1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪২ অপরাহ্ন

সুনামগঞ্জে ধর্ষণ শেষে বিবস্ত্র করে নির্যাতিতাকে ছাড়ে ধর্ষকরা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫৫৪ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

স্টাফ রিপোর্টার
টাকা দিয়ে নির্যাতিতার মুখ বন্ধ রাখা এবং নির্যাতিতা ‘ভালো মেয়ে নয়’ এমন কথা বলে গণধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দিতে ৭ দিন চেষ্টা করেছিলেন খাইরগাঁও গ্রামের কিছু গ্রাম্য মোড়ল। অবশেষে মেয়েটির অবস্থা আশঙ্খাজনক হওয়ায় এবং পুলিশসহ প্রশাসনের লোকজন জানায় ফেঁসে যায় ধর্ষকরা। নির্যাতিতার স্বজনরা জানিয়েছেন, মেয়েটিকে গণধর্ষণ শেষে বিবস্ত্র করে ছাড়ে ধর্ষকরা। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারের নরসিংহপুর ইউনিয়নের খাইরগাঁও গ্রামে এই ঘৃণ্য ঘটনা ঘটে। এঘটনায় মর্মাহত এলাকাবাসী।
দোয়ারাবাজারের খাইরগাঁওসহ আশপাশের গ্রামের একাধিক ব্যক্তি ও নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ১৩ অক্টোবর রাতে গণধর্ষণ শেষে মেয়েটিকে বিবস্ত্র করে ছেড়ে দেয় ধর্ষকরা। মেয়েটি ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়ে। কিন্তু গ্রাম্য মাতব্বর আলী ইসরাইল ও বতই মিয়া ধর্ষকদের পক্ষে দায়িত্ব নেয়। নির্যাতিতার বাবা একটি পলাতক মামলার আসামী হয়ে বাড়ি না
থাকায় এরা মামলা না করার জন্য নির্যাতিতার মাকে চাপ দেয়। ভয়ে ও এবং লজ্জায় নির্যাতিতার মাও ঘটনা কাউকে না জানান নি।
মঙ্গলবার মেয়েটির শারিরিক অবস্থার অবনতি হলে মা ও স্বজনের কান্নাকাটিতে আশপাশের অনেকে খবর পায়। খবর পৌঁছে যায় পুলিশ ও প্রশাসনের কাছেও। বিকালে থানার ওসিসহ ঘটনাস্থলে বিপূল সংখ্যক পুলিশ গিয়ে এক ধর্ষককে আটক করে নিয়ে আসে।
স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীরা জানিয়েছেন, ধর্ষকরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদেরকে কৌঁশলে রক্ষা করার চেষ্টা করছেন কিছু জনপ্রতিনিধিও।
দোয়ারাবাজারে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামের বাড়ি নির্যাতিতার গ্রাম খাইরগাঁওয়ের পাশের নরসিংহপুরে। মেয়েটির বাবার সঙ্গে রফিকুল ইসলামের পূর্ব বিরোধ ছিল।
স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের রফিকুল ইসলাম বুধবার বলেছেন,‘আমার জানামতে মেয়েটির সম্মতিতেই ওই রাতে ছেলেদের সঙ্গে গিয়েছিল। পরে টাকা কম বেশি নিয়ে ঝামেলা বেধেছে। গ্রামের দুই তিনজন ৩ লাখ টাকায় ঘটনা দফারফা করতে চেয়েছিলেন, মেয়েটি না মানায় করা যায় নি। মেয়েটি ভালো নয়।’ তিনি অবশ্য গণধর্ষণের বিচার চান বলেও মন্তব্য করেন। রফিকুল ইসলামের এমন মন্তব্যে দু:খিত অনেকেই।
স্থানীয় ইউপি সদস্য ফজলুর রহমান এ ঘটনার দাবি জানিয়ে বলেন, নির্যাতিতাকে যারা থানায় বা আইনের আশ্রয়ে যেতে দেয় নি। তাদেরও বিচার হওয়া জরুরি।
নরসিংহপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নূর উদ্দিন আহমদ বললেন, নির্যাতিতা কিংবা নির্যাতক কেউই আমার কাছে আসে নি। আমি থানা পুলিশের কাছ থেকে বিষয়টি জেনেছি।
দোয়ারাবাজার থানার ওসি মো. নাজির আলম জানান, নির্যাতিতার মা দায়ের করা মামলায় উল্লেখ করেছেন এবং মৌখিকভাবে পুলিশকে জানিয়েছেন, ১৩ অক্টোবর রাত সাড়ে ১০ টায় প্রকৃতির ডাকে বের হলে ধর্ষকরা তার মেয়েকে ওঠিয়ে পাশের ধানক্ষেতে নিয়ে যায়। গণধর্ষণের পর তারা তার মেয়ের পরনের ছালোয়ার নিয়ে যায়, শরীরে থাকা জামাটি ছিড়ে টুকরো টুকরো করে তাকে বিদায় করে দেয়। তিনি জানন, পুলিশ সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছে বিষয়টি।

সৌজন্যে সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com