কিনা, কিংবা ওই সংসদ সদস্য তার আচরণের জন্য তিরস্কৃত হবেন কিনা। তবে কতিপয় সংসদ সদস্যের কথাবার্তা এবং ভাবভঙ্গিতে একটি জিনিস প্রতীয়মান হয়, তারা বিশেষ পরিস্থিতির কারণে কিংবা কোনো সবিশেষ আনুকূল্যের দরুনই যে সংসদ সদস্য হওয়ার ভাগ্য লাভ করেছেন—সেটা ভুলেই যান। তারা অতি দক্ষতার সঙ্গে বন্ধুকে শত্রুতে পরিণত করে ফেলেন। দলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান কৌশলে কুক্ষিগত করে তারা অত্যন্ত নৈপুণ্যের সঙ্গে সংগঠনকে মিত্রহীন, বন্ধুহীন, সঙ্গীহীন এবং সঙ্গীণ করে তোলেন। যদি কোনো বিশ্লেষক আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থানকে বিশ্লেষণ করেন তাহলে দেখবেন কেবল গত এক দশকে এই হাইব্রিডদের অসীম কৃপায় তারা কী পরিমাণ মিত্র হারিয়েছে। যাদের সখ্য এই দলটির জন্য অপরিহার্য ছিল, যাদের পরামর্শ এই দলটির জন্য মূল্যবান ছিল, যাদের সমর্থন এই দলটির পরিচালনাকে গতিশীল করতে পারত, তাদের অনেকেই এখন নিষ্ক্রিয় এবং নীরব হয়ে গেছেন। এক্ষেত্রে বিশাল ভূমিকা পালন করেছে একদল অদৃশ্য ঘুণপোকা।’

তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের দল, মুক্তিযুদ্ধ সংগঠিত করার এবং নেতৃত্বদানের দল। অথচ গত দশ বছরেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তি সবচাইতে বেশি বিভক্ত হয়েছে। শেখ হাসিনার দূরদর্শিতা কিংবদন্তিতুল্য—সন্দেহ নেই, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ অর্থনৈতিক সামাজিকভাবে ঈর্ষাউদ্রেককারী সাফল্য অর্জন করে চলেছে—তাতেও কোনো বিতর্ক নেই। কিন্তু প্রদীপের নীচে যদি থাকে অন্ধকার তাহলে তো অস্তিত্ববিনাশী অপশক্তি জমা বাঁধবে ওখানেই। আওয়ামী লীগকে বুঝতে হবে একজন জাফর ইকবাল কিন্তু একক ব্যক্তি শুধু নয়—একটি বিশাল তরুণ প্রজন্মের বাতিঘর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24