সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

আজ চাঁদ দেখা গেলে কাল ঈদ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০১৫
  • ১৬০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:; আজ হিজরি সনের শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেলে কাল ঈদ। এক মাস সিয়াম সাধনার পর উদযাপিত হবে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় অনুষ্ঠান পবিত্র ঈদুল ফিতর। সারা দেশে যথাযথ মর্যাদায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতা ও আনন্দ-উৎসবের মধ্য দিয়ে ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। ঈদ উৎসবকে কেন্দ্র করে আজ বিকাল থেকেই শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার জন্য অগণিত মুসলমান পশ্চিম আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকবেন। আজ চাঁদ দেখা না গেলে পরের দিন রোববার অনুষ্ঠিত হবে ঈদুল ফিতর। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে মুসলিম বিশ্বের যেসব দেশে আনন্দঘন উৎসবের মধ্য দিয়ে ঈদ উদযাপিত হবে, সেসব দেশের ইসলাম ধর্মাবলম্বী প্রতিটি ঘরেই শুরু হয়েছে ঈদের আমেজ। বাবা-মা-ভাই-বোনসহ প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করার জন্য এর মধ্যে লাখ লাখ মানুষ শত বিড়ম্বনা মাথায় নিয়ে নাড়ির টানে ছুটে গেছেন নিজ গ্রামে। আত্মীয়স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী, পরিচিত সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীপেশার আপনজনদের নিয়ে এক সঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করবেন তারা। ছেলে, বুড়ো সবাই শামিল হবেন ঈদগাহ ময়দানে। ইমামের পেছনে দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ শেষে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা কোলাকুলি করবেন একে অপরের সঙ্গে। বিশ্ব মুসলিম ভ্রাতৃত্ব প্রতিষ্ঠা এবং মুসলিম জাহানের উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করবেন।
ঈদুল ফিতরের তারিখ নির্ধারণের লক্ষ্যে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সদস্যরা আজ (শুক্রবার) সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম মিলনায়তনে বৈঠকে বসবেন। সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। চাঁদ দেখা গেলে আগামীকালই ঈদুল ফিতর, অন্যথায় পরশু রোববার বাংলাদেশের মুসলিম সম্প্রদায় ঈদুল ফিতরের আনন্দে মেতে উঠবেন। অবশ্য এর ব্যতিক্রম ঘটনাও রয়েছে। বাংলাদেশের ৪/৫টি এলাকায় সৌদি আরবের সঙ্গে তাল মিলিয়ে রোজা রাখেন ও ঈদ পালন করেন। তারা হয়তো আজই ঈদ উদযাপন করবেন। তবে দেশের ১৬ কোটি মানুষের অধিকাংশই রোজা, ঈদ ও অন্যান্য ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালন করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী।
ঈদ আনন্দের আসল ভাগিদার হচ্ছেন যারা এক মাস পবিত্র সিয়াম-সাধনায় অভুক্ত থাকার কষ্টকে অনুভব করেছেন, নামাজ, তারাবিহ, ইবাদত-বন্দেগি এবং ইসলামের অনুশাসন পালন করেছেন। তাদের জন্য এ ঈদ আনন্দ বেশি উপভোগের, উচ্ছ্বাসের, আনন্দের ও প্রশান্তির। তাদের জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের রয়েছে এক মহাপুরস্কার। যারা রোগব্যাধিহীন সুস্থ দেহে সিয়াম পালন না করে দিনের বেলায় উদরপূর্তি করেছে, রমজানের পবিত্রতা নষ্ট করেছে, ধর্মীয় অনুশাসন অনুযায়ী ঈদ আনন্দ উপভোগ করার কোনো অধিকার তাদের নেই। ধর্মে তাদের ঈমান নেই, তারা নামেই মুসলমান। পবিত্র হাদিসের বর্ণনা মতে, এক মাস রোজা রাখার পর নতুন পাজামা-পাঞ্জাবি তথা পছন্দের পোশাক পরে, শরীরে আতর-খুশবু মেখে মুসলমানরা যখন ঈদগাহে যান, তখন ফেরেশতারা তাদের সংবর্ধনা জানান। স্বর্গীয় সব বাণীতে তাদের অভিনন্দিত করা হয়।
ঈদুল ফিতর মুসলিম উম্মাহর জন্য এক সর্বজনীন ধর্মীয় উৎসব। ধনী-দরিদ্র, ছোট-বড়, ফকির-মিসকিন, বাদশা-মন্ত্রী, নেতা-কর্মী, মালিক-কর্মচারী তথা আবালবৃদ্ধ সবাই এক কাতারে শামিল হবেন। পবিত্র রমজানে বিত্তবানরা দানের মহিমায় উজ্জীবিত হয়ে এগিয়ে এলে এবং দান-খয়রাত করলে, জাকাত ও ফেতরা দিলে আর্থিক অসচ্ছল মানুষ ঈদ আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন। তাদের মুখেও ফুটবে হাসি এবং ঈদের ভোর আসবে তাদের জন্য আনন্দবার্তা হয়ে। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) ঈদের খুতবায় দান-খয়রাতকে বিশেষভাবে উৎসাহিত করতেন।
এদিকে ঈদের জন্য আজ থেকে তিন দিনের সরকারি ছুটি শুরু হয়েছে। অবশ্য শুক্র ও শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি সরকারি ছুটির সঙ্গে এক হয়ে যাওয়ায় এবার সরকারি কর্মকর্তারা কিছুটা মনঃক্ষুণ্ণ। রোববার ঈদ হলে ছুটি বাড়বে আরও একদিন। পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এমপি পৃথক বাণীতে দেশবাসীর প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়ে বিশ্ব মুসলিমের সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করেন।
আজ চাঁদ দেখা গেলেই ঘরে উপাদেয় খাদ্যসামগ্রী তৈরির তোড়জোড় শুরু হয়ে যাবে। খাদ্য তালিকায় সেমাই প্রাধান্য পায় বলে এ ঈদে সেমাইয়ের সঙ্গে থাকবে ফিরনি, পিঠা, পায়েস, কোরমা, পোলাওসহ সুস্বাদু সব খাবারের সম্ভার। রোগীদের জন্য হাসপাতাল এবং এতিমখানা ও বন্দিদের জন্য জেলখানায় থাকবে বিশেষ উন্নতমানের খাবারের আয়োজন। সরকারি শিশুসদন, ছোটমণি নিবাস, সামাজিক প্রতিবন্ধী কেন্দ্র, বৃদ্ধাশ্রম, ভবঘুরে কল্যাণ কেন্দ্র এবং দুস্থ কল্যাণ কেন্দ্রে থাকবে উন্নতমানের খাবার এবং বিনোদনের ব্যবস্থা। এছাড়া কেন্দ্রীয় কারাগারসহ দেশের সব কারাগারেও পরিবেশন করা হবে উন্নতমানের খাবার। এরই মধ্যে ঈদের আনন্দ সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। কাপড়চোপড়ের মার্কেট থেকে শুরু করে জুতা, আতর, টুপি ও মসলার রমরমা বেচাকেনা ছিল গত এক সপ্তাহ ধরে। নাড়ির টানে মানুষ ছুটছে গ্রামের পানে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, মন্ত্রী এবং সংসদ সদস্যরাও নিজ নিজ এলাকায় জনগণের সঙ্গে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে গ্রামে যাচ্ছেন নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষকে কাছে টানতে। এসব কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের সামাজিক ও সম্প্রীতির বন্ধন দিন দিন আরও সুদৃঢ় হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24