মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

ট্রাফিক পুলিশের ১০ ব্যর্থতা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ আগস্ট, ২০১৮
  • ১০৮ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: মোটরযান আইন অনুযায়ী, রাস্তায় গাড়ি আইন মেনে চলছে কি না তা দেখার দায়িত্ব পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের। আইনে ট্রাফিক পুলিশকে লাইসেন্সসহ কাগজপত্র যাচাই এবং সড়কের শৃঙ্খলা রক্ষায় ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। লঙ্ঘনকারীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া এবং জরিমানা করার মতো আইনি ব্যবস্থা নিতে পারে তারা। তবে সড়কে নৈরাজ্য বন্ধে ট্রাফিক পুলিশ কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারছে না। উল্টো পুলিশের এই বিভাগের বিরুদ্ধে হয়রানি, চাঁদাবাজি ও ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ সবচেয়ে বেশি। গত ২৯ জুলাই রাজধানীর কুর্মিটোলায় লাইসেন্সহীন চালকের বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর ছাত্র আন্দোলন ট্রাফিক পুলিশের ব্যর্থতার কয়েকটি দিক চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। কালের কণ্ঠ’র চালানো অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বিশৃঙ্খল সড়কের জন্য দায়ী পুলিশের ১০ ব্যর্থতা। নিরাপদ সড়কের জন্য ঘুষ ও হয়রানি বন্ধ, আলাদা লেন বাস্তবায়ন, প্রভাবশালীদের আইন মান্য করতে বাধ্য করা, চালকের যোগ্যতা যাচাই, গাড়ির ফিটনেস নিশ্চিতকরণ, স্বয়ংক্রিয় বাতি ব্যবহার, অটোরিকশার নিয়ম বাস্তবায়ন, উল্টো পথে গাড়ি চলাচল প্রতিরোধ এবং বিশেষ নির্দেশনা বাস্তবায়ন অত্যাবশ্যক ছিল। কিন্তু বাস্তবায়ন করতে পারেনি ট্রাফিক পুলিশ। উল্টো পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের কিছু কর্মকাণ্ড সমস্যাকে আরো সঙ্গিন করে তুলছে বলে অভিযোগ সাধারণ মানুষের।

রাস্তায় গাড়ি আটক করে হয়রানি, টাকা আদায় (চাঁদাবাজি), টাকা না দিলে ভুল বা মিথ্যা অভিযোগে মামলা দেওয়াসহ ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ নগরবাসীর। গত রবিবার থেকে ট্রাফিক পুলিশের বিশেষ সপ্তাহ শুরু হয়েছে। মূল স্লোগান ‘ট্রাফিক শৃঙ্খলা একটি জাতীয় সভ্যতার প্রতীক; সবাই ট্রাফিক আইন মেনে চলুন; ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা করুন’।

তবে শিশু-কিশোররা রাস্তায় নেমে যেসব দুর্বলতা ধরিয়ে দিয়েছে সেগুলো কাটিয়ে ওঠার উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্টদের। কর্মকর্তারা দাবি করছেন, বাস্তব অবস্থার কারণে উন্নত ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার অনেক উদ্যোগই নিতে পারছেন না তাঁরা।

তীর পুলিশের দিকে : পুলিশের সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে জানাতে পুলিশপ্রধানের (আইজিপি) কাছে সরাসরি অভিযোগ করার ব্যবস্থা করা হয় গত বছরের ১৩ নভেম্বর। ‘আইজিপিস কমপ্লেইন সেলে’ ফোন করে, ই-মেইল করে বা কুরিয়ারে চিঠি লিখে অভিযোগ করা যায়। এ পর্যন্ত সেখানে সবচেয়ে বেশি অভিযোগ জমা পড়েছে ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে। জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রতিদিন গড়ে ২০টির মতো অভিযোগ আসে। সব বিভাগের সেবা নিয়ে অসন্তোষের অভিযোগ পাচ্ছি আমরা। বেশি অভিযোগ ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে। প্রথম দুই মাসের মধ্যে যে অভিযোগ জমা পড়ে তার অর্ধেকই ছিল ট্রাফিক পুলিশের। হয়রানি ও ঘুষ দাবির অভিযোগই বেশি।’ ওই কর্মকর্তা জানান, আইজিপিস কমপ্লেইন সেলে ০১৭৬৯৬৯৩৫৩৫ অথবা ০১৭৬৯৬৯৩৫৩৬ মোবাইল নম্বরে কল করে এবং complain@police.gov.bd-তে মেইল করে অভিযোগ করা যায়।

ট্রাফিক পুলিশের কয়েকজন সদস্য বিষয়টি স্বীকার করে কালের কণ্ঠকে বলেন, অনেকে ঘুষ দিয়ে চাকরিতে ঢুকেছে। এ কারণে প্রথমেই অতিরিক্ত টাকা আয় করার ফন্দি খোঁজে। আবার পুলিশের অন্য বিভাগের বাড়তি আয়ের সুযোগ থাকলেও ট্রাফিক পুলিশের নেই। এ কারণে রাস্তায় অবৈধ সুবিধা নেওয়ার দিকে ঝুঁকে পড়ে কেউ কেউ।

লেন থেকেও নেই : ঢাকার রাজপথে দাগ দিয়ে লেন ভাগ করা থাকলেও সেগুলো মানে না চালকরা। মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার, বাস নিজের লেন অনুযায়ী না চলে ইচ্ছামতো চলে এবং বিশৃঙ্খলা তৈরি করে। শিক্ষার্থীরা গত সপ্তাহে আলাদা লেন করে গাড়ি চালাতে বাধ্য করে। এমনকি অ্যাম্বুল্যান্সের জন্য জরুরি লেনও করে দেখায় তারা, যা কখনোই ছিল না। ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা জানান, সড়কে লেন মেনে চলার কার্যক্রম বাস্তবায়নের কোনো নির্দেশনা বা পরিকল্পনা তাঁদের নেই। মতিঝিল শাপলা চত্বরে দায়িত্বরত সার্জেন্ট মাহবুব শিকদার বলেন, ‘লেনে গাড়ি চালানো অসম্ভব ব্যাপার। এত গাড়ি কিভাবে সামলানো যাবে। আমাদের ট্রাফিক পুলিশ কতজন? ছাত্ররা যখন রাস্তায় নেমেছিল তখন ঢাকায় ৪০ ভাগের বেশি গাড়ি চলেনি। ছাত্র ছিল লাখ লাখ…।’ মঙ্গলবার মগবাজারে মো. সালাউদ্দিন নামের এক মাইক্রোবাসের চালক বলেন, ‘লেন মেনে চলাটা কঠিন। কারণ একসঙ্গে অনেক গাড়ি চলে। সবাই আগে যাওয়ার চিন্তা করে। আর পুলিশ তো এটা ধরে না।’

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের বিগত মেয়াদের প্রথমদিকে (২০০৯-২০১০) ভিআইপি সড়ক, মিরপুর রোড, প্রগতি সরণিসহ কয়েকটি বড় রাস্তায় দাগ কেটে তিনটি, কোথাও চারটি লোন করা হয়। পুলিশের সাবেক প্রধান এ কে এম শহীদুল হক তখন ডিএমপি কমিশনার ছিলেন। তাঁর উদ্যোগে ট্রাফিক পুলিশ শহরের বিভিন্ন স্থানে গাড়িগুলোকে নিজস্ব লেনে চালানোর চেষ্টা করে। তবে কিছুদিন পরেই স্তিমিত হয়ে যায় সেই উদ্যোগ। সড়কে শুরু হয় বিশৃঙ্খলা। রাজধানীতে রাস্তার মাঝখানেই বাস দাঁড়ানো এবং যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং করতে দেখা যায়। ট্রাফিক পুলিশ হলুদ তালা লাগিয়ে মামলা দায়ের করলেও এর কার্যক্রম চলে সীমিত পরিসরে।

ক্ষমতার কদর : গত সপ্তাহে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের গাড়ি আটক করে অনেকের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজ পায়নি। কয়েকজন ট্রাফিক পুলিশ সদস্য স্বীকার করেন, তাঁরা রাস্তায় ভিআইপি, পুলিশসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা-সদস্যদের গাড়ির কাগজপত্র যাচাই করেন না। এই সুযোগ নেন প্রভাবশালীদের আত্মীয়-স্বজন। রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের দেখলেই তারা পরিচয় দেয়। তখন পুলিশ ছেড়ে দেয়। প্রভাবশালীদের মালিকানাধীন বাস কম্পানির কাগজপত্র গুরুত্ব দিয়ে যাচাই করেন না তাঁরা। এই সুযোগে অনেকে হালকা যান (এলসি) চালানোর লাইসেন্স নিয়ে বড় গাড়ি চালায়। আবার লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হলেও হালনাগাদ করার তাগিদ থাকে না। দুই শিক্ষার্থীকে পিষে মারায় জাবালে নূর পরিবহনের বাসের গ্রেপ্তারকৃত তিন চালক মাসুম বিল্লাহ, যুবায়ের ও সোহাগেরও লাইসেন্স ছিল এলসি তথা লাইট কারের।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর এখন প্রভাবশালীদের গাড়িও ছাড় দিচ্ছেন না বলে দাবি করছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। উত্তরার ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) ফারুক আহমেদ বলেন, ‘আমাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, ভিআইপি-সিআইপিও আইন অমান্য করলে কোনো রেহাই দেওয়া হবে না। সবাই যদি আমাদের সহায়তা করে তাহলে অল্প সময়েই ট্রাফিক সিস্টেম ভালোভাবেই চলবে।’

বাতি দেখেও দেখে না : রাজধানীতে ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিটি সিগন্যাল পয়েন্টে লাল হাতের ইশারায় গাড়ি নিয়ন্ত্রণ করছেন ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা। তাঁরা বলেন, বাতি জ্বলে না। এ কারণে নির্দেশনা অনুযায়ী তাঁরা হাতের ইশারায় কাজ করেন। পল্টনে দায়িত্বরত সার্জেন্ট সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘পল্টনে আমরা ম্যানুয়ালি ট্রাফিক কন্ট্রোল করছি।’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দেড় যুগ আগে ঢাকা সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে রাজধানীর ৩৯টি পয়েন্টে স্বয়ংক্রিয় ট্রাফিক সিগন্যাল বাতি স্থাপন করা হয়। কিছুদিন করেই ট্রাফিক পুলিশ চালকদের বাধ্য না করে নিজেরা হাতের পদ্ধতিতে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ শুরু করে। একপর্যায়ে ভেস্তে যায় কার্যক্রম। বাতি নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর সেগুলো আর পুনঃস্থাপন হয়নি। সম্প্রতি আবার বাতি চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এই কার্যক্রমও মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। এটি বাস্তবায়নের তাগিদও নেই পুলিশের। কয়েকজন গাড়িচালক বলে, নিজেদের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে পুলিশই চায় না বাতি চালু হোক। আবার সিটি করপোরেশনও এই কাজে উদাসীন।

নির্দেশ নিরর্থক : প্রায় দুই বছর আগে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া শহরে মোটরসাইকেলে তিন যাত্রী বহন করা যাবে না বলে নির্দেশ দেন। এ ছাড়া আদালতের নির্দেশনা আসে গাড়িতে পুলিশ, সাংবাদিক, প্রেস, আইনজীবী, চিকিৎসকসহ পেশাগত স্টিকার ব্যবহার করা যাবে না। জরুরি কাজের জন্য সাংবাদিক ও পুলিশকে পেশা নয়, প্রতিষ্ঠানের স্টিকার ব্যবহার করতে বলা হয়। প্রচলিত গণমাধ্যমগুলো এ নির্দেশনা মানলেও ঢাকায় প্রেস ও সাংবাদিক স্টিকারের শত শত গাড়ি দেখা যায়। পুলিশ, চিকিৎসক, আইনজীবীসহ অন্যান্য পেশার স্টিকার লাগানো হচ্ছে দেদার। এ ছাড়া প্রায়ই ফুটপাত ব্যবহার, ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার এবং যত্রতত্র রাস্তা পার না হওয়ার ব্যাপারে কর্মসূচি নেয় ট্রাফিক পুলিশ। দু-এক দিন এই কার্যক্রম দেখা গেলেও পরিকল্পিত কোনো কার্যক্রম নেই। মঙ্গলবার বনানীর ফুট ওভারব্রিজের কাছে হেঁটে রাস্তা পার হওয়ার সময় আব্দুল করিম নামের এক পথচারী বলেন, এই ওভারব্রিজটিতে লিফট থাকলেও প্রায় সময়ই বন্ধ থাকে। কাকলীর রাস্তায় নামা বন্ধ করা হয়েছে। অথচ এখানে খোলা। পুলিশ ব্যবস্থা না নিলে এত দূরে গিয়ে ওভারব্রিজে কে উঠবে!

টার্গেট পূরণই লক্ষ্য : ডিএমপির সূত্র জানায়, ট্রাফিক বিভাগ প্রতিদিন গড়ে তিন হাজার মামলা করছে। ট্রাফিক পুলিশের বিভাগ ও জোন থেকে প্রতি অফিসারকে নির্দিষ্ট পরিমাণ মামলা করার টার্গেট ঠিক করে দেওয়া হয়! পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে মিরপুর এলাকার এক সার্জেন্ট বলেন, ‘টার্গেটটা এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে। কী কাজ করছি এটা গুরুত্বপূর্ণ নয়, কতটা মামলা করছি এটা দিয়েই পারফরম্যান্স আর এসিআর হয়। তাই সবাই থাকি গাড়ি আটক করে কিভাবে মামলা করা যাবে সে চিন্তায়!’

উল্টো পথের জুজু : রাজধানীর রাস্তায় প্রতিদিনই উল্টো পথে গাড়ি চলতে দেখা যায়। ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা বলছেন, প্রভাবশালীরা নিয়ম ভাঙছে। তাদের প্রতিহত করার চেষ্টা শুরু হয়েছে সম্প্রতি। এ কারণে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের শরীরে ক্যামেরা স্থাপনেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে এই উদ্যোগ সফলতা পায়নি। অনেক ট্রাফিক সার্জেন্ট ও সদস্য বিপদের ভয়ে প্রভাবশালীদের পথ রোধ করেন না বলেও জানা যায়।

প্রধান যা বলেন : ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের প্রধান, অতিরিক্ত কমিশনার মীর রেজাউল আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা অনেক ভালো বিষয়ই দেখিয়েছে, কিন্তু আমাদের বাস্তবতায় সেগুলো করা কি সম্ভব? এখানে অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। ওরা যখন জরুরি লাইন করল তখন রাস্তা অনেকটাই ফাঁকা। কিন্তু আমরা প্রতিদিন কী ফেস করি?’ ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে অনিয়ম ও ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি নাকচ করে দিয়ে বলেন, ‘কে ঘুষ খায়? রাস্তায় কখনো কনস্টেবলরা দু-চার টাকা নিয়েছে, আপনারা তাই নিয়ে আছেন। কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেই।’ আলাদা লেনে গাড়ি চলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অনেক রোডে মার্কিং নেই। গাড়ির সংখ্যা বেশি। লেনে গেলে গাড়ি আরো আটকে যেতে পারে।’ তিনি যোগ করেন, ‘প্রতিটি পয়েন্টে দু-তিনজন করে সদস্য থাকে। এখন রোভার স্কাউটের ছেলে-মেয়েরা ২০ জন থাকছে, এর পরও হিমশিম। কিভাবে লেন ঠিক করব?’ স্বয়ংক্রিয় বাতি চালুর প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরাও চাই এটি হোক। অনেকের মধ্যে ভুল ধারণা আছে, পুলিশ বাতির সিস্টেম না করে হাতের ইশারায় করছে। এতে পুলিশের লাভ! টাকা খেতে পারে! এটা সিটি করপোরেশন ও অন্যান্য বিভাগের ব্যাপার। এখন কেস নামে একটি প্রকল্প চলছে। বাতি চালু হলে আমাদের অটোমেশন সিস্টেম চালু সহজ হবে। সিগন্যাল অমান্য করলেই মামলা হয়ে যাবে। মোবাইল ফোনে মেসেজ চলে যাবে।’ মামলা ও তল্লাশির ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ট্রাফিক বিভাগ উন্নত করার কাজ চলছে। অনেক সেবাই বাড়ছে। আমরা উল্টো পথে অনেক ভিআইপির গাড়ি আটকে দিয়েছি।’

চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ট্রাফিক সিগন্যালে দায়িত্বরত সদস্যদের মধ্যে সিনিয়র অফিসার ছাড়া সার্জেন্ট ও কনস্টেবলরা প্রথমে খুব কড়া আচরণ দেখায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কিছু টাকা দিলে তারা মামলা না দিয়ে ছেড়ে দেয়। এ কারণে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়াও গাড়ি চালানো যায়। উত্তরার বাসিন্দা ব্যবসায়ী কামরুল হাসান বলেন, উত্তরা থেকে গুলিস্তান আসতে একটি প্রাইভেট কারকে ছয়-সাতটি পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশের তল্লাশি আটকায়। কোনো ধরনের কারণ ছাড়াই গাড়ি থামিয়ে অবান্তর প্রশ্ন করা হয়। আবার ট্রাফিক পুলিশের দাবি করা টাকা দিলে কোনো কাগজপত্র না থাকলেও অনেক গাড়ি ছেড়ে দেওয়া হয়। রবরব ও বিকাশ পরিবহনের দুই চালক বলে, ফিটনেসবিহীন গাড়িই পুলিশের বাণিজ্যের খাত। বিআরটিএ ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচলের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে। অভিযান টিম যে রাস্তায় থাকে ট্রাফিক পুলিশ তা আগেই চালকদের জানিয়ে দেয়! মঙ্গলবার দুপুরে বনানীর ৭ নম্বর সড়কে ভাড়া চুক্তিতে যাত্রী তুলছিলেন একটি অটোরিকশার চালক হানিফ মিয়া। জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে বলেন, ‘পোষায় না, তাই নিই। সবাই তো এখনো এইভাবেই চালায়।’ পুলিশ ধরে না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘মাঝেমধ্যে কাগজ চেক করার সময় জিজ্ঞাসা করে। মিটারে চালাই বললে আর যাচাই করে না।’

ট্রাফিক পুলিশের সদস্যদের বিরুদ্ধে নিজস্ব সিএনজি অটোরিকশা চালানো, লেগুনার লাইন চালানো এবং বাসস্ট্যান্ড থেকে চাঁদা আদায়েরও অভিযোগ আছে। রাতে রাজধানীর প্রবেশ পথ উত্তরা, গাবতলী, যাত্রাবাড়ী, পোস্তাগোলা, কেরানীগঞ্জ এলাকায় ট্রাক থামিয়ে টাকা আদায়েরও অভিযোগ রয়েছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, দেশে ট্রাফিক পুলিশ ব্যবস্থার প্রবর্তন স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে। সেই সময় সারা দেশে মাত্র ১০৯ জন ট্রাফিক পুলিশ ছিল। বর্তমানে ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার। রাজধানীতে চার হাজার ট্রাফিক সদস্য আছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কম সদস্য, ঝুঁকি ভাতা, পদায়ন, দায়িত্বের বেশি সময়সহ কিছু সংকটে আছে ট্রাফিক পুলিশ।
সৌজন্যে কালের কন্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24