1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
রানীগঞ্জ সেতুর পাশ থেকে বালু উত্তোলন- ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে প্রতিবেদন দিতে আদালতের নির্দেশ - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১১:০১ অপরাহ্ন

রানীগঞ্জ সেতুর পাশ থেকে বালু উত্তোলন- ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে প্রতিবেদন দিতে আদালতের নির্দেশ

  • Update Time : শুক্রবার, ১০ মে, ২০২৪
  • ৮২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টি ফোর ডেস্ক –

নীতিমালা অনুযায়ী কোনো নদীর উপর নির্মিত সেতু’র এক কিলোমিটারের মধ্যে খনন কাজ না করতে বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে জগন্নাথপুর উপজেলার কুশিয়ারা নদীর উপর রানীগঞ্জ সেতুর আশে পাশে কয়েকশ ফুটের মধ্যে ড্রেজারের সাহায্যে বালু ও বালু মিশ্রিত মাটি উত্তোলন করছে মেসার্স একতা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। অবাধে বালু উত্তোলন করায় সেতুটি ঝুঁকির মুখে পড়েছে। সম্প্রতি স্থানীয় দৈনিকে এ সম্পর্কিত একটি প্রতিবেদন আদালতের গোচরীভূত হয়েছে।
এই প্রেক্ষিতে আদালত বালু উত্তোলনের ফলে ক্ষতি নিরূপন, বালু উত্তোলনে ব্যবহৃত নৌযান জব্দ, সাক্ষীদের জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশ সুপার, নৌ পুলিশ সিলেট অঞ্চলকে বিষটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও আমলগ্রহণকারী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (জগন্নাথপুর) মোহাম্মদ আলমগীর।
গত ২ মে স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ‘নীতিমালা অনুযায়ী কোনো নদীর উপর নির্মিত সেতুর ১ কিলোমিটারের মধ্যে খনন কাজ না করতে বাধ্যবাধকতা থাকলেও এর বিপরীত ঘটছে জগন্নাথপুর উপজেলার কুশিয়ারা নদীতে বালু—মাটি উত্তোলন। সরকারের মেগা প্রকল্প রাণীগঞ্জ সেতুর আশপাশের কয়েকশ ফুটের মধ্যেই ড্রেজারের সাহায্যে বালু ও বালুমিশ্রিত মাটি উত্তোলন করছে মেসার্স একতা এন্টারপ্রাইজ নামের এক ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। নদী খননের নীতিমালা লঙ্ঘন করে বিগত কয়েক মাস ধরে দেদারসে বালুমিশ্রিত মাটি উত্তোলন করায় ঝঁুকির মুখে পড়েছে ১৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রাণীগঞ্জ সেতু ও নদী তীরবর্তী গ্রাম।
জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার নারিকেলতলা গ্রামের পাশে কৃষি ইনস্টিটিউটের মাটি ভরাটের জন্য কুশিয়ারা নদীর জেগে উঠা চর থেকে বালু উত্তোলনের জন্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে একটি স্মারকে ৫৫ লক্ষ ঘনফুট বালু ও বালুমিশ্রিত মাটি উত্তোলনের অনুমোদন নেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স একতা এন্টারপ্রাইজের মালিক শফিক মো. আবেদ।
অভিযোগ রয়েছে, এই কাগজের উপর ভিত্তি করে কৃষি ইনস্টিটিউটের মাটি দেওয়ার নামে নদীতে গণহারে চলছে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। এতে নদীর উভয়তীরের মানুষের ফসলি জমিসহ ১০টি গ্রামের ঘরবাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ঝুঁকির মুখে পড়েছে রাণীগঞ্জ সেতু।

 

 

সরেজমিনে দেখা যায়, কৃষি ইনস্টিটিউটের মাটি ভরাটের অনুমোদনপত্রের উপর ভর করে নদীতে একাধিক ড্রেজার মেশিন চালিয়ে বালু উত্তোলন করে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করা হচ্ছে। পাশাপাশি কিছু লোক দিয়ে জেগে উঠা চর থেকে মোটা বালু মাথায় করে নৌকাভর্তি করে বিক্রি করছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। বালু বিক্রির সত্যতা পাওয়া যায় রাণীগঞ্জের ইসলামপুর, গন্ধর্বপুর গ্রামে। এ সব বালু দিয়ে ব্যক্তি মালিকানাধীন একাধিক নিচু স্থান ভরাট করা হয় বলে জানান স্থানীয়রা।
এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, নদী থেকে ড্রেজারের সাহায্যে বালু তুলে নৌকা ভরাট করে তা নদীপথে হবিগঞ্জ, শেরপুর নিয়ে বিক্রি করছে একটি চক্র। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের যোগসাজশে এমন হচ্ছে বলে জানান একাধিক বাসিন্দা। এদিকে, নদীতে বালু উত্তোলন করে বিক্রির ব্যাপারে স্থানীয় রাণীনগর গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে চলতি মাসের প্রথম দিকে জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ করেন ৪৪ জন বাসিন্দা। সরকারি প্রতিষ্ঠানে ভরাটের নামে বালু বিক্রি বন্ধ ও নদী ভাঙনের কবল থেকে গ্রামবাসীকে রক্ষায় দাবি জানান তারা।
রাণীনগর গ্রামের বাসিন্দা রাশিদ মিয়া বলেন, ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবাধে বালু—মাটি উত্তোলন করায় আমাদের গ্রামের বাড়িঘর ভাঙনের কবলে পড়েছে। গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে নিষেধ দেয়া হলেও তারা তা মানে না তারা। সরকারি প্রতিষ্ঠানের নাম করে মাটি তুলে অন্যখানে নিয়ে বিক্রি করছে এরা। প্রভাবশালী এই পক্ষ আমাদের কথা শুনে না। এভাবে যদি বাড়ি ঘর নদী গর্ভে চলে যায় আমরা গরীব মানুষ যাবো কই।
গ্রামবাসীর দাবি এই মাটি উত্তোলন বন্ধ করা হোক। নতুবা মানুষের ক্ষয়ক্ষতি বাড়তে থাকবে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, অনুমোদনের আড়ালে কতিপয় অসাধু বালু ব্যবসায়ী বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। ঠিকাদারের যোগসাজশে স্থানীয় বালু উত্তোলনকারীদের নিয়ে একটি সিণ্ডিকেট তৈরি হয়েছে। এরা দিঘলযাগ মৌজা ও পাইলগাঁও মৌজা থেকে কয়েক কোটি টাকার বালু উত্তোলন করেছে।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স একতা এন্টারপ্রাইজের মালিক শফিক মো. জাবেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমাকে যতটুকু বালু তোলার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে ততটুকু তুলছি। এর বাইরে তোলা হচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে বালি উত্তোলনের এলাকা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এর বাইরে কোথাও ড্রেজার চালানো হচ্ছে না। সেতু আমাদের জেলাবাসীর সম্পদ। সেতুর কোনো ক্ষতি হবে সেটা আমিও চাইবো না। এখন ড্রেজার বন্ধ রয়েছে। তারপরও খোঁজ খবর নিয়ে দেখছি।
এ বিষয়ে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আল বশিরুল ইসলাম জানান, অনুমোদনের বাইরে কেউ বালু উত্তোলন করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী বলেন, খোঁজ নিয়ে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ পর্যালোচনাক্রমে সার্বিক বিষয় বিচার বিশ্লেষণ করে আদালতের নিকট প্রতীয়মান হয় কুশিয়ারা নদীর দুই পাড়ে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দিনরাত বালু উত্তোলনের কারণে রাণীগঞ্জ এবং নদীর তীরবর্তী গ্রাম এলাকায় ভাঙনের সম্ভাবনা আছে। এছাড়াও রানীগঞ্জ সেতুর নদীর তলায় মাটি সরে গিয়ে সেতুর ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এছাড়াও পানি উন্নয়নের ব্লকগুলো বালি উত্তোলনের ফলে তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। যার ফলে বর্ষা মৌসুমে উক্ত এলাকায় বন্যা এবং পানি লোকালয়ে ঢোকার সম্ভাবনা আছে। তাছাড়াও সংবাদপত্রের মাধ্যমে রাণীগঞ্জ গ্রামের বাসিন্দারা জবাবে বালু—মাটি উত্তোলন করায় গ্রামের বাড়িঘর ভাঙনের কবলে পরেছেন মর্মে দাবি করছেন। এতে এলাকাবাসি হুমকীতে পড়ছে এবং পরিবেশত চরম বিপর্যয় দেখা দিচ্ছে মর্মে দাবি করেন। সংরাদ/প্রতিবেদনটি ফৌজদারী কার্যবিধি ১৮৯৮ এর ১৯০ (১) (সি) ধারায় আমলে নেওয়ার ক্ষমতা প্রাপ্ত মাজিস্ট্রেট হিসাবে নিম্ম স্বাক্ষরকারীর নজরে আসে। উক্ত প্রতিবেদনে বর্ণিত ঘটনা পর্যালোচনাক্রমে বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪ ও ৫ ধারায় অপরাধ সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে মর্মে সন্দেহের কারণ রয়েছে যা তদন্ত হওয়া একান্ত প্রয়োজন। কিন্তু উপযুক্ত অপরাধসমূহ সুনির্দিষ্টভাবে আর কার কার দ্বারা সংঘটিত হচ্ছে, তাদের বিস্তারিত নাম, ঠিকানা প্রতিবেদনে সুস্পষ্ট নয়। স্বাক্ষীদের নাম ঠিকানা প্রতিবেদনে নাই। সুতরাং অপরাধটি কাদের দ্বারা সংঘটিত হচ্ছে তা প্রাথমিক অনুসন্ধানের মাধ্যমে নিরূপন করা প্রয়োজন এবং তদন্তের মাধ্যমে আসামীদের সনাক্ত করা প্রয়োজন। তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্তকালে আসামীদের সনাক্তকরণ, সাক্ষীদের জবানবন্দি গ্রহণ, ঘটনাস্থলের খসড়া মানচিত্র প্রস্তুত, ঘটনাস্থল সংশ্লিষ্ট আলামত, পাইপ, বনগেট, ড্রেজার মেশিন, ড্রামট্রাক ইত্যাদি (বালু উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত কাজে যন্ত্রপাতি) তাৎক্ষণিক জব্দ করবেন এবং অবৈধ বালু উত্তোলনে ব্যবহৃত নৌযান বা নৌযান সমূহ The Inland Shipping Ordinance, 1976 অনুযায়ী রেজিষ্ট্রেশন, সার্ভে সনদ ও পারমিট আছে কিনা যাচাই করবেন।
এছাড়াও সরকারি নদী থেকে কত ঘনফুট বালু তোলা হয়েছে এবং কি পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপন করবেন। পত্রিকার রিপোর্টারসহ প্রয়োজনীয় পক্ষের সাক্ষীদের জবানবন্দি গ্রহণ করবেন। সার্বিক পর্যালোচনায় পুলিশ সুপার, নৌ—পুলিশ, সিলেট অঞ্চল কে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেয়া গেল। ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারন সহ তদন্তকারী কর্মকর্তাকে সার্বিক সহায়তা প্রদান করায় জন্য জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে নির্দেশ প্রদান করা হলো। আগামী ২৫/০৬/২০২৪ইং তারিখ প্রতিবেদন প্রাপ্তির জন্য দিন ধার্য করা হলো।  সৌজন্যে – সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com