বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন

আওয়ামীলীগের সাংসদ লিটনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ২১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: গাইবান্ধার আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম ওরফে লিটনের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মন্ত্রিসভা বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন বলে একাধিক সিনিয়র মন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অপকর্মকারীদের কোন দল নেই। তাদের দায়িত্ব দল নেবে না। এ ছাড়া বৈঠকে তিনি দুই বিদেশী হত্যাকাণ্ডে বিএনপির এক স্থায়ী কমিটির সদস্য ও রংপুর অঞ্চলের বাসিন্দা ঢাকা মহানগরের এক নেতার নাম উল্লেখ করে বলেন, তাদের জড়িত থাকার বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যায় না। এমপি লিটনের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার উদ্দেশে বলেন, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ এলাকাটি জামায়াত ও বিএনপিপ্রবণ এলাকা। এ এলাকায় এমন একসময় ছিল আওয়ামী লীগের নাম বললে নানাভাবে নাজেহাল করা হতো। ওই অবস্থা কাটিয়ে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করতে নিরলসভাবে কাজ করেছেন মনজুরুল ইসলাম। এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু বর্তমানে তার খারাপ কাজের দায় দল কেন নেবে? যুক্তরাষ্ট্রে বসে বিষয়টি আমার নজরে আসার পর তার অস্ত্র জমা ও লাইসেন্স বাতিল করার নির্দেশ দেই। ওই অনুযায়ী এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এখন আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বলছি, লিটনের বিষয়ে আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী যা ব্যবস্থা নেয়ার প্রয়োজন তা-ই নিতে হবে। মন্ত্রিসভার সদস্যদেরও বলছি, আপনারা আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করে যান। তবেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়ন করা যাবে। ইতালি ও জাপানি নাগরিকের হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য একটি চক্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। রংপুর এলাকার এক নেতার হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ইন্ধন রয়েছে। বিভিন্ন মাধ্যমে বিএনপি নেতারা জানাচ্ছেন, অক্টোবর থেকে বিএনপি কর্মসূচি দেবে। এতে হতাহতের ঘটনা ঘটলে বিষয়টি যেন তারা অন্যভাবে না নেন। মূলত দেশের ইমেজ নষ্ট করার জন্য বিদেশী হত্যাকাণ্ডের মতো ঘটনা তারা ঘটিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করার অংশ হিসেবেই এসব ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ওইসব ঘটনার মূল খুঁজে বের করবে। ওই বিশ্বাস আমাদের রয়েছে। আমি আশা করবো সব অপশক্তিকে তোয়াক্কা না করে আপনারা কাজের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। এদিকে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের তিন?টি কলেজের সভাপতির পদ থেকে এমপি লিটনকে প্রত্যাহার করেছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। গতকাল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানানো হয়েছে। মনজুরুল ইসলাম গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের ধুবনী কঞ্চিবাড়ী কলেজ, সুন্দরগঞ্জ মহিলা কলেজ, সুন্দরগঞ্জ ডি ডব্লিউ কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি পদে থাকতে পারছেন না। উল্লেখ্য, গাইবান্ধার এমপি লিটনকে আসামি করে একটি মামলা করা হয়েছে।
এমপি লিটনবিরোধী
আন্দোলনে বাধা
সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানান, উত্তাল সুন্দরগঞ্জ। মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে গ্রেপ্তারের দাবিতে চলছে মিটিং, মিছিল ও মানববন্ধন। পাশাপাশি চলছে সড়ক অবরোধের ঘটনা। অন্যদিকে এমপি আত্মগোপনে থাকলেও তার ক্যাডাররা বিভিন্ন স্থানে আন্দোলনে বাধা দিচ্ছে। এ অবস্থায় পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকা নিয়েও ক্ষুব্ধ জনতা। এমপিকে গ্রেপ্তারে পুলিশ কোন উদ্যোগই নিচ্ছে না বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। ওদিকে এমপির বৈধ দুটি অস্ত্র জমা ও লাইসেন্স বাতিল করলেও তার রয়েছে অবৈধ অস্ত্রভাণ্ডার। সেগুলো খুঁজে বের করে সুন্দরগঞ্জবাসীর জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সরকার এবং প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছেন তারা।
গুলিবিদ্ধ শিশু সৌরভের পিতা ও তার পরিবারের করা মামলা তুলে নিতে গাইবান্ধার কয়েকজন প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা এবং তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা মোটা অঙ্কের টাকা দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। কিন্তু তার পরিবারের পক্ষ থেকে টাকা নেয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে হচ্ছে। সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা আহমেদ বলেন, এমপির এ ন্যক্কারজনক ঘটনা শোনার পর আওয়ামী লীগের কর্মী সমর্থকরাই লিটনের বিরুদ্ধে মিছিল, মিটিং ও মানববন্ধন করছেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, মনজুরুল ইসলাম লিটন উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আশরাফ আলী মাস্টার। যুবক বয়স থেকেই বেশির ভাগ সময় কেটেছে ঢাকার সোনারগাঁ। মেঘনা ঘাটে অবস্থিত শিপায়েড এন্ডার প্রাইজ জাহাজ নির্মাণের কারখানায়। ঢাকায় থাকাকালীন ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সদস্য হন লিটন। ২০০৩ সালে গুলিবর্ষণ করে জিম্মি রেখে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হন তিনি। একই সালের ১৪ই নভেম্বর একতা এক্সপ্রেসের যাত্রী ফলগাছা গ্রামের রওশনারা বেগম ভোরে ঢাকা থেকে বামনডাঙ্গা ফেরার পথে শ্লীলতাহানির শিকার হন লিটনের হাতে। ট্রেনে টানাহেঁচড়া করে তাকে বিবস্ত্র করার চেষ্টা করা হয়। হাত ছিটকে পালিয়ে রওশনারা আশ্রয় নেন বামনডাঙ্গা রেলওয়ে মসজিদে। এ সময় তাকে উদ্দেশ্য করে মাতাল অবস্থায় মসজিদের ভেতর প্রবেশ করে গুলিবর্ষণ করেন লিটন। ২০০৫ সালে জড়িয়ে পড়েন বেসরকারি রেলওয়ে বাণিজ্যে। ১ হাজার ৮৮৮ জন শ্রমিক কর্মচারীর ১৪ মাসের বেতন-ভাতা প্রায় ৩০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করায় বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেন ভুক্তিভোগীরা। ২০০৮ সালে ব্যাংকঋণের মাধ্যমে আশরাফ আলী হিমাগার নির্মাণ করেন মনজুরুল ইসলাম লিটন। ব্যাংকঋণের দায়ে প্রায় দেউলিয়া হওয়ার পথে বসে এ প্রতিষ্ঠানটি। বেড়ে যায় তার অপরাধ প্রবণতার মাত্রা। ২০১৩ সালে হিমাগারে আলু সংরক্ষণ করেন এলাকার অসহায়, গরিব চাষিরা। যথাসময়ে আলু ফেরত না দিয়ে বিক্রি করে গাঢাকা দেন লিটন। এরপর নামে মাত্র ঋণ রেখে পরিশোধ করেন ব্যাংকঋণ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24