রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের!

অভিভাবকদের টাকায় খন্ডকালীন শিক্ষকে চলছে জগন্নাথপুরসহ জেলার ৫টি সরকারি স্কুল!

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১০ জুলাই, ২০১৭
  • ২৭ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: শিক্ষক সংকটের কারণে সুনামগঞ্জের সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম মুখ থুবরে পড়েছে। ৫ টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে জগন্নাথপুরের দুটি চলে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের চাঁদায় খ-কালীন শিক্ষক দিয়ে। তাহিরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকসহ শিক্ষক আছেন ৫ জন। কেউ একজন না থাকলে, এক শ্রেণির পাঠদান বন্ধ। দুইজন না থাকলে দুই শ্রেণির পাঠদান বন্ধ। সুনামগঞ্জ শহরের দুটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একটিতে ৫২ জনের স্থলে আছেন ২৫ জন। আরেকটিতে ৫৯ জনের স্থলে আছেন ৩৭ জন। এই অবস্থায় জেলার সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে বিঘিœত হচ্ছে।
জেলার জগন্নাথপুর স্বরূপচন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকের ১০ টি পদ রয়েছে। এই বিদ্যালয়ের ৭ টি পদ শূন্য। ৩ জন সহকারী শিক্ষক আছেন, এরমধ্যে একজন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। ৩৪০ জন শিক্ষার্থীর এই বিদ্যালয়ে পাঠদান হচ্ছে খ-কালীন ৩ শিক্ষক দিয়ে। অভিভাবকদের চাঁদায় খ-কালীন শিক্ষকদের সামান্য পরিমাণে সম্মানী হয়। তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী’র ২ টি পদের ১ টি শূন্য। চতুর্থ শ্রেণির একটি পদ থাকলেও অনেক দিন ধরেই এই পদ শূন্য।
বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ছায়াদ আলী বললেন,‘স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসে বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা বলে শিক্ষক সংকটের কথা জানিয়েছেন। আমরাও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেছি। কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না।’
জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়েরও একই অবস্থা। বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকসহ ৯ শিক্ষকের পদ থাকলেও আছেন প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকসহ ৪ জন শিক্ষক। তৃতীয় শ্রেণির একটি পদের একটি-ই শূন্য। চতুর্থ শ্রেণির দুটি পদের দুটিই শূন্য।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনন্ত কুমার সিংহ বলেন,‘ শিক্ষার্থীদের চাঁদায় দুইজন খ-কালীন ও একজন তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী দিয়ে কোনভাবে জোড়াতালি দিয়ে চলছে ৩২৭ জন শিক্ষার্থীর শিক্ষা কার্যক্রম।’ তিনি জানান, মৌখিক ও লিখিত একাধিকভাবে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছেন তারা।
তাহিরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭১০ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষাদানের জন্য আছেন ৫ জন সহকারী শিক্ষক। এরই একজন প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে রয়েছেন। অথচ এই বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকসহ শিক্ষকের পদ রয়েছে ১১ টি। এখানে খ-কালীন শিক্ষকও নেই। শিক্ষকদের কেউ একজন অনুপস্থিত থাকলে, এক ক্লাসে পাঠদান বন্ধ থাকে। তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী’র পদ শূন্য। চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী’র দুটি পদ থাকলেও একটি শূন্য।
সুনামগঞ্জ সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী’র সংখ্যা ১১৮৮ জন। শিক্ষক সংকটের কারণে শতবর্ষী এই বিদ্যাপীঠে ৫২ শিক্ষকের পদ থাকলেও আছেন ২৫ জন। এর মধ্যে সিলেটে প্রেষণে আছেন ২ জন এবং ঢাকায় ১ জন। অনুমতি না নিয়েই বিদেশে আছেন ১ জন। বিএডএ আছেন ৩ জন। এই অবস্থায় ১৮ জন শিক্ষক-ই এই বিদ্যালয়ের কা-ারী। বেশিরভাগ দিনই ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ২-৩ শাখাকে একসঙ্গে করে পাঠদান করাতে হয়। তৃতীয় শ্রেণির দুটি পদের দুটি-ই শূন্য। চতুর্থ শ্রেণির ৫ টি পদের ৩ টি শূন্য। এই বিদ্যালয়ে ছাত্রী নিবাস থাকার অনুপযোগি হওয়ায় কোন শিক্ষার্থী এখানে থাকছে না। শ্রেণিকক্ষ সংকট বিদ্যমান এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাফিজ মো. মাশহুদ চৌধুরী বলেন,‘বিদ্যালয়ের শিক্ষক সংকটসহ নানাবিধ সংকটের কথা মাননীয় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, পিএসসি’র মাননীয় চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিকসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’
সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ে দুই জন সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদের দুটি পদ-ই শূন্য। সহকারী শিক্ষকের ৪৯ টি পদের ১৫ টি পদ শূন্য।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মফিজুল হক মোল্লা বলেন,‘শিক্ষক সংকটে শিক্ষা কার্যক্রম বিঘিœত হচ্ছে, বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ সাবেক শিক্ষা সচিব বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী, পিএসসি’র মাননীয় চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিককে অবহিত করে সহায়তা চাওয়া হয়েছে।’
জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নিজাম উদ্দিন বলেন,‘সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক সংকটের কথা আমি বার বার উর্ধ্বতনদের অবহিত করেছি এবং করছি। কিন্তু ফল পাওয়া যাচ্ছে না। শিক্ষক সংকটের কারণে সুনামগঞ্জের সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষা কার্যক্রম প্রকৃত পক্ষেই ব্যাহত হচ্ছে।’
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শফিউল আলম (শিক্ষা ও উন্নয়ন) বলেন,এই বিষয়ে আমরা অবহিত রয়েছি। ইতিপূর্বে একাধিকবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে জেলা প্রশাসনের পত্র যোগাযোগ হয়েছে। ব্যক্তিগত যোগাযোগ থেকে জানা গেছে এ ধরনের সংকট সারাদেশে নয়। কেবল হাওরাঞ্চলে। এখানে শিক্ষকদের বদলী করা হলেও শিক্ষকরা থাকতে চান না, বা থাকেন না। আমরা আশা করছি স্বল্পতম সময়ের মধ্যে এই সমস্যার সমাধান হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24