1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
রাষ্ট্র পরিচালনায় রাসুল (সা.) যেভাবে জনগণের মতামত নিতেন - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:১৮ অপরাহ্ন

রাষ্ট্র পরিচালনায় রাসুল (সা.) যেভাবে জনগণের মতামত নিতেন

  • Update Time : রবিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৬৫ Time View

ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থায় শাসক নির্বাচন রাষ্ট্র পরিচালনার মূল ভিত্তি কোরআন ও সুন্নাহ এবং তার আলোকে প্রণীত শরিয়ত। তবে রাষ্ট্র পরিচালনায় ইসলাম জনমতকে উপেক্ষা করেনি, বরং ক্ষেত্রবিশেষে জনমত বিশেষ গুরুত্বও দিয়েছে। নিম্নে ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থায় জনমতের গুরুত্ব তুলে ধরা হলো।

শাসকরা জনগণের কথা শুনবে

শাসক জনসাধারণের কথা শুনবে।
এ জন্য ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থায় শাসক ও নাগরিকের ভেতর কোনো মাধ্যম বা প্রতিবন্ধক অনুমোদিত নয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি জনসাধারণের কোনো দায়িত্বে অধিষ্ঠিত হলো এবং দুর্বল ও অসহায় মানুষ থেকে নিজেকে আড়াল করে রাখে, কিয়ামতের দিন আল্লাহ তার আড়ালে থাকবেন। (মুসনাদে আহমদ, হাদিস : ২২০৭৬)

 

খলিফা ওমর (রা.)-এর যুগে কুফার গভর্নর সাআদ বিন আবি ওয়াক্কাস (রা.)-এর ব্যাপারে অভিযোগ আসে যে পৃথক ভবন নির্মাণ করেছেন এবং তাতে দরজা লাগিয়েছেন, ফলে জনসাধারণ চাইলেই তাঁর কাছে যেতে পারে না। তখন ওমর (রা.) তাঁকে মদিনায় ডেকে পাঠান।

তারিখে তাবারি : ৩/১৫০) 

মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়াই উত্তম

ইসলামী সমাজ ও রাষ্ট্রের অন্যতম প্রধান মূলনীতি হলো পরামর্শের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা তাদের প্রতিপালকের আহ্বানে সাড়া দেয়, নামাজ আদায় করে, নিজেদের পরামর্শের মাধ্যমে নিজেদের কাজ সম্পন্ন করে।’ (সুরা : আশ-শুরা, আয়াত : ৩৮)

তবে ইসলামের দৃষ্টিতে সবার পরামর্শ ও মতামতের মূল্য সমান নয়। যারা আল্লাহভীতি, প্রয়োজনীয় ধর্মীয় ও জাগতিক জ্ঞান, ইনসাফ ও ভারসাম্যপূর্ণ চিন্তার অধিকারী মতামত প্রদানে তারা অন্যদের তুলনায় অগ্রগামী হবে।

 

জনগণের মতামত নিতেন মহানবী (সা.)

রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর সামনে কোনো ধর্মীয় বা রাজনৈতিক বিষয় এলে এবং এ বিষয়ে আল্লাহর পক্ষ থেকে কোনো সিদ্ধান্ত না এলে তিনি সাহাবিদের সাধারণ মজলিসে মতামত গ্রহণ করতেন। যেমন বদর যুদ্ধের বন্দি, উহুদ যুদ্ধের অভিযান শুরু, উসমান (রা.)-এর রক্তের বদলা নেওয়া ইত্যাদি।

জনগণের মত প্রকাশের অবকাশ

ইসলামী রাষ্ট্র জনসাধারণকে রাষ্ট্রের সমালোচনা করার অনুমতি দিয়েছে। শুধু অনুমতি দিয়েছে তা নয়, বরং ব্যক্তির যদি মনে হয়, শাসক বা রাষ্ট্র জনসাধারণের প্রতি জুলুম করছে, তবে তার প্রতিবাদ করা মুমিনের দায়িত্ব। খালিদ (রা.) থেকে বর্ণিত, আমরা নবী (সা.)-কে বলতে শুনেছি, মানুষ যখন কোনো অত্যাচারীকে অত্যাচার করতে দেখে (এবং শক্তি থাকার পরও) তার দুই হাত চেপে ধরে না, অবিলম্বে আল্লাহ তাদের সবাইকে শাস্তি দেবেন।

আমর (রহ.) হুসাম (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, যে জাতির মধ্যে পাপ কাজ হতে থাকে, এগুলো বন্ধ করার ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তা বন্ধ করা হচ্ছে না, অচিরেই আল্লাহ তাদের সবাইকে চরম শাস্তি দেবেন। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৩৩৮) 

সোনালি যুগে জনমতের গুরুত্ব

ইসলামী ইতিহাসের সোনালি যুগে শাসকরা জনমতকে বিশেষ গুরুত্ব দিতেন। বিশেষত ইসলামের মহান চার খলিফার সবাই রাষ্ট্র পরিচালনায় সাধারণ মানুষের মতামতকে গুরুত্ব দিতেন। ইসলামের প্রথম খলিফা আবু বকর সিদ্দিক (রা.) দায়িত্ব গ্রহণের পর তাঁর শাসন কাজের ব্যাপারে জনমতের প্রত্যাশা করে বলেন, ‘বন্ধুরা, আমাকে আপনাদের নেতা নিযুক্ত করা হয়েছে। যদিও আমি আপনাদের চেয়ে শ্রেষ্ঠ ও মর্যাদাবান নই। আমি যদি কল্যাণকর কাজ করি তা হলে আমাকে সবাই সাহায্য করে যাবেন আর যদি কোনো খারাপ কাজ করি তা হলে অবশ্যই আমার সংশোধন করে দেবেন। সততা ও সত্যবাদিতা হলো আমানত। আর মিথ্যা ও কপটতা হলো খেয়ানত।’ (মুসলিম উম্মাহর ইতিহাস : ২/৩৫৫)

জনমতের ভিত্তিতে নিজেকে যাচাই

ইসলামী রাষ্ট্রের শাসক শুধু জনগণের মতামতের অপেক্ষা করবে না, বরং নিজের ব্যাপারে জনমত গ্রহণ করবে, যেন নিজেকে যাচাই করা যায়। বিশেষত রাষ্ট্রের প্রাজ্ঞ ও পণ্ডিতজনের মতামত নেবে। ওমর (রা.) খলিফা নিযুক্ত হওয়ার পর একবার বিশিষ্ট সাহাবি মুহাম্মদ বিন মাসলামা (রা.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং জিজ্ঞাসা করেন, আমাকে কেমন দেখছেন? তিনি বললেন, আপনাকে আমি যেভাবে দেখতে ভালোবাসি সেভাবেই দেখছি এবং সেটা আপনার কল্যাণকর। আমি আপনাকে দেখছি, রাষ্ট্রের সম্পদ একত্র করতে সামর্থ্যবান, কিন্তু তা থেকে নির্মোহ এবং তা বণ্টনে ন্যায়পরায়ণ। যদি আপনি বিচ্যুত হতেন তবে আপনাকে সোজা করে দিতাম, যেভাবে সাঁচের ভেতর রেখে তীর সোজা করা হয়। ওমর (রা.) বললেন, সব প্রশংসা মহান আল্লাহর, যিনি আমাকে এমন জাতির নেতা বানিয়েছেন আমি বিচ্যুত হলে তারা আমাকে সঠিক পথে পরিচালিত করবে।
(তারিখুল ইসলাম লিজ-জাহাবি : ৪/১১৪)

প্রশাসনে জনমতের প্রতিফলন

সোনালির যুগের মুসলিম শাসকরা জনমতকে বিশেষ গুরুত্ব দিতেন। জাবির বিন সামুরা (রা.) বলেন, কুফাবাসী সাআদ (রা.)-এর বিরুদ্ধে ওমর (রা.)-এর কাছে অভিযোগ করলে তিনি তাঁকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেন এবং আম্মার (রা.)-কে তাদের শাসনকর্তা নিযুক্ত করেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস ৭৫৫)

আল্লামা ইবনে হাজার (রহ.) লেখেন, ৭৭৫ হিজরিতে মিসরের জনসাধারণ পুলিশ বিভাগের প্রধান আলাউদ্দিন বিন আরবের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করলে তাঁকে পদচ্যুত করা হয়। (ইম্বাউল গুমরি)

জনমতের নামে বিশৃঙ্খলা নয়

খলিফা ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) রাষ্ট্র পরিচালনায় জনমতকে বিশেষ গুরুত্ব দিতেন। তিনি নিজে বাজারে ঘুরে বেড়াতেন, রাতের অন্ধকারে শহর পরিদর্শন করতেন। তার পরও তিনি জনমতের নামে উত্থাপিত বিষয়গুলোকে যাচাই করে দেখতেন। যেমন কুফাবাসীর অভিযোগ পেয়ে তিনি সাআদ (রা.)-কে প্রশাসক পদ থেকে সরিয়ে দিলেও তাদের অভিযোগ যাচাইয়ের জন্য সেখানে লোক পাঠান। আর তারা সেখানে গিয়ে বিপরীত দৃশ্য দেখতে পান। ইমাম বুখারি (রহ.) বর্ণনা করেন, ওমর (রা.) কুফার অধিবাসীদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে এক বা একাধিক ব্যক্তিকে সাআদ (রা.)-এর সঙ্গে কুফায় পাঠান। তারা প্রতিটি মসজিদে গিয়ে সাআদ (রা.) সম্পর্কে জিজ্ঞেস করল এবং উপস্থিত মুসল্লিরা সবাই তাঁর ভূয়সী প্রশংসা করল। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৭৫৫)

আল্লাহ সবাইকে সঠিক বুঝ দান করুন। আমিন।
সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

 

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com