1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শুদ্ধ ও মার্জিত ভাষা ব্যবহারের তাগিদ - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:২৬ পূর্বাহ্ন

শুদ্ধ ও মার্জিত ভাষা ব্যবহারের তাগিদ

  • Update Time : বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৪৯ Time View

মাতৃভাষা আল্লাহর বিশেষ দান; অফুরান এক নিয়ামত, যার শুকরিয়া আদায় করে শেষ করা যাবে না। ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব অপরিসীম। মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে যুগে যুগে নবী-রাসুলগণ বিভিন্ন জাতির কাছে প্রেরিত হয়েছেন। তাঁরা সবাই ছিলেন নিজ নিজ জাতির মাতৃভাষায় পারদর্শী। আর সেই ভাষায় আল্লাহ তাআলা আসমানি কিতাব নাজিল করেছেন।
পৃথিবীর সব ভাষাই আল্লাহ তাআলার সৃষ্টি। ভাষার বৈচিত্র্য মহান আল্লাহর অন্যতম নিদর্শন। এরশাদ হচ্ছে, ‘তাঁর নিদর্শনাবলির মধ্যে রয়েছে আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর সৃষ্টি এবং তোমাদের ভাষা ও বর্ণের বৈচিত্র্য। এতে জ্ঞানীদের জন্য অবশ্যই নিদর্শন রয়েছে।’ (সুরা রোম: ২২)
বিশুদ্ধ ভাষায় কথা বলা মহানবী (সা.)-এর আদর্শ। তিনি ছিলেন আরবের শ্রেষ্ঠ শুদ্ধভাষী। সব সময় তিনি প্রমিত আরবিতে কথা বলতেন। আবু সাইদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, ‘আমি আরবের শ্রেষ্ঠ শুদ্ধভাষী; কোরাইশ গোত্রে আমার জন্ম।…’ (আল-বদরুল মুনির) অন্য হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, নবী (সা.) বলেন, ‘আমাকে দান করা হয়েছে সর্বমর্মী বচন।’ (মুসলিম)
কেউ অশুদ্ধ শব্দ বা বাক্য ব্যবহার করলে মহানবী (সা.) শুধরে দিতেন। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, একবার নবী (সা.) ঘরে অবস্থান করছিলেন, তখন বনু আমেরের এক লোক এসে তাঁর কাছে অনুমতি চেয়ে বললেন, ‘আমি কি আসব?’ নবী (সা.) তাঁর সেবককে বললেন, ‘তার কাছে গিয়ে অনুমতি চাওয়ার আদব শিখিয়ে দাও। তাকে বলতে বলো—আসসালামু আলাইকুম, আমি কি ভেতরে আসতে পারি?’ এ কথা শুনে লোকটি বললেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, আমি কি ভেতরে আসতে পারি?’ নবী (সা.) তাঁকে অনুমতি দিলেন এবং তিনি ভেতরে প্রবেশ করলেন। (আবু দাউদ)
কেউ অশুদ্ধ শব্দ বা বাক্য ব্যবহার করলে মহানবী (সা.) শুধরে দিতেন। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, একবার নবী (সা.) ঘরে অবস্থান করছিলেন, তখন বনু আমেরের এক লোক এসে তাঁর কাছে অনুমতি চেয়ে বললেন, ‘আমি কি আসব?’ নবী (সা.) তাঁর সেবককে বললেন, ‘তার কাছে গিয়ে অনুমতি চাওয়ার আদব শিখিয়ে দাও। তাকে বলতে বলো—আসসালামু আলাইকুম, আমি কি ভেতরে আসতে পারি?’ এ কথা শুনে লোকটি বললেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, আমি কি ভেতরে আসতে পারি?’ নবী (সা.) তাঁকে অনুমতি দিলেন এবং তিনি ভেতরে প্রবেশ করলেন। (আবু দাউদ)

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com