1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
সাপের কামড় থেয়েও সাপ নিয়ে হাসপাতালে - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ন

সাপের কামড় থেয়েও সাপ নিয়ে হাসপাতালে

  • Update Time : শনিবার, ৬ জুলাই, ২০২৪
  • ৪২ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় ধান কাটতে গিয়ে বিষাক্ত রাসেল ভাইপারের ছোবলে আহত হয়েছেন এক শ্রমিক। এরপর তিনি সাপটি মেরে বস্তাবন্দি করে নিজেই রাজশাহী মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসকের কাছে হাজির হন।

গতকাল শুক্রবার (৩১ মে) চারঘাট থানাধীন পিরোজপুর এলাকায় অবাক করা এ ঘটনা ঘটে।

সাপের ছোবলে আহত কৃষিশ্রমিকের নাম হেফজুল ইসলাম। সাপের ছোবলের পরও মৃত সাপকে নিয়ে রামেক হাসপাতালে উপস্থিত হওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। তবে হাসপাতালে আসার পর হেফজুলকে গভীর পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

শুক্রবার সকালে মাঠে ধান কাটতে গিয়েছিলেন হেফজুল ইসলাম। সঙ্গে ছিলেন আরও অনেকে। একপর্যায়ে ধানগাছের ফাঁক থেকে একটি রাসেল ভাইপার সাপ বেরিয়ে আসে। সাপটিকে দেখে উপস্থিত সবাই চিৎকার শুরু করেন। এ সময় হেফজুল সাপটিকে ধরতে এগিয়ে এলে তাকে ছোবল দেয়। পরে হেফজুল নিজেই সাপটি মেরে বস্তায় ভরে চিকিৎসা নিতে দ্রুত রামেক হাসপাতালে উপস্থিত হন।

স্থানীয়রা জানান, সকালে হেফজুলসহ আরও অনেকে ধান কাটতে নামেন একটি ক্ষেতে। কিছু সময় পর ওই ক্ষেতে একটি সাপ বেরিয়ে আসে। সাপ দেখে অনেকে ভয় পান। হেফজুল এগিয়ে এসে সাপটি ধরতে গেলে তাকে ছোবল দেয়। তখন তিনি নিজেই সাপটি মেরে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যান।

ছোবলের পর সাপ নিয়ে হাসপাতালে আসার কারণ সম্পর্কে হেফজুল বলেন, সাপে কাটার পর এটিকে মেরে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাই। কিন্তু সেখানে চিকিৎসকরা রাজশাহী মেডিকেলে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পরে এখানে এসে ডাক্তার দেখালে তারা আমাকে ভর্তি করে নেন। আমার মনে হয়েছে, চিকিৎসকরা সাপ দেখলে সঠিক ওষুধ দিতে পারবেন।

সাপ মেরে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসার খবর ছড়িয়ে পড়লে হেফজুলকে দেখতে ছুটে আসেন হাসপাতালের অন্যান্য রোগী ও স্বজনরা।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ইনচার্জ ডা. শঙ্কর কে বিশ্বাস বলেন, সাপেকাটা রোগী বর্তমানে স্বাভাবিক আছেন। তাকে ১৬ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তবে রাসেল ভাইপার খুবই বিষধর। তাই তাকে আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। এই সাপের কামড়ে মাংসপেশিতে পচন ধরে। আমরা রোগীকে অ্যান্টিভেনমসহ সব ধরনের চিকিৎসা দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, রোগী একদিক দিয়ে বুদ্ধিমানের কাজ করেছেন। তিনি সাপের ছোবলের পর ওঝা বা কবিরাজের কাছে না গিয়ে দ্রুত হাসপাতালে এসেছেন। তবে তিনি সাপ দেখে কাছে গিয়ে মারতে গেছেন, এটা ঠিক করেননি।

এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন এ চিকিৎসক। সুত্র প্রতিদিনের বাংলাদেশ

 

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com