1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে মুদি ব্যবসায়ী খুন - জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে মুদি ব্যবসায়ী খুন

  • Update Time : সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৫৭ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের মইনপুর গ্রামের মুদি দোকানী আলীম উদ্দিন (৫০)। প্রতিদিন সেহরিতে মানুষের নিত্যপণ্যের প্রয়োজনের কথা চিন্তা করে সেহরির পর দোকান থেকে ঘরে যেতেন। শনিবার রাতেও দোকান বন্ধ করে সেহরির আগে পর্যন্ত দোকানের ভেতরেই ছিলেন আলীম উদ্দিন। রাত দুইটার দিকে হঠাৎ দোকানের পাশে থাকা ঘর থেকে পরিবারের মানুষ আলীম উদ্দিনের চিৎকার শুনতে পান। গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে বাঁচাও বাঁচাও করছেন আলীম উদ্দিন। গলায়, পিঠে ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে তাকে। পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যান দোকানী আলিম উদ্দিন। তবে পথে যেতে যেতে দিয়ে গেছেন হত্যাকারীদের তথ্য। সেই ভিডিওতে যায় একই গ্রামের পাবেল মিয়া ও মজলু মিয়াকে অভিযুক্ত করেন তিনি। ঘটনার পর রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত মজলু মিয়াকে গ্রেফতার করে সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশ।

আলীম উদ্দিনের একমাত্র মেয়ে মার্জিয়া বেগম বলেন, হঠাৎ আব্বার চিৎকার শুনতে পাই। গিয়ে দেখি গলায় হাত দিয়ে বাঁচাও আমারে বাঁচাও বলে চিল্লাচ্ছেন। শরীর থেকে রক্ত বেয়ে পুরো ঘর ভেসে গেছে। আব্বাকে আর বাঁচাতে পারলাম না। আমাকে এতিম করে দিয়েছে পাবেল আরমজলু। আমি আমার বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

নিহতের বড় ভাই জসীম উদ্দিন বলেন, সেহরির সময় মানুষ এসে দোকান থেকে বিভিন্ন জিনিস নেয়ার জন্য ডাকে। মানুষের কথা চিন্তা করে দোকানেই থাকে আমার ভাই। সেহরির পর ঘরে গিয়ে ঘুমায়। শনিবার রাতে হয়তো দুই ডাকাত পাবেল ও মজলু সিগারেট বা কিছু নেয়ার জন্য ডাক দিয়ে দোকানে ঢুকে। এরপরই তারা আমার ভাইকে কুপিয়ে টাকা পয়সা নিয়ে পালিয়ে যায়। আমার ভাই ৩০—৩৫টা মোটরসাইকেলের ভাড়া পায় প্রতিদিন। এসবের ভাড়া, দোকানের টাকা সহ সব টাকা তার কাছেই দোকানে থাকে। এই টাকার জন্যই আমার ভাইকে তারা মেরেছে। মৃত্যুশয্যায় থাকা আমার ভাই সবার নাম বলে যেতে পারেনি, দুইজনের নাম বলেছে। এর পেছনে আরও অনেকে থাকতে পারে, তাই প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি চাই।

এদিকে আলীম উদ্দিনের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে মইনপুর গ্রামে। নিজের ঘরেও প্রাণের নিরাপত্তা না পাওয়ায় শঙ্কিত স্থানীয়রা। এমন ঘটনা যেন গ্রামে আর না ঘটে সেদিকে প্রশাসনের দৃষ্টি রাখার দাবি তাদের। শোকে কাতর পরিবারে আলীম উদ্দিনের স্ত্রী বার বার মূর্ছা যাচ্ছিলেন। শরীরে স্যালাইন দিয়ে সুস্থ রাখার চেষ্টা করছেন পরিবারের অন্য সদস্যরা।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খালেদ চৌধুরী বলেন, রাতে হত্যার খবর পাওয়ার সাথে আমি নিজে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। নিহত ব্যক্তি যাদের নাম বলে গেছেন তাদের একজন আসামীকে গ্রেফতার করেছি। বাকি একজনকে গ্রেফতারেও কয়েক জায়গায় অভিযান চালিয়েছি। আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে। দ্রুতই অন্য আসামীকেও আইনের আওতায় আনা হবে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩
Design & Developed By ThemesBazar.Com