সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

আমি ভারত বিরোধী নই, হিন্দু বিদ্বেষী নই: দ্য সানডে গার্ডিয়ানের সাথে সাক্ষাৎকালে খালেদা জিয়া

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৫ জুন, ২০১৫
  • ১১৭ Time View

জগন্নাথপুর টোয়েন্টিফোর ডটকম:: দুই বছর আগে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ না করার কারণ ব্যাখ্যা করে একটি ভারতীয় পত্রিকাকে খালেদা জিয়া বলেছেন, তিনি ও তার দল ভারতবিরোধী নয়। হিন্দুবিরোধীও নন তারা। তবে তাকে ও তার দলকে ভারতবিরোধী হিসেবে তুলে ধরতে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরকালে তার সঙ্গে বৈঠকের কয়েক ঘণ্টা পর নয়াদিল্লিভিত্তিক পত্রিকা দ্য সানডে গার্ডিয়ানের সাংবাদিক সৌরভ সান্যালকে একটি সাক্ষাৎকার দেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

বিজেপি মুখপাত্র এম জে আকবর পত্রিকাটির প্রধান সম্পাদক।

নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে বৈঠক, ভারত বিরোধিতার অভিযোগ, জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে জোট, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা না করা, সংসদ নির্বাচন বর্জন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে নিজের মনোভাবসহ নানা বিষয়ে কথা বলেছেন বিএনপিনেত্রী।

নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে তার বৈঠক যাতে না হয় সেজন্য সরকার সব ধরনের চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

পুরো সাক্ষাৎকারটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল-

প্রশ্ন: বেগম জিয়া, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আপনার বৈঠক কেমন হল?

খালেদা জিয়া: খুব সন্তোষজনক বৈঠক ছিল এটা। মোদীজির সঙ্গে চমৎকার বৈঠক হয়েছে। আমি বলতে পারি, খুব আন্তরিক পরিবেশে বৈঠকটি হয়েছে। আমি খুবই সন্তুষ্ট।

প্রশ্ন: আপনাদের আলোচনার গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কী কী ছিল?

খালেদা জিয়া: আমি যেমনটি বলছিলাম, বৈঠকটি খুবই আন্তরিক ছিল এবং খুব ভালো হয়েছে। আপনারা দেখেছেন একান্ত আলোচনা হয়েছে। আমরা কী কী নিয়ে কথা বলেছি তা আমি বিস্তারিতভাবে বলতে পারব না। তবে অবশ্যই খুব সন্তোষজনক বৈঠক হয়েছে।

প্রশ্ন: বৈঠকটি হবে কি না তা নিয়ে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সংশয় ছিল। সবকিছুর পরে আপনি যখন সোনারগাঁও হোটেলে পৌঁছালেন তখন সংশয় দূর হয়েছিল? কী কারণে এ সংশয় তৈরি হয়েছিল?

খালেদা জিয়া: সংশয়, সংশয় কেন? আমি কি একবারও বলেছি, মোদীজির সঙ্গে আমি দেখা করব না। নির্বাচনে জয়ের জন্য আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছিলাম। আপনি কি বিএনপির কোনো একজন নেতার কাছে শুনেছেন যে, আমি মোদীজির সঙ্গে দেখা করব না? বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতন্ত্রের নেতা মোদীজি। তিনি বাংলাদেশে এসেছেন দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক জোরদারের লক্ষ্যে। ভুল বার্তা পাঠাতে ওই বিভ্রান্তি ছড়ানো হয়েছিল এবং তারা তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়েছেন; যাতে মোদীজির সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ না হয় সেজন্য তারা কোনো চেষ্টা বাকি রাখে নাই।

প্রশ্ন: ম্যাডাম, তাহলে আপনি অভিযোগ করছেন, প্রধানমন্ত্রী মোদীর বাংলাদেশে সফরে আপনাকে তার থেকে সরিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র হয়েছিল? কারা এটা করেছিল?

খালেদা জিয়া: আমাকে সব খোলাখুলি বলতে দিন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী প্রকাশ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আমার বৈঠকের সম্ভাবনা নাকচ করলেন। তারপরে নয়া দিল্লি সরাসরি বিষয়টি নিয়ে কথা বলল। প্রধানমন্ত্রীর সফরের প্রাক্বালে বাংলাদেশের এই বিবৃতি আসার কয়েক ঘণ্টা পর ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর নয়া দিল্লিতে বললেন, বৈঠক হবে। আপনি এটাকে কীভাবে দেখবেন? বৈঠকটি যাতে না হয় সেজন্য বাংলাদেশ সরকার তাদের সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টার পরেও বৈঠক হওয়ায় আমি ভারতীয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই। মোদীজির সঙ্গে আমার কোনো আলোচনা হোক তা তারা চায়নি।

আমি কি একবারও বলেছি, আমি মোদীজির সঙ্গে দেখা করব না? নির্বাচনে জয়ের পর ব্যক্তিগতভাবে আমি তাকে অভিনন্দন জানিয়েছিলাম। বিএনপি ও আমাকে ভারতবিরোধী হিসেবে পরিচিত করতে এখানে ব্যাপকভাবে অপপ্রচার চলছে।

প্রশ্ন: তাহলে আপনার কাছে সরাসরি একটি বিষয় জানতে চাই। আপনি যেভাবে বলছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রী মোদীর সঙ্গে আপনার বৈঠক ঠেকাতে সরকার চেষ্টা চালিয়েছে। তাহলে ২০১৩ সালে প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জি যখন বাংলাদেশে আসলেন তখন আপনি কেন তার সঙ্গে দেখা করলেন না?

খালেদা জিয়া: প্রশ্নটি করায় আপনাকে ধন্যবাদ। হ্যাঁ, এটা একটা ঘটনা যে, বাংলাদেশে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির রাষ্ট্রীয় সফরে আমি তার সঙ্গে দেখা করতে পারিনি। ১৯৭১ এর যুদ্ধাপরাধে তাদের তিন নেতার দণ্ডের প্রতিবাদে জামায়াতে ইসলামী তখন সারা দেশে হরতাল ডেকেছিল। আমি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ বাতিল করেছিলাম কারণ আমি তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে আমার উপর হামলা হতে পারে বলে আমাদের কাছে খবর ছিল। আসলে প্রাণনাশের হুমকি ছিল। আপনাদের মনে থাকতে পারে, তার হোটেলের খুব কাছে-যেখান দিয়ে আমাকে যেতে হত সেখানে একটি পেট্রোল বোমার বিস্ফোরণ ঘটেছিল।

প্রশ্ন: কিন্তু জামায়াতে ইসলামী আপনাদের জোটসঙ্গী। তারা কেন আপনার উপর হামলা করবে?

খালেদা জিয়া: ঠিকই, ঘটনাটি এখানেই। আমার কোনো কিছু ঘটলে তার পুরো দোষ দেওয়া হত জামায়াতকে। এবং এটাই ছিল আমাদের বিরোধীদের গেইম প্ল্যান, যা আমরা বুঝতে পেরেছিলাম এবং বৈঠকটি বাতিল করেছিলাম। আজকে আমি আপনাকে সত্যি কথাটা বললাম।

প্রশ্ন: বেগম জিয়া, প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা না করার বিষয়ে আপনি আপনার ব্যাখ্যা দিলেন। কিন্তু এটা তো আপনার আরেকটা ভারতবিরোধী অবস্থান বলে বাইরের সবাই ধরে নিল?

খালেদা জিয়া: আমি ভারতবিরোধী হব কেন? দেখেন, এইটাই আমি আপনাকে বলার চেষ্টা করছি। আমাকে ভারতবিরোধী ও হিন্দুবিরোধী হিসেবে চিত্রিত করার জন্য সরকার চারদিক থেকে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ভারত ও বাংলাদেশের শক্তিশালী বন্ধন রয়েছে এবং আমাদের মুক্তির জন্য ভারতের অবদান আমরা পুরোপুরি স্বীকার করি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরের লক্ষ্য ছিল ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও জোরদার করা। বিএনপি ও আমাকে ভারতবিরোধী হিসেবে তুলে ধরতে অব্যাহতভাবে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

প্রশ্ন: কিন্তু জামায়াতে ইসলামী আপনাদের জোটসঙ্গী। তাদেরকে ধর্মীয় কট্টরপন্থি হিসেবে দেখা যায় এবং আচরণে তার ভারতের প্রতি ইতিবাচকও নন…

খালেদা জিয়া: জামায়াত আমাদের জোটসঙ্গী এবং শুধু এটাই। জোটে তাদের বিএনপির কথা শুনতে হয়। দেখেন আমরা যেহেতু এসব বিষয় নিয়ে কথা বলছি, আমাকে বলতে দিন- আপনি শুনে বিস্মিত হবেন যে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা বিশেষ করে হিন্দুরা আওয়ামী লীগের হাতে নির্যাতিত হয়। তাদের ঘরবাড়ি লুটে নেওয়া হয়, জমি দখল করা হয়… এবং আমাদের বলা হয় হিন্দুবিরোধী? আমরা হিন্দুদের সঙ্গে আছি এবং দেশের সব নাগরিকের কল্যাণ চাই।

বাংলাদেশে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করা হয়েছে। আমাদের উপর হামলা হচ্ছে, আমাদের নেতাদের মেরে ফেলা হচ্ছে, প্রায় ২০ হাজার নেতা গুম হয়েছেন এবং কেউ সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললেই তার উপর হামলা হচ্ছে। এখানে জরুরি অবস্থার চেয়েও খারাপ পরিস্থিতি। আমি যদি কথা বলি তাহলে আমাকে পাকিস্তানি এজেন্ট বলা হয়। আমার স্বামী জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক ছিলেন। যখন তিনি পাকিস্তানি আর্মি থেকে বিদ্রোহ করেছিলেন তখন তিনি একজন মেজর ছিলেন, এটা কি আমরা ভুলে গেছি?

প্রশ্ন: কিন্তু বেগম জিয়া, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে আপনি আওয়ামী লীগকে ‘ওয়াকওভার’ দিয়েছেন। এবং আজকে আপনি বলছেন, বাংলাদেশে এখন আইনশৃঙ্খলা পুরোপুরি ভেঙে পড়েছে।

খালেদা জিয়া: একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আওয়ামী লীগ এক সময় আন্দোলন করেছিল। আমরা তা মেনে নিয়েছিলাম এবং অতীতে সেভাবে নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসল তখন নিজেদের স্বার্থে তারা সংবিধান সংশোধন করল। প্রভিশনটি বাদ দেওয়া হল। আমরা বুঝতে পেরেছিলাম যে, ভোট জালিয়াতির জন্য তারা পুরো সরকার ব্যবস্থা এবং পুলিশকে ব্যবহার করবে বলে বাংলাদেশে একটি অবাধ ও ‍সুষ্ঠু নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়। দেখেন সদ্য অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন কী হল। ভোটাররা যখন ভোটকেন্দ্রে গেল তখন তাদের বাড়ি ফিরে যেতে বলা হল যেহেতু আগেই তাদের ভোট হয়ে গিয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে নির্বাচনের সময় একজন পুলিশ কমিশনারের বক্তব্যের রেকর্ডই প্রমাণ করে দেবে ভোটে পুলিশ কীভাবে প্রভাব খাটিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে আমরা কখনও অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করতে পারি?

এখন আমরা যে ঘরে বসে আছি এখানে আমাকে ৯২ দিন বন্দি করে রাখা হয়েছিল। তারা যোগাযোগের লাইনগুলোও বিছিন্ন করে দিয়েছিল। পেপার স্প্রে ব্যবহার করা হয়েছিল, খাবার সরবরাহ বন্ধ করা হয়েছিল এবং এমনকি এক সময় পানি আসাও বন্ধ করে দিয়েছিল। এটাই আসল ঘটনা।

প্রশ্ন: তাহলে সামনে এগোনোর পথ কী, বেগম জিয়া?

খালেদা জিয়া: আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই এবং এটাই জনগণের কথা শুনতে পাওয়ার জন্য একমাত্র পথ। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবশ্যই বাংলাদেশের বিষয়গুলো দেখা দরকার। (বিডি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সৌজন্যে)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24