বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী

ওদের খুঁটির জোর কোথায় ?

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৮৫ Time View

মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা :: তলিয়ে গেছে জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওর সহ জেলার বিভিন্ন হাওরের একমাত্র বোরো ফসল। হাওরপাড়ের মানুষের জীবন ধারনের একমাত্র ফসল হারিয়ে কৃষকরা এখন দিশেহারা।চোখের সামনে সবুজ প্রান্তর সাদা সমুদ্রে রূপান্তরিত হচ্ছে।কেন এই নির্মমতা, কেনো এভাবে কেঁড়ে নেওয়া হয় কৃষকের বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন।এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সচেতন মহলে।গত শনিবার ভোরে জগন্নাথপুর উপজেলার সর্ববৃহৎ নলুয়ার হাওরের শালিকা,ডোমখালি, মাছুয়াখালি স্পটে বাঁধ ভেঙ্গে যায়। এর আগের রাতে নারিকেলতলা,ইছগাঁও বাঁধ ভেঙ্গে পানিতে তলিয়ে যায় বিস্তীর্ণ এলাকার ফসল।মইয়ার হাওরের ফসল রক্ষার দূর্বল বাঁধ রক্ষায় শেষ মুহুর্তে দায়িত্বপ্রাপ্তরা সক্রিয় হলেও,নলুয়ার হাওরের পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে এই হাওরও। সুরিয়া বিবিয়ানা হাওরে জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত হওয়ার উপক্রম কাঙ্খিত ফসল।পানি উন্নয়ন বোর্ড ফসল রক্ষার নামে প্রতিবছর বাঁধ নির্মান ও ভাঙ্গা বন্ধকরনের প্রকল্প গ্রহন করে। ঠিকাদার ও পিআইসির মাধ্যমে এসব কাজ বাস্তবায়ন করার কথা। কিন্তু প্রতি বছরই কাজ আসে,বরাদ্ধ আসে কিন্তু কৃষকের দূর্ভোগ কমে না বরং ক্ষতির পরিমান বাড়ে। যথাযথ তদারকি,সময় মতো কাজ না করা,অনৈতিক সুবিধা নেওয়া আর সংশ্লিষ্টদের অবহেলার কারনে তলিয়ে যায় মানুষের স্বপ্ন। কে নেবে এই দায়ভার?যে স্পট দিয়ে হাওরে পানি ঢুকেছে,সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রায় ১৫ দিন পূর্বে পাউবো কর্মকর্তাদের মানসম্পন্ন কাজ না হওয়ার কথা অবগত করলেও কর্ণপাত করা হয় নি।এই স্পট গুলি ঝুঁকির মধ্যে আছে তা গণমাধ্যমে একাধিকবার প্রকাশিত হলেও কর্তৃপক্ষ ছিলেন উদাসীন।কিসের জন্য এই উদাসীনতা,কেন ছিল নির্লিপ্ততা।অশুভ আঁতাত না অশুভ শক্তির প্রভাব। অতিবৃষ্টির প্রথম ধাক্কাটা সামলাতে পারলো না এতো দূর্বল বাঁধ কি করে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পেলো তা প্রশ্নসাপেক্ষ। কি করে সংশ্লিষ্ট পিআইসি তিন কিস্তি বিল পায় তার জবাব কে দেবে?পিআইসি প্রধান টাকা উত্তোলন করে নিজের বিলাস সামগ্রী কেনে আর পাউবো কর্মকর্তারা তার বৈধতা দেয়। কিসের এতো দহরম,মহরম। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ না করে পার পেয়ে যায়।কোথায় কাজ,কার কাজ, কেউ জানতেও পারে না কি এক অদ্ভুত দপ্তর!গুটি কয়েক মানুষের কাছে হাজার হাজার মানুষের ভাগ্য বিপন্ন। কারা ছিনিমিনি খেলে হাওরের মানুষের একমাত্র ফসল নিয়ে,এরা কি অধরাই থেকে যাবে।সাব কন্ট্রাক্টের নামে মধ্যসত্বভোগী সেজে, কমিটিতে অন্তর্ভূক্তির সূযোগে প্রভাবশালী সেজে আর জনপ্রতিনিধি হওয়ার বদৌলতে বিশেষ কারো কৃপা নিয়ে তো সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করার ক্ষমতা কাউকে দেয়া হয় নি। তবে পাউবো কর্তৃপক্ষ নীরব কেন? কেন কাজের অগ্রগতি মূল্যায়ন করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হলো না।তবে কি সেই পুরনো প্রথা কমিশন বানিজ্য। কোন কোন পিআইসির গাফিলতির কারণে মানুষকে এই সংকটে ঠেলে দেওয়া হলো তা অনুসন্ধান প্রয়োজন।বার বার স্থানীয় প্রশাসন বলার পরও এদের কাছ থেকে কাজ আদায় করতে পারে না।কতৃপক্ষও তাদেরকে কার্যাদেশ বাতিল তো দূরের কথা বিপক্ষে টু শব্দ করতে পারে না। এরা কারা? এদের খুঁটির জোর কোথায়?এদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা এখন জনদাবী।
যথাযথ পরিকল্পনার অভাব,দায়সাড়া কাজ,দূর্বৃত্তায়নের অশুভ থাবা আর জবাবদিহিতা না থাকায় মানুষ আজ প্রতারিত,দুর্দশাগ্রস্ত। কেন সময়মতো কাজ হলো না, কারা নেপথ্যে থেকে মানুষের স্বাভাবিক জীবনকে গভীর অনিশ্চয়তার মুখে ঠেলে দিলো তার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের কাছে তদন্ত সাপেক্ষে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। হাওর রক্ষা কাজের অবাস্তব,জগাখিচুড়ি ও সিন্ডিকেট তৈরীর ব্যর্থ নীতিমালা সংশোধন করে টেকসই উন্নয়ন কৌশল নির্ধারন করা সময়ের দাবি।কৃষিবান্ধব সরকারের অর্জন যারা ম্লান করছে তাদের চিহ্নিত করে হাওর অঞ্চলের টেকসই উন্নয়নের জন্য হাওর উন্নয়ন বোর্ডকে কার্যকর অথবা হাওর অঞ্চলের জীব বৈচিত্র,জীবনাচার ও জীবনধারা স্বাভাবিক ও গতিশীল করার জন্য স্বতন্ত্র মন্ত্রনালয়ের কথাও ভাবা যেতে পারে। কেন বছরের পর বছর শুধু বাঁধ নির্মানের সনাতনী ব্যবস্থায় পাউবো ব্যস্থ থাকে, সেই রহস্য উদঘাটন প্রয়োজন।নদী খনন,খাল খনন করে যেখানে হাওর রক্ষা করার ব্যবস্থা নেওয়ার স্বীকৃত সূযোগ আছে সেখানে কাদের স্বার্থে ভাঙ্গা বন্ধকরনের নামে লুটপাঠের মহোৎসব হয় তা অনুসন্ধান প্রয়োজন।ফেব্রুয়ারিতে যেখানে কাজ শেষ হওয়ার কথা সেখানে এবার মার্চ মাসে কোথাও কোথাও কাজই শুরু হয় নি।এই অসঙ্গতির জবাব কে দেবে?আজকে হাওরাঞ্চলে কান্নার রোল।মানুষের জীবন ধারনের একমাত্র ফসল হারিয়ে সকলি প্রায় দিশেহারা। কৃষকের স্বপ্ন স্বাধ যারা ধ্বংস করে দিলো।বেঁচে থাকার বাসনা কে যারা বিপন্ন করলো তারা কি ধরাছোঁয়ার বাইরেই থাকবে,এই প্রশ্ন আজ সচেতন মহলে।মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে,বিক্ষোভ দানা বাঁধলে।যতো বড়ো শক্তিধর আর আইনি সুরক্ষিত ব্যবস্থা থাকে না কেন পরাজয় অবশ্যম্ভাবী।সেই বার্তা কি সংশ্লিষ্টদের জানা নেই।জনগনকে বিপক্ষে ঠেলে দিয়ে জনসন্তুষ্টি অর্জনের ব্যর্থ চেষ্টা অশনিসংকেত নিয়ে আসবে।মানুষের বিপক্ষে দাঁড়ালে,মানুষ আত্মপক্ষ সমর্থন করবে।তখন কোনো পক্ষই আর পার পাবেন না।অতএব,সাধু সাবধান।জীবন বাঁচান।হাওরের ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের ঘুঁরে দাঁড়ানোর প্রনোদনা দিতে হবে।বিকল্প আয়ের ব্যবস্থা করে হাওর দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ জনগোষ্ঠীকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।কৃষকের কল্যানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গিকার যেনো অসৎ আমলা,অসাধু রাজনীতিবিদ আর সূযোগ সন্ধানী জনপ্রতিনিধিদের কাছে মার না খায়।মানুষ বেঁচে থাকুক,কৃষক ঠিকে থাকুক। হাওর জেগে উঠুক,মানবিক বাতাসে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24