বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সংগ্রামী সেই মেয়েটির পরিবারে উপজেলা পরিষদের সেলাই মেশিন প্রদান জগন্নাথপুরে মোটরযান ও ভোক্তা আইনে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা সৌদিতে নির্যাতিতা জগন্নাথপুরের কিশোরীকে দেশে ফেরাতে পরিকল্পনামন্ত্রীর ডিও লেটার কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি আইসিজেতে গাম্বিয়ার আইনমন্ত্রী-মিয়ানমারের গণহত্যা কোনোভাবেই গ্রহণ করা যায় না জগন্নাথপুরে মানবাধিকার দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত সিলেটে মাকে হত্যা করল পাষান্ড ছেলে ঘৃনার বদলে অমুসলিমদের মধ্যে ১০ হাজার কোরআন বিতরণ করবে নরওয়ের মুসলিমরা জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু

সন্ত্রাসী আব্দুল জলিলের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগ তদন্ত করেছে সুনামগঞ্জ পুলিশ : গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন নলুয়া গ্রামবাসী

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৭০ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা :
সন্ত্রাসী ৬ পুত্রসহ কন্যা ও জামাতাদের নিয়ে ছোট ভাই ও তার পরিবারকে ভিটেবাড়ী ছাড়া করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে আব্দুল জলিল নামের এক সন্ত্রাসী। ছোট ভাইয়ের সাথে বড় ভাইয়ের এহেন পারিবারিক দাঙ্গাহাঙ্গামার কারণে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের নলুয়া গ্রামে প্রতিনিয়ত আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। বারংবার ভাই ভাতিজা ও তাদের স্ত্রী সন্তানদের হামলা মামলার স্বীকার হচ্ছেন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মজলিশ মিয়ার পুত্র আব্দুল মালেক (৫০)। জানা যায় মামলা মোকদ্দমার জের ধরে প্রতিপক্ষরা গত ২৫ ডিসেম্বর সোমবার সকাল ৮টায় নিজ বসত বাড়ীর আঙ্গিনায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা নিয়া বাদানুবাদের জের ধরে আব্দুল জলিলের সন্তানরা আব্দুল মালেকের কন্যা মোছাঃ শাহীনূর আক্তার (২৩) কে রামদায়ের কোপে গুরুতর আহত করে। আহত করার পাশাপাশি প্রতিপক্ষরা আব্দুল মালেকের বসতঘরের ৩০ হাজার টাকার মালামালের ব্যাপক ক্ষতিসাধনসহ তার মেয়ের স্বর্ণের চেইন জোরপূর্বক ছিনাইয়া নেয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় জখমী শাহিনূর আক্তারকে জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। পরে আব্দুল মালেক বাদী হয়ে হামলাকারী আব্দুল জলিল,তার ৪ পুত্র ফারুক হোসেন,দেলোয়ার হোসেন,সালমান হোসেন,আমির হোসেন,বোন সূর্যবানু,ভাবী সুফিয়া খাতুন,ফারুকের স্ত্রী সালমা,আমিরের স্ত্রী সমলা ও আনোয়ার হোসেনসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবরে একটি মামলার অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগটি তদন্তের জন্য এসআই মোশাররফ হোসেনকে দায়িত্ব দেয়া হয়। ঘটনার ৩ সপ্তাহ অতিবাহিত হওয়ার পর রোববার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মোশাররফ হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযোগের তদন্ত করেন। এলাকাবাসী ও সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছেন বলে জানান।
এর আগে গত ২৩ নভেম্বর ২০১৬ইং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সাক্ষী দিতে এলে আব্দুল জলিল ও তার ছেলেরা একই গ্রামের বাসুর উদ্দিনের পুত্র আব্দুল মালেককেও খুন করার হুমকী দেয়। এ ব্যাপারে এচক্রের বিরুদ্ধে গত ২৮/১১/২০১৬ইং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। দাখিলকৃত অভিযোগের ব্যাপারেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি জেলা প্রশাসন। একই বছরের ২৬ মার্চ রবিবার দিবাগত রাত ২টায় উক্ত সন্ত্রাসীরা আব্দুল মালেককে বেদম মারপিঠক্রমে গুরুতর আহত ও তার বাড়ীঘর লুঠতরাজ করলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় পিতা মালেকের পক্ষে কন্যা শাহীনুর বাদিনী হয়ে বাংলাদেশ দন্ডবিধি আইনের ৩০৭/৩২৬/৩৫৪/৩৭৯/৩৮০ ধারায় আমল গ্রহনকারী জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালতের নির্দেশে সদর মডেল থানার এসআই পবিত্র কুমার সিংহ সরজমিন তদন্তক্রমে আসামী আব্দুল জলিল গংদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। সুনামগঞ্জ সদর থানার এসআই ইমতিয়াজ সরকার নলুয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেনের দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আব্দুল জলিলসহ তার সন্ত্রাসী ছেলেদের বিরুদ্ধে গত ৩/৪/২০১৭ইং তারিখে ৩১/২০১৭ নং নন এফআইআর প্রসিকিউশন দাখিল করেন। গত ১০/৩/২০১৭ইং তারিখে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ আব্দুল হাই এর উপস্থিতিতে প্রায় শতাধিক গণ্যমান্য লোকজন এক সালিশী বৈঠকে উপস্থিত হয়ে আব্দুল জলিল ও তার ছেলেদের বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড নিয়ে রায় প্রদান করেন। এতে উল্লেখ করা হয়,আব্দুল জলিল ঘরের দরজা বন্ধ করে আপন মাকে মারপিঠ করে। তার নিজের ঘরে আগুন দিয়ে ভাই ও মাকে ফাঁসানোর জন্য চিৎকার করে। তার ৬ ছেলেই উগ্র দাঙ্গাবাজ। প্রতিবেশী নিজাম উদ্দিনের মাথায় লাঠি দ্বারা আঘাত করার ঘটনায় সে দোষী সাব্যস্থ হয়। পাওনা টাকা চাইতে গেলে সৈয়দপুর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক হুসেন আলীকেও মারপিঠ করে আহত করে। বাঘমারা নিবাসী জজ মিয়ার নিকট থেকে কাজ করে দেবার কথা বলে টাকা এনে ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানালে সালিশের রায়ে টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হয়। নিজ গ্রামের আব্দুল বারেক এর উপর হামলার ঘটনায়ও সে সালিশে দোষী সাব্যস্থ হয়। ছোট ভাই মালেককে বেশ কয়েকবার মারপিঠ করে বিতাড়িত করে তালাবদ্ধ করে দেয় সে। বানীপুরের সিরাজ মিয়াকেও মারপিঠক্রমে আহত করে। একই গ্রামের আব্দুল হককে মারপিঠক্রমে আহত করে সালিশের রায়ে দোষী সাব্যস্থ হয়ে আর্থিক দন্ড ভোগ করে। মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাক মিয়ার ছেলেকে মারপিঠ ও মসজিদের জায়গা মাট জরীপে নিজ নামে নেয়ার প্রতিবাদ করলে ক্বারী আব্দুল জব্বার এর ছেলে লিয়াকত আলীকে রাস্তায় অপমান করার ঘটনায়ও সালিশীরা তাকে দোষারুপ করেন। স্থানীয় সংসদ সদস্যের দেয়া ১টন চাল বিক্রি করে ২৫ হাজার টাকা থেকে মসজিদে প্রদান করে মাত্র ১২ হাজার টাকা। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিবিধ ২৯/২০১৭ নং মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে নিরপরাধ লোকজনকে হয়রানী করে উক্ত আব্দুল জলিল ও তার ছেলেরা। গত ৩০ জুলাই উক্ত আব্দুল জলিল ও তার ছেলেরা বাদী আব্দুল মালেককে হমকী দিলে তিনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। এলাকাবাসী একাধিক অভিযোগে অভিযুক্ত আব্দুল জলিল ও তার সন্ত্রাসী ছেলেদেরকে অবিলম্বে আটক করে নলুয়া গ্রামে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য পুলিশ প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24