সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

ইস্যু আগামী সংসদ নির্বাচন ও জেলা কমিটি গঠন- জেলাজুড়ে আ.লীগের তৃণমূলে দ্বন্দ্ব বাড়ছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ জুলাই, ২০১৭
  • ৫২ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
আগামী সংসদ নির্বাচন ও জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের বিভিন্ন আসনের উপজেলায় উপজেলায় আওয়ামী লীগের গ্রুপিং ও বিভক্তি জোরদার হচ্ছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন এবং জেলা কমিটি গঠন নিয়েই মুলত তৃণমূলে দ্বন্দ্ব বাড়ছে। এই মাসের ২৮ জুলাই সুনামগঞ্জ-১ আসনের ধর্মপাশায় স্কুল কমিটির আয়োজনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংগঠনের একাংশের নেতারাই কেবল থাকছেন। অন্যদিকে, ২০ জুলাই দক্ষিণ সুনামগঞ্জে উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানগণ ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বাকবিতন্ডা হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানরা সভাও বর্জন করেছেন। বৃহস্পতিবার বিকালে জেলার শাল্লা উপজেলায় স্থানীয় সংসদ সদস্যের উপস্থিতিতেই সংগঠনের দুই পক্ষ তর্কে জড়িয়ে ছিলেন।
শুক্রবার ধর্মপাশা উপজেলা সদরে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুটকে গণসংবর্ধনা প্রদানের আয়োজন করা হয়েছে। ধর্মপাশা জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির আয়োজনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা বলছেন, ‘এই বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্যের বিরোধী বলয়ের হওয়ায় এই অনুষ্ঠান মূলত. আসন্ন সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-১ আসন থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন এমন কয়েকজনকে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অতিথি করা হয়েছে।’
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে থাকবেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে থাকবেন আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. সৈয়দ রফিকুল ইসলাম সোহেল, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের যুব
ও ক্রীড়া সম্পাদক অ্যাড. রণজিত সরকার, আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির টিম সদস্য সাবেক যুগ্ম সচিব বিনয় ভূষণ তালুকদার ভানু, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম শামীমসহ আরো অনেকেই।
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি, জনতা মডেল উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলমগীর কবির ওই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ও সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ বিলকিসের নাম পোস্টার বা প্রচারণায় নেই।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আলমগীর কবির বলেন,‘২৮ তারিখের অনুষ্ঠানে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুুরুল হুদা মুুকুটকে গণসংবর্ধনা দেওয়া হবে। এই অনুষ্ঠানের আয়োজক জনতা উচ্চ বিদ্যালয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সংসদ সদস্যকে আমন্ত্রণ জানানোর বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটি একমত পোষন করতে পারেন নি। কারণ এই স্কুলকে বাদ দিয়ে ৭ কিলোমিটার দূরের বাদশাগঞ্জ হাইস্কুলকে সরকারিকরণ করছেন তিনি। উনার সাথে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক নেই। উপজেলা কমিটির সেক্রেটারীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। তিনি বলছেন সহযোগিতা করবেন, তবে পোস্টারে তাঁর নাম না দেবার জন্য অনুরোধ করেছেন।’
তিনি আরো বলেন,‘আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে গ্রুপিং ছিল এখনও আছে, একসময় গ্রুপিং নিরসনও হবে। সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক যিনি পাবেন, আমরা তার সাথেই কাজ করবো।’
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন,‘ স্কুলে কোন সামাজিক অনুষ্ঠান করা বা কেউ অনুদান প্রদান করলে কারো আপত্তি থাকার কথা নয়। তবে যাদের অবস্থান অতিথে নৌকার বিরুদ্ধে ছিল, তাদের নিয়ে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠান করা হচ্ছে। যারা এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন তারাও সরকার বিরোধী।’
তিনি আরো বলেন,‘ জনতা হাই স্কুল সরকারিকরণ হবে না, এমন তোন কোন কথা নেই। পর্যায়ক্রমে সরকারিকরণ করা হবে। ‘জনতা উচ্চ বিদ্যালয় সরকারি হোক এটা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আলমগীর কবির নিজেই চান না। কারণ স্কুল সরকারিকরণ হলে তিনি সভাপতি থাকতে পারবেন না। বিদ্যালয়ের আর্থিক হিসাব-নিকাশসহ আরো কত কিছু আছে। তিনি বাদশাগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের সরকারিকরণ আটকাতে উচ্চ আদালতে রিট করেছেন। তিনি যদি মনে প্রাণে আওয়ামী লীগ করতেন, তাহলে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারতেন না।’
এদিকে, গত বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালামের (স্থানীয়ভাবে মতিউর-মুকুট সমর্থক হিসাবে পরিচিত) সঙ্গে উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভায় তর্কে জড়ান সকল ইউপি চেয়ারম্যানরা (স্থানীয়ভাবে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি’র সমর্থক হিসাবে পরিচিত)। এক পর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যানগণ সভা বর্জন করেন।
একই দিন বিকালে শাল্লায় স্থানীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা’র উপস্থিতিতেই তর্কে জড়ান স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই বলয়ের নেতা অবনী মোহন দাস ও আলামিন চৌধুরী।
জেলা আওয়ামী লীগের বিগত কমিটির একজন দায়িত্বশীল নেতা নাম না ছাপার অনুরোধ করে বললেন,‘পূর্ণাঙ্গ জেলা কমিটি গঠন এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে এলাকায় এলাকায় অর্থাৎ তৃণমূলে বিবেদ বাড়ছে।’ অবশ্য. এই বিভেদ নৌকা প্রতীকের বিজয় ঠেকাতে পারবে না বলেও দাবি তাঁর।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান বলেন,‘সংবর্ধনা অনুষ্ঠান নরমাল প্রসেজ। দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানরা উন্নয়ন তহবিলের টাকা বিলম্বে পেয়েছেন, এ নিয়ে কথা বলেছেন, এটিও অস্বাভাবিক কিছু নয়। দল বিভক্তির কিছু নেই এখানে। আওয়ামী লীগাররা নৌকার বাইরে যায় না।’
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন দেশের বাইরে থাকায় এ নিয়ে কথা বলা যায়নি।
সুত্র-সৃুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24