1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বদলে দেওয়া নায়কের বদলী - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

বদলে দেওয়া নায়কের বদলী

  • Update Time : সোমবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৩১৪ Time View

 

জুয়েল আহমদ::

সরকারি আর দশটা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মতোই ছিল সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবেশ। ভেতরে-বাইরে নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন। সবার মধ্যে ছিল যেনও গা ছাড়া এক ভাব। যন্ত্রপাতি নেই, ওষুধ নেই, এমনি কি ছিলেন না বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকও। সেবার মান নিয়ে ছিল উপজেলাবাসী নানা অভিযোগ।

অন্তহীন সমস্যায় জর্জরিত হাসপাতালটি মাত্র চার বছরে বদলে গেছে। বর্তমানে হাসপাতালের ভেতরে–বাইরে ঝকঝকে–তকতকে। কোথাও ময়লা–আবর্জনা নেই। নেই কোনো দুর্গন্ধ। চিকিৎসক, কর্মকর্তা–কর্মচারী—সবাই সময়মতো হাসপাতালে আসেন। রয়েছে আধুনিক যন্ত্রপাতি। ফলে সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বীকৃতি পায় জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এ বদলে যাওয়ার কারিগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মধু সুধন ধর।

গত শনিবার তিনি বদলি হওয়ায় কর্তৃপক্ষের নিকট জগন্নাথপুরের দায়িত্ব হস্তান্তর করেছেন। বর্তমানে তিনি পদন্নোতি পেয়ে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে সিলেট সদরের ইন্সটিটিউট অব হেলথ্ টেকনোলজি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যোগদান করবেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালে এ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন (মেডিকেল অফিসার) চিকিৎসক হিসেবে যোগদান করেন মধু সুধন ধর। অল্পদিনে তাঁর সেবার মানসিকতায় তিনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেন। ২০১৬ সালে তিনি আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) হিসেবে দায়িত্ব পান। পরবর্তীতে ২০১৮ সাল থেকে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এরপর থেকে শুরু হয় স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধিতে নানা পদক্ষেপ।

যে সব পরিবর্তন:-
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি স্বাস্থ্য বিভাগের সকল কর্মীদের নিয়ে বৈঠক করে স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধিতে সবার সহযোগিতা ও দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের আহ্বান জানান। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী চিকিৎসক নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীদের দায়িত্ব বন্টন করেন এবং যথাযথ দায়িত্ব পালনের অঙ্গীকার আদায় করেন। জরুরি বিভাগে ২৪ ঘন্টা চিকিৎসক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডে চিকিৎসক ও নার্সের উপস্থিতি নিশ্চিত করেন। হতদরিদ্র রোগীরা যাতে বিনামূল্যে সরকারি হাসপাতালের সুযোগ সুবিধা পেতে পারে তা নিশ্চিত করেন। সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অকেজো থাকা অ্যাম্বোলেন্স, এক্সরে, ইসিজি, আলট্রা মেশিন সচল করেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কে সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনেন। নিয়মিত পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করেন। দীর্ঘ ৫৮ বছর পর চালু করা হয় সিজারিয়ান অপারেশন।

বেসরকারি উদ্যোগে যত উন্নয়ন:-
সরকারের পাশাপাশি তিনি এলাকার প্রবাসীদের উদ্বুদ্ধ করে স্বাস্থ্য সেবার মান বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখেন।  প্রবাসী অধ্যুষিত এ উপজেলার বাসিন্দা আত্মীয় স্বজন মৃত্যুর পর প্রবাসীরা যাতে দেশে এসে মরদেহ দেখতে পান এবং জানাযায় শরিক হতে পারেন সেজন্য জগন্নাথপুর উন্নয়ন সংস্থা নামে প্রবাসী সংগঠনের অর্থায়নে তাদের অনুপ্রাণিত করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একটি হিমঘর স্হাপন করা হয়। সিলেট বিভাগের উপজেলা পর্যায়ে এটি প্রথম হিসেবে পরিচিত। এটি স্হাপনের পর আশপাশের উপজেলার মানুষও মরদেহ হিমঘরে রেখে উপকৃত হচ্ছেন। এছাড়াও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চত্বরকে প্রবাসীদের অর্থায়নে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়। করোনাকালে সরকারের পাশাপাশি প্রবাসীদের অর্থায়নে অক্সিজেন সিলিন্ডারসহ বিপুল পরিমাণ স্বাস্থ্য সামগ্রী সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য সেবার কাজে ব্যবহার করেন। উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন স্হাপন, স্টোর রুম নির্মান, ব্যাক্তি পর্যায়ে হাসপাতালে ৩ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর মেশিন এবং ১০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার এবং ওটি চালুকরণে ২ এসি অনুদান পাওয়া যায়। এছাড়াও উপজেলার বুধরাইল উপস্বাস্হ্য কেন্দ্রে প্রবাসীদের অর্থায়নে ২০ লক্ষ টাকার সংস্কার কাজ করা হয়।

গরিবের ডাক্তার খ্যাতি:-
সরকারি প্রশাসনিক দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনের পাশাপাশি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিজ চেম্বারে তিনি নিয়মিত রোগী দেখেন। এসব রোগী দেখার জন্য তিনি কোন ফি নির্ধারণ করেননি। যে যত টাকা খুশি হয়ে দেয় তাতেই তিনি সন্তোষ্ট। গরিব হতদরিদ্রদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেন কোন ফি নেন না। সাধ্যমতে ওষুধ দিয়ে সহযোগিতা করেন। ফলে উপজেলাবাসী তাঁকে ‘গরিবের ডাক্তার’ নামে আখ্যায়িত করেন।

স্বীকৃতি:-
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবার মান বৃদ্ধি পাওয়ায় সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠতর স্বীকৃতি পায় এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কর্মকর্তা হিসেবে তিনি স্বীকৃতি সন্মাননা গ্রহণ করেন।

বদলি ও আন্দোলন:-
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মধু সুধন ধরকে হঠাৎ করে গত ২০২১ সালে বদলীর আদেশ হয়। এ খবর উপজেলাজুড়ে ছড়িয়ে পড়লে নাগরিকরা স্বপ্রনোদিত হয়ে আন্দোলনে নামেন। জগন্নাথপুর পৌর পয়েন্টে বিশাল মানববন্ধন করে তাঁর বদলি প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। উপজেলাবাসীর এ দাবির প্রেক্ষিতে স্হানীয় সংসদ সদস্য পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের অনুরোধে তাঁর বদলির আদেশ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রত্যাহার করে নেন।

সংকট যা রয়েছে:-
৫০ শয্যা বিশিষ্ট জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এখনো নানা সংকট রয়েছে। ২১ জন চিকিৎসকের মধ্যে রয়েছেন ১৩ জন। রয়েছে ভবন সংকট। সেল কাউন্টার মেশিন, হরমোন এনালাইজার মেশিন, এনেস্থিসিয়া মেশিন না থাকায় চিকিৎসা নিশ্চিতে সমস্যা হচ্ছে।

নাগরিকদের কথা:-
উপজেলা নাগরিক ফোরাম সভাপতি নুরুল হক বলেন, গত কয়েক বছরে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের সেবার মান বৃদ্ধি পেয়েছে। ডাক্তার মধু সুধন ধরের আন্তরিক প্রচেষ্টার কারণে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিত্র বদলে গেছে যা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।তিনি বলেন, এ স্বাস্হ্য কমপ্লেক্স আগে রোগী গেলেই চিকিৎসা না দিয়ে সিলেট রেফার্ড করা হতো আর ওষুধ তো শুধু নাই আর নাই শুনতে হতো। এখন এ অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। গরীবের ডাক্তার মধুর বদলীতে হয়ত আগে চিত্র আবার ফিরে আসবে।

নাঈমা খানম নামের এক শিক্ষিকা বলেন, হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের হওয়ায়, আমি কোন খরচ ছাড়াই সন্তানের মা হয়েছি।সিলেটে গিয়ে সিজারিয়ান অপারেশন করলে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ হতো।

নারিকেলতলা গ্রামের দিনমজুর আনিছ মিয়া বলেন, সেবার মান ভালো হওয়ার উনাকে বদলি করাটা আমরা মেনে নিতে পারছি না। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আমাদের সেবা দিয়ে আসছেন। আমার মত অসংখ্য দিনমজুর আছে যারা বিনা পয়সায় সেবা পেয়েছে।

জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালের চিকিৎসা সেবায় অনেক এগিয়ে গিয়েছিল। যে সেবায় উপজেলাবাসী খুশি ছিলেন। তাঁর বদলিতে আমরা চিন্তিত! জানি না আগামীতে কেমন সেবা পাবে উপজেলাবাসী।

 

সদ্য বদলী হওয়া উপজেলা স্বাস্হ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মধু সুধন ধর বলেন, একজন স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে আমি গর্ববোধ করি। মানুষের চিকিৎসা সেবার ব্রত নিয়ে এসেছি। তাই প্রতিদিন আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের চেষ্টা করেছি। মানুষকে সেবা দিয়ে আনন্দ পাই; রোগীরা উপকৃত হয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি সন্তোষ্ট হলে আমার আনন্দ লাগে।
তিনি আরও বলেন, চাকুরি সুবাদে নিজ উপজেলা ছাড়তে হচ্ছে। তবে এ উপজেলার প্রতিটি মানুষ অনন্তরে রয়েছেন। তিনি সবার প্রতি আর্শীবাদ কামনা করেন।

প্রসঙ্গত, চিকিৎসক মধু সুধন ধর জগন্নাথপুর পৌরসভার ইকড়ছই (জগন্নাথপুর বাজার) এলাকার মৃত মিহির রঞ্জন ধরের ছোট ছেলে।





শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com