রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের! চাঁদাবাজির অভিযোগ দুই যুবলীগ নেতা গ্রেফতার দিরাইয়ে বিদেশীসহ গ্রেফতার-২ জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন সংর্ঘষে নিহত ২,দ. সুনামগঞ্জর হরিপুর এখন পুরুষ শূণ্য

এমপি রতনের বাসায় হামলা পৌর যুবলীগের আহবায়কসহ গ্রেফতার ৫

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩ মার্চ, ২০১৭
  • ৪৯ Time View

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সুনামগঞ্জ শহরের বাসভবনে হামলা ও ইটপাটকেল ছুড়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টা ৪০ মিনিটে শহরের মল্লিকপুর (পুলিশ লাইন্সের বিপরীতে) ‘পায়েল পিউ’এ এই হামলার ঘটনা ঘটে। সংসদ সদস্য রতন বাসায় না থাকায় এবং বাসার প্রধান ফটক তালাবদ্ধ থাকায় বড় ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি। এমপির রতনের দাবি যুবলীগের
কিছু নেতাকর্মী এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে এ দাবি সত্য নয় বলে দাবি করেছেন জেলা যুবলীগের আহবায়ক খায়রুল হুদা চপল।
রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সঞ্জয় সরকার। রাত ১১টা পর্যন্ত এমপির বাসভবনের সামনে পুলিশ মোতায়েন ছিল। এদিকে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে রাতেই পুলিশ সুনামগঞ্জ পৌর যুবলীগের আহবায়ক ও পৌর কাউন্সিলর আবাবিল নূর, শহরের উত্তর আরপিননগরের মৃত ময়না মিয়ার ছেলে আহসান মিয়া (৪৫), আব্দুল ছহুরের ছেলে বশির মিয়া (৪২), হাবিব আলীর ছেলে মনির মিয়া (৩৮) ও তেঘরিয়ার তহিফুর চৌধুরীর ছেলে মো. বিলাল চৌধুরী (৫০) কে গ্রেফতার করেছে।
পায়েল পিউ’র এর কেয়ারটেকার সৈয়দ সুজন জানান, সন্ধ্যা ৬ টা ৪০ মিনিটে ১৫-২০ টি মোটরসাইকেল যোগে একদল লোক হঠাৎ করে বাসার প্রধান ফটকে হামলা করে। কিন্তু ফটক তালাবদ্ধ থাকায় কেউ ভেতরে ঢুকতে পারেনি। এসময় হামলাকারীরা বাসার ভেতরে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ও প্রধান ফটকের দুটি লাইট ভেঙে ফেলে।
সৈয়দ সুজন আরও বলেন, ‘আমি বাসার বাইরে ছিলাম, এমপি সাহেবও নির্বাচনী এলাকায়। খবর পেয়ে বাসায় আসার পর আশ পাশের লোকজন জানিয়েছেন, বাসার প্রধান গেইটে হামলা ও ভেতরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। বিষয়টি আমি তাৎক্ষণিকভাবে এমপি সাহেবকে জানিয়েছি।
সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, ‘আমি শেখ হাসিনার নির্দেশে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধের অনিয়ম ও কাজের ধীরগতি নিয়ে গণমাধ্যমে কথা বলেছি। এতে দুর্নীতিবাজ ঠিকাদারের লোকজন হয়ে সদর থানা যুবলীগের নব্য সভাপতি উজ্জ্বলের নেতৃত্বে জামায়াত-শিবিরের কিছু নেতাকর্মী আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে বাসায় হামলা চালিয়েছিল। ঘটনার সময় আমি নির্বাচনী এলাকায় কাজে ব্যস্ত ছিলাম। আমি ন্যাক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। ঘটনার সাথে জড়িত সকলকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাই।’
তিনি আরো বলেন,‘ঘটনার পর পরই বিষয়টি আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবগত করেছি। জেলা যুবলীগের আহবায়ককে ঘটনাটি অবগত করতে বেশ কয়েকবার ফোন করেছি, তিনি ফোন রিসিভ করেননি। আমি পুরো বিষয়টি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। আমার বিশ্বাস পুরো ঘটনাটি জেলা যুবলীগের আহবায়ক অবগত আছেন।’
সদর থানা যুবলীগের সভাপতি এহসান আহমদ উজ্জ্বল বলেন,‘এমপি রতনের বাসায় হামলার ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। আমাকে হয়রানী করার জন্য এসব মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। ইতোপূর্বেও আমার বিরুদ্ধে এধরনের নানা মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। ’
জেলা যুবলীগের আহবায়ক খায়রুল হুদা চপল বলেন, ‘মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসায় হামলার ঘটনার সাথে যুবলীগের কোন নেতাকর্মী জড়িত নয়। আমার মনে হয় হামলার ঘটনাটি সাজানো। এমপি মোয়াজ্জেম হোসন রতন যেসব অভিযোগ করছেন তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।’
পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ হামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসার প্রধান ফটকের লাইট ভাংচুর করা হয়েছে। বাসার ভিতরে ঢিল ছোড়া হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িত ৫ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।’
সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বাসায় হামলার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, সংসদ সদস্য অ্যাড. শামছুন্নাহার বেগম শাহানা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড, নান্টু রায়, সাবেক প্রচার সম্পাদক হায়দার চৌধুরী লিটন, জেলা কৃষক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সিরাজুর রহমান সিরাজ, সদর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা জিয়াউল হক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24