শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০২:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের চিতুলিয়া গ্রামে আগুন,দুইটি ঘরসহ পুড়ল ১২ লাখ টাকার মালামাল জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

হাওরে ফসলহানি: ভিজিএফ কার্ড – ত্রান নিয়েও রাজনীতি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৩ মে, ২০১৭
  • ৩৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জ জেলাজুড়ে ভিজিএফ চালের রাজনীতি শুরু হয়েছে। জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত কার্ডধারী ৩ লাখ ২১ হাজার ৬৩৩ জন কৃষককের মধ্যে দেড় লাখ কৃষককে ভিজিএফ কার্ড দেওয়ায় বঞ্চিতরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছেন। এই ক্ষোভের আগুনে কোথাও কোথাও ‘ঘি’ ঢালছেন রাজনৈতিক ও স্থানীয় নির্বাচনের পরাজিত প্রতিপক্ষরাও। শুক্রবার বিকালে একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ প্রতিবেদককে বলেন,‘ভিজিএফ চালের রাজনীতি শুরু হয়েছে, প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন, ভিজিএফ কার্ড পাওয়া গেছে দেড়’লাখ, এখন যারা বাদ পড়েছে, রাজনৈতিক কর্মীদেরই তাদের বুঝাতে হবে, তালিকা তৈরিতেও যতটুকু সম্ভব স্বচ্ছতা থাকতে হবে। কিন্তু সুনামগঞ্জে সেটি হচ্ছে না। বরঞ্চ দূরে থেকে কলকাঠি নাড়ছেন অনেকেই। এই অবস্থায় আমরা দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে শেষ।’
সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় ভিজিএফ’র চাল না পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের উপর গত বুধবার বিকালে হামলা করেছে বিক্ষুব্ধ কৃষকরা। এসময় ত্রাণের ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা লুটপাট হয়েছিল। পরে এই টাকা’র একটি বড় অংশ নিজেদের মধ্যে চাঁদা তুলে ফেরৎ দিয়েছেন কৃষকরা। জগন্নাথপুরে উপজেলার বিভিন্ন স্থানেও ভিজিএফ’কার্ডের তালিকা নিয়ে নানা অনিময় ও স্বজনপ্রাথীর অভিযোগ উঠেছে।
দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের ঢুলকরের একজন কৃষক বলেছেন,‘আমরা স্থানীয় রাজনীতির শিকার, ১০ জনকে কার্ড দেওয়া হয়েছিল, চাল দেওয়া হয়েছে ৬ জনকে, ৪ জনকে কেন চাল দেওয়া হলো না? এটি জিজ্ঞেস করার পর-পরই কথা কাটাকাটি ধাক্কাধাক্কি মারপিট শুরু হয়। পরে এই নিয়ে আরেকপক্ষ রাজনীতি শুরু করে। মামলার ঝামেলা এড়ানোর জন্য, আমরা পরে চাঁদা তুলে টাকা ফেরৎ দিয়েছি।’
শুক্রবার বিকালে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের টাইলা বাজারের আঞ্জু মিয়ার দোকানে ১৯ বস্তা ভিজিএফ’র চাল রয়েছে অভিযোগ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলিশসহ ঘটনাস্থলে যান। ওখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পৌঁছালে বাজারের দোকানীসহ উপস্থিত লোকজন জানান. দোকানী আঞ্জু মিয়া ভিজিএফ কার্ডধারীদের কাছ থেকে এই চাল কিনে রেখেছেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আলমগীর কবির বলেন,‘ঘটনাস্থলে এসে আমরা সরকারী বস্তায় নয়, অন্য ১৯ টি বস্তায় ভিজিএফ’র চাল পেয়েছি। উপস্থিত দোকানী এবং লোকজন জানালেন ভিজিএফ কার্ডধারীদের কাছ থেকে দোকানী আঞ্জু মিয়া এই চাল কিনেছেন। পরে আমরা এভাবে যাতে আর কেউ না করে সতর্ক করেছি এবং তালিকায় একই পরিবারের একাধিক সদস্যের নাম ওঠেছে কী-না যাচাই করার জন্য ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছি। কারণ কোন কৃষক পরিবারেই তো খাবার নেই। যেহেতু চাল তুলে বিক্রি হচ্ছে, একই পরিবারের একাধিক নামও তালিকায় থাকতে পারে, এই বিষয়টি যাচাই করে দেখতে হবে’।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন,‘কার্ডধারী ২ লাখ ৭৭ হাজার ১৮৮ জন কৃষক ছাড়াও আর লাখ খানেক ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক রয়েছেন, যাদের ঘরে এক ছটাক ধান ওঠেনি। এরমধ্যেও রয়েছে আত্মীয়করণ। এই অবস্থায় ভিজিএফ কার্ডের সংখ্যা দেড় লাখ। এটি পর্যাপ্ত নয়, কার্ড আরও বাড়াতে হবে।’
জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন,‘ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের চেয়ে ভিজিএফ কার্ড কম, এটি একটি সমস্যা, আরেকটা হচ্ছে স্থানীয় রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব। আমরা চেষ্টা করছি সবকিছু চিন্তায় রেখেই দুর্যোগ মোকাবিলা করতে। বৃহস্পতিবার আরও এক লাখ ভিজিএফ কার্ড চেয়ে দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠিয়েছি। দেখা যাক পাওয়া যায় কী-না। পেলে সমস্যা কমে যাবে।’
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন,‘প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, একজন মানুষও না খেয়ে থাকবে না। এই অবস্থায় কেবল ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের দিয়ে ভিজিএফ’র তালিকা করলে সুষ্ঠু বণ্টন হবে না। ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের গণমাণ্যদের নিয়ে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের তালিকা করতে হবে। না হলে সরকারের উদ্দেশ্য সফল হবে না, জনগণ উপকৃত হবে না।’
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেন,‘ভিজিএফ’র সংখ্যা বৃদ্ধির বিষয়ে জেলা প্রশাসকের প্রস্তাব আমি সমর্থন করি, এই বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ে আমি কথা বলেছি, আরো বলবো। দরিদ্রবান্ধব সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী’র উপর আমাদের আস্থা রয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24