বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১২:২৭ পূর্বাহ্ন

অাজ বিশ্ব মেধাসম্পদ দিবস : বন্ধু বিজ্ঞানী শামীম এখনো অস্ট্রেলিয়ায়! মো.অাব্দুল মতিন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৯২ Time View

সভ্যতার ঊষালগ্ন থেকে মানুষের যৌক্তিক অাচরণ,উদ্ভাবনী ওসৃজনশীল কর্মকান্ডের ফলে সেই অাদিম যুগ থেকে সমাজ ও সভ্যতাকে অাধুনিক
যুগে নিয়ে এসেছে; প্রকৃতির প্রতিকুলতাকে জ্ঞান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ব্যবহারে করেছে অনেক ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রিত। প্রতিটি ক্ষেত্রে মেধাবীদের সম্মান,মেধাসম্পদের বিকাশ ওসংরক্ষণে জনমত ওসচেতনতা সৃষ্টিতে ২৬এপ্রিল ওয়ার্ল্ড ইন্টালেকচুয়াল পোপার্টি অর্গানাইজেশন (ডব্লিউঅাইপিও) এর সদস্যরাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশে ও এদিবসটি কে ‘গ’ শ্রেণীভুক্ত দিবস হিসেবে পালন করা হয়। প্রত্যেকটি দিবসের একটি প্রতিপাদ্য থাকে। যেমন,২০১৫ সালে ছিল ‘ গেটঅাপ, স্ট্যান্ড অাপ ফর মিউজিক’, ২০১৪ তে ছিল ‘ মুভিজ এ গ্লোবাল প্যাশন’ অার এবার ‘জীবনের উন্নয়নে উদ্ভাবন’।

এদিবসটি দেশে শুধু দিবসপালনের জন্য যদি করা হয় তবে অামার লেখাটি অপ্রয়োজনীয় নিজেই স্বীকার করি। অার যদিতা না হয়ে মেধাবীদের প্রতি সম্মান ও সচেতনতা তৈরীর সত্যিকার উদ্দেশ্যে হয়ে থাকে তা হলে অামার কিছু বলার অাছে।
বাংলাদেশ বহু জনসংখ্যার একটি দেশ। যখন জনসংখ্যাকম ছিল, তখন অামরা খাদ্যনিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হতাম।এখন জনসংখ্যা প্রায় ১৬ কোটির উপরে থাকলেও দেশ খাদ্যেে স্বয়ংসম্পূর্ণ। অার এসবই হয়েছে সরকার কর্তৃক গৃহীত মেধাবীদের সমন্বয়ে কৃষিতে বিজ্ঞান ও লাগসই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে।
কিন্তু একটি দেশ শুধু কৃষি ক্ষেত্রে উন্নয়ন করলেই হয়না সেখানে অকৃষিজ উৎপাদন (শিল্প,প্রযুক্তি উৎপাদন) অর্জন করতে হয় যা উন্নত রাষ্ট্র গুলোর দিকে থাকালেই বুঝা যায়। অার সেই কৃষিজ,অকৃষিজ দ্রব্য ও সেবার উৎপাদনে একটি দেশের মেধাবী,সৃজনশীল, বিজ্ঞানমনস্ক জনগণ তৈরীতে রাষ্ট্র যদি ভুমিকা সঠিক ভাবে পালন না করে
তবে এসব মেধাবীরা অামেরিকা,কানাডা,জার্মান,ফ্রান্স,অস্ট্রেলিয়া,বৃটেনের ‘পুল ফ্যাক্টর’ টানে সারা দেয় দেশের মেধাপাচার হয়, দেশ হয় মেধাশুন্য। যারা কোথাও যেতে পারেনা তাদের মেধা ও মধ্যস্বত্ব ভোগীদের কবলে পড়ে; অনেক সময় দেশবিরোধীদের খপ্পরে পড়ে এদেরকেই সৃষ্টিশীল কাজে না লাগিয়ে ধ্বংসের কাজে ব্যবহার করা হয়। অামরা এই দিবস পালনে যদি বাস্তবিক অর্থেই মেধাবী বান্ধব দেশ করতে পারি, তাঁদের জন্য স্পেশাল প্রণোদনা দিয়ে কোরিয়া যেভাবে তাঁর সকল মেধাবীদের প্রনোদনা দিয়ে অামেরিকা থেকে ফিরিয়ে অাধুনিক কোরিয়ার জন্ম দিয়ছে অামরাকী এমন চিন্তাকরতে পারিনা? বিদেশীরা অামাদের কে যন্ত্র ও প্রযুক্তি দেয় সত্যি কিন্তু তাদের দক্ষ জনবল অামাদের ব্যবহার করতে হয়, তাঁদের দেশের স্কেলে বেতন দিতে হয় এতে উন্নয়নে যে নির্ভশীলতা তৈরী হয় তা ‘গুড়ের লাভ পিঁপড়ায় খাওয়া’র সামিল। অামেরিকার সমাজ মনোবিজ্ঞানী বেঞ্জামিন স্যামুয়েল ব্লুম এর গ্রেডিং পদ্বতির যে শিক্ষা দর্শন সৃজনশীল নামে চালানো হচ্ছে তা অাজ শিক্ষার্থীদের দক্ষতা সৃষ্টিতে ভুমিকা রাখছেনা ‘যেই কদু,সেই লাউ। এব্যাপারে ও অামাদের ভাবতে হবে।
অামার বিশ্ব বিদ্যালয়ের বন্ধু বিজ্ঞানীজহিরুল অালম সিদ্দিকী যাকে অামরা শামিম নামে ডাকি সে অস্ট্রেলিয়াতে বর্তমানে গ্রীফিত বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত যে ন্যানোশেয়ার টেকনোলজিতে গবেষণা করে মানব দেহে ক্যান্সারের সেল সনাক্তকারী যন্ত্র অাবিষ্কার করে বিশ্বে হইচই ফেলে দিয়েছে। তাঁকে সে দেশের সরকার সম্মান দিয়েছে,গাড়ী,বাড়ি,জীবনের নিশ্চয়তা দিয়েছে। সেখানে সে স্থায়ী বাসিন্দা হয়েছে। এভাবে কত শামীম এদেশ ছেড়ে ‘ পুল’ ‘পুশ’ ফ্যাক্টরের জন্য মেধা প্রাচার করেছে যারা এ দেশকে ভালবাসে। বিদেশের মাটিতে তাঁদের মেধার সত্যি মর্যাদা তারা পায় কিন্তু অামাদের দেশে কেন তা হবেনা?কেন বিজ্ঞানী শামীমরা অাজো অস্ট্রেলিয়া?একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় শামীমদের এ দেশে অাজ বড় প্রয়োজন।

লেখক-মো.অাব্দুল মতিন প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ শাহজালাল মহাবিদ্যালয় জগন্নাথপুুর,সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24