বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

আরব আমিরাতে সাধারণ ক্ষমা, নতুন পাসপোর্টের আবেদন ৫০০০ বাংলাদেশীর

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮
  • ২৬১ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক:: অবৈধ অভিবাসীদের জন্য সাধারণ ক্ষমার অধীনে সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রায় ৫০০০ বাংলাদেশী সেখানে নতুন করে পাসপোর্ট চেয়ে আবেদন করেছেন। যদি এ অনুমোদন পান তাহলে তারা পাবেন ৬ মাসের অস্থায়ী ভিসা। এ ভিসার অধীনে তারা নতুন কোনো কাজ জুটিয়ে নিতে পারবেন। সাধারণ ক্ষমার অধীনে যেসব বাংলাদেশী অবৈধ অভিবাসী এসেছেন তার বেশির ভাগই এমন আবেদন করেছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতে ১লা আগস্ট থেকে শুরু হয়েছে তিন মাসের সাধারণ ক্ষমা। তারপর থেকে ৩১ শে আগস্ট পর্যন্ত ওই সংখ্যক বাংলাদেশী আবেদন করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন গালফ নিউজ। সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান বলেছেন, আবেদনকারীদের মধ্য থেকে প্রথম ব্যাচের জন্য পাসপোর্ট ইস্যু শুরু হবে আগামী সপ্তাহ থেকে। তিনি আরো বলেন, বহু বাংলাদেশী সংযুক্ত আরব আমিরাতে থেকে যাওয়ার জন্য নতুন পাসপোর্টের আবেদন করেছেন। একই সঙ্গে তারা ৬ মাসের ভিসার আবেদন করেছেন। এটাকে বলা হচ্ছে কাজ খুঁজে নেয়ার ভিসা। যেহেতু পাসপোর্টগুলো ঢাকা থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেতে চার থেকে ছয় সপ্তাহ সময় লাগে তাই আগস্টের প্রথমে যারা আবেদন করেছিলেন তারা আগামী সপ্তাহে পাসপোর্ট পাবেন। তিনি আরো জানান, আগামী সপ্তাহে যাদেরকে পাসপোর্ট দেয়া হবে তাদের তালিকা আবু ধাবিতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের ওয়েবসাইট (www.bdembassy.ae.org) এবং দুবাইয়ে কনসুলেট জেনারেলের ওয়েবসাইটে (http://cgbdubai.org) প্রকাশ করা হবে আগামী সপ্তাহে। রাষ্ট্রদূ মোহাম্মদ ইমরান আরো বলেন, এই তালিকা বাংলাদেশী বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গেও শেয়ার করা হবে। যারা পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছেন তাদেরকে বাংলাদেশী মিশনের স্ট্যাটাস চেক করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, আবেদন করার চার সপ্তাহ পরে তারা যেন এসব পরীক্ষা করে দেখেন। তিনি আরো বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে সাধারণ ক্ষমার আবেদনকারী বাংলাদেশীদের মধ্যে শতকরা প্রায় ৮০ ভাগই সেখানে থেকে যেতে চান। ইমর্জেন্সি সার্টিফিকেটের চেয়ে এবার পাসপোর্টের জন্য অধিক হারে আবেদন পড়েছে। ইমার্জেন্সি সার্টিফিকেট তাদেরকে দেয়া হয় যাদে বৈধ পাসপোর্ট নেই অথচ দেশে ফিরে যেতে চান।
বাংলাদেশ মিশন ৩১ শে আগস্ট পর্যন্ত প্রায় ১২০০ ইমার্জেন্সি সার্টিফিকেট ইস্যু করেছে। এর মধ্যে দুবাইয়ে দেয়া হয়েছে ৭০০ এবং আবু ধাবি থেকে ইস্যু করা হয়েছে ৫০০ সার্টিফিকেট। দূতাবাসের হিসাবে তাদের মধ্যে প্রায় ১০০ জন এরই মধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাত ছেড়ে গেছেন। অন্যরা তাদের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করছেন। তবে এই ইমার্জেন্সি সার্টিফিকেটের মেয়াদ থাকে তিন মাস। উল্লেখ্য, যদি সাধারণ ক্ষমার অধীনে সংযুক্ত আরব আমিরাতে থাকতে চান একজন অভিবাসী তাহলে সেক্ষেত্রে তাকে প্রথমে পেতে হয় একটি বৈধ পাসপোর্ট। ৩১ আগস্ট পর্যন্ত যে ৫০০০ বাংলাদেশী পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেছেন তাদের অর্ধেকই আত্মগোপনকারী। তাদের পাসপোর্ট রয়েছে তাদের স্পন্সরদের কাছে। অথবা তাদের পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অথবা হারিয়ে গেছে। এমন আবেদন করেছেন দুবাইয়ে ৩০০০ ও আবু ধাবিতে ২০০০ বাংলাদেশী। বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা মনে করছি সাধারণ ক্ষমার মেয়াদে আরো ৫০০০ পাসপোর্টের আবেদন আসতে পারে। যদিও সাধারণ ক্ষমার অধীনে সংযুক্ত আরব আমিরাতে থেকে যাওয়ার জন্য বহু বাংলাদেশী আবেদন করেছেন, একই সঙ্গে তারা দূতাবাসে এমনটাও রিপোর্ট করেছেন যে, নতুন কাজের ভিসা জুটিয়ে নিতে তাদেরকে নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়। এর আগে ২০১২-১৩ সময়কালে একবার সাধারণ ক্ষমা দেয়া হয়েছিল। তখন প্রায় ২৫০০০ বাংলাদেশী এর আওতায় এসেছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24