1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
সুদখোরদের বিরুদ্ধে দিরাইয়ে মানববন্ধন - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০২:২৯ অপরাহ্ন

সুদখোরদের বিরুদ্ধে দিরাইয়ে মানববন্ধন

  • Update Time : বুধবার, ৭ জুন, ২০২৩
  • ১৬৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

দিরাইয়ে রাজানগরে চলছে শোকের মাতম। গ্রামের সম্ভ্রান্ত পরিবারের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা ভুলতে পারছেন না স্বজন ও গ্রামবাসি। তারা এই মৃত্যুর জন্য সুদখোরদের দায়ি করছেন। একই সঙ্গে এমন করুণ মৃত্যু আর যাতে দিরাইয়ের জনপদে না ঘটে সেজন্যও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তৎপর হওয়ার দাবি তুলেছেন। মঙ্গলবার
গেল শনিবার (৩ জুন) রাতে দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সৌম্য চৌধুরী (৬০) কে অনেকটা অচেতন অবস্থায় মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল রোডের ফূলবাড়িয়া এলাকা থেকে পুলিশ উদ্ধার করেছিল। রাতেই মৌলভীবাজার হাসপাতালে মারা যান তিনি। মৃত্যুর আগে তিনি তার নিজের ফেসবুক আইডিতে দিরাইয়ে কিছু মানুষের নামোলেখ করে লিখেছেন, ‘সুদখোরদের যন্ত্রণায় এই পথ বেছে নিলাম আমি।’ এরকম মর্মস্পর্সি মৃত্যুর ঘটনার পরে দিরাইয়ে সুদখোরদের বিরুদ্ধে ৩ দিনের প্রতিবাদ কর্মসূচির ডাক দেয়া হয়েছে।
এলাকাবাসি বলছেন, বিখ্যাত জমিদার পরিবারের সন্তান সৌম্য চৌধুরী। তার জেঠা সুধির কুমার চৌধুরী জমিদার ছিলেন। সৌম্য চৌধুরী চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে বিভিন্ন সরকারি সহযোগিতার সুষ্ঠু বণ্ঠন ও মানুষের পাশে থেকে কাজ করেছেন। সুদখোর সিন্ডিকেট চক্রের শিকার হয়ে তিনি বাড়ি জমি বিক্রি করে দেনা পরিশোধ করেও রেহাই পান নি। সুদখোররা স্টাম্প পেপার ও খালি চেকের পাতায় স্বাক্ষর নিয়ে মনগড়া টাকা বসিয়ে মানসিক নির্যাতন করেছে তাকে। এই নির্যাতন সইতে না পেরে আত্মহনন করেছেন তিনি।
দিরাই থেকে সৌম্য চৌধুরী’র বাড়ি রাজানগর গ্রামের দূরত্ব প্রায় ৭ কিলোমিটার। মঙ্গলবার বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে চলছে শোকের মাতম।

তার স্ত্রী ইলা চৌধুরী স্বামীর শোকে আহাজারি করে মুর্চা যাচ্ছেন, কিছুক্ষণ পরপর। তাকে সান্ত¡না দিচ্ছেন প্রতিবেশিরা। শান্তনা দিতে এসেছেন সামাজিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। বাড়ির সামনে উঠুনে দুই জন পুরোহিত সৌম্য চৌধুরীর আত্মার শান্তি কামনায় ধর্মীয় অনুষ্ঠান করছেন।
প্রতিবেশি আব্দুল আওয়াল বলেন, তিনি জমিদার পরিবারের সন্তান। সাবেক চেয়ারম্যানও ছিলেন। খুব ভালো মানুষ ছিলেন। সুদে টাকা এনে পরিশোধ করতে করতে তার বাড়ি ঘর পর্যন্ত বিক্রি করেছেন। আমরা এই সুদখোরদের বিচার চাই।
সান্ত¡না দিতে আসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাড. সোহেল আহমদ বললেন, সৌম্য চৌধুরী’র পরিবারকে সমবেদনা জানানো’র জন্য এসেছি। এই ঘটনায় আমরা মর্মাহত। তার শেষ ফেসবুকে স্ট্যাটাসে বুঝা যায়, তিনি কতটুকু মানসিকভাবে নির্যাতিত হয়েছেন। হাবিবুর রহমান হাবিব (হবু) ও জসিম উদ্দিনসহ যারা তাকে ঋণের জন্য মানসিকভাবে নির্যাতন করেছে তারা এজন্য দায়ি। সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়ার মাধ্যমে ঋণের টাকা পরিশোধও করেছেন তিনি। এরপরেও অত্যাচার থামেনি। কারও সামনে যখন আর কোনো পথ থাকে না, তখন সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। সৌম্য চৌধুরীও এমন কাজ করেছেন। তার পরিবারকে শোক জানানোর ভাষা নেই। যাদের জন্য সৌম্য চৌধুরী মারা গেছেন, তাদের বিচারের দাবি জানাই।
তিনি বলেন, যারা সুদের ব্যবসা করে তাদের শক্তিশালী সিন্ডিকেট রয়েছে। একজনে টাকা দিলে সিন্ডিকেটের দুই থেকে চারজন সাক্ষী হয়। দশ হাজার টাকা দিলে ২ মাস পরে বলবে ৪০ হাজার টাকা দিয়েছি। কিছুদিন পরে বলবে ৪০ হাজার নয়, একলাখ টাকা দিয়েছি। চক্রবৃদ্ধির সুদের একটি হিসেব আছে, এটার কোনো হিসেব নাই। সমস্যায় পড়া মানুষদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে সুদের ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের সদস্যরা ভিকটিমকে মানসিক নির্যাতন করে। এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সৌম্য চৌধুরী চলে গেছেন।
দিরাই বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ধনরঞ্জন রায় বললেন, এই সুদে মানুষকে নিঃস্ব করছে। সৌম্য চৌধুরী জমিদার পরিবারের ছেলে। তাকে এমনভাবে নির্যাতন করেছে দিশাহারা হয়ে পড়েছিল সে। দিরাই বাজারে বহু সুদখোর রয়েছে, যারা নিঃস্ব থেকে কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। কিছুদিন আগে ফেসবুকে সুদখোরদের তালিকা প্রকাশ হয়েছিল। কিন্তু প্রশাসন নিরব।
তিনি সুদখোরদের কৌশল সম্পর্কে বলেন, ‘আপনারে ১০ হাজার টাকা দিলো, স্টলে নিয়া খাইলো, পরে দেখবা একলাখ টাকা হয়ে গেছে। এরপরে দেখবা এটা আর শেষ হচ্ছে না।’

 

 

দিরাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোহন চৌধুরী বললেন, সুদখোররা টাকার জন্য সৌম্য চৌধুরী ও তার পরিবারকে বাড়ি ছাড়া করেছে। এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তিনি মারা গেছেন। এরকম মৃত্যু আমরা মেনে নিতে পারছি না। আমরা শোকাহত। এই সুদখোরদের কারণে অনেক মানুষ নির্যাতিত। কেউ জমি হারা হচ্ছে, কেউ বাড়ি হারা হচ্ছে। সুদ ব্যবসা বন্ধ ও সৌম্য চৌধুরী’র মৃত্যুর জন্য দায়ীদের বিচার চাই।
সৌম্য চৌধুরীর স্ত্রী ইলা চৌধুরী বললেন, আমার স্বামী সহজ সরল। মদে নেশার ট্যাবলেট মিশিয়ে খাইয়ে কাগজপত্র নিয়েছে। আমার স্বামীকে বহুদিন বাড়ি আসতে দেয়নি তারা। বাড়ি বিক্রি করে ৫ লক্ষ টাকা পরিশোধ করা হয়। তবুও তারা আমার স্বামীকে শান্তি দেয় নি। স্বামীর সাথে গেল বৃহস্পতিবারে শেষ কথা হয়েছে জানিয়েই তিনি মুর্চা যান।
এবিষয়ে জানতে গিয়ে হাবিবুর রহমান হাবিবের (হবু) বাড়িতে গিয়ে তার দেখা মেলে। শুরুতে পরিচয় দিয়ে কথা বলতে চাইলে তিনি এড়িয়ে যান। শেষে বাড়ির গ্রিলের গেট খুলে এ প্রতিবেদকে বসতে বলেন।
তিনি এপ্রতিবেদকের কাছে বলেন, ২০২১ সালে ১৯ লাখ টাকা নেয় ধান দেওয়ার কথা বলে। কথামতো টাকা দিতে না পারায় তিনি আদালতে মামলা করেন। যা বিচারাধীন রয়েছে। সাংবাদিকদের তিনি উৎকোচ দেবার চেষ্টাও করেছেন।
এদিকে একই কথা জানিয়ে জসিম উদ্দিন ফোনে বললেন, তার কাছ থেকেও ২৯ লাখ টাকা সৌম্য সরকার ধান দেবেন বলে নিয়েছিলেন। টাকা দিতে না পারায় তিনি আদালতে মামলা করেন। আদালত মামলার রায়ে সৌম্য চৌধুরীকে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ২৯ লাখ টাকা পরিশোধের কথা বলেছেন। এরপরই পলাতক ছিলো সৌম্য সরকার।
সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ এহসান শাহ্ বললেন, সৌম্য চৌধুরী’র মৃত্যু এবং আগের দিন তার নিজের ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাটাসের বিষয়টি পুলিশের নজরে এসেছে। সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এই বিষয়ে বিশদ খোঁজ খবর নেবার জন্য। সবকিছু পর্যালোচনা ও তদন্ত করে এই বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেবার ভিত্তি থাকলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।
এদিকে, সৌম্য চৌধুরী’র মৃত্যুর ঘটনাকে তদন্তসাপেক্ষ ব্যবস্থা নেওয়া ও বেআইনী সুদখোরদের আইনী ব্যবস্থা নেবার দাবিতে মঙ্গলবার বিকালে স্থানীয় মানবাধিকার সংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে প্রতিবাদী মানববন্ধন হয়েছে।

মানববন্ধন চলাকালে মানবাধিকার কর্মী মুজিবুর রহমান মুজিবের সভাপতিত্বে এবং মুছলেহ উদ্দিনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মখলিছুর রহমান লাল মিয়া, সাবেক পৌর কাউন্সিলর জয়নুল হক চৌধুরী, প্রভাষক মুস্তাহার মিয়া মুস্তাক, এমদাদ সর্দার, সুমন মিয়া, রুখনুজ্জামান জহুরি প্রমুখ। আগামীকাল বিকালে একইস্থানে আরও কিছু সামাজিক সংগঠনের আহ্বানে মানববন্ধন কর্মসূচি আহ্বান করা হয়েছে।

 

 

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com