শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:৪৭ পূর্বাহ্ন

ওসির বিরুদ্ধে আদালতে চাঁদাবাজির অভিযোগ দায়ের

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬
  • ২৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)সহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী ঢাকার একটি আদালতে নালিশি মামলায় অভিযোগ এনেছেন। আদালত আইনজীবী কুতুব উদ্দিন আহমেদের জবানবন্দি রেকর্ড করে আদেশের জন্য অপেক্ষমাণ রেখেছেন।

যাঁদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ আনা হয়েছে, তাঁরা হলেন মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামাল উদ্দিন মীর, উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নাজীব, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মো. খোরশেদ, মো. মামুন হোসেন ও মো. সোহেল। বাদীর আইনজীবী মাহবুব হাসান রানা প্রথম আলোকে বলেন, চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে ঢাকার মহানগর হাকিম খোরশেদ আলমের আদালতে কুতুব উদ্দিন আহমেদ মামলা করেছেন। আদালত তাঁর জবানবন্দি রেকর্ড করেছেন। এখনো আদেশ দেননি।
নালিশি মামলার এই আরজিতে বাদী অভিযোগ করেছেন, মোহাম্মদপুরের ৩৪৯/এ জাফরাবাদ (সংকর) বাসাটি তাঁর নিজের। ৯ অক্টোবর বিকেলে বাসার ঢুকতে গেলে আসামি মামুন হোসেন ও মো. সোহেল তাঁকে বাধা দেন। তাঁরা নিজেদের মোহাম্মদপুর থানার লোক পরিচয় দিয়ে বলেন, ওসির সঙ্গে কথা না বলে কুতুব উদ্দিনকে বাসায় ঢুকতে দেওয়া সম্ভব না। এরপর বাদী মোহাম্মদপুর থানার ওসিকে ফোন দিলে ২০ মিনিটের মধ্যে এসআই রাজীব ও খোরশেদ ঘটনাস্থলে আসেন। পরে মোহাম্মদপুর থানার ওসি ও দুই পুলিশ কর্মকর্তা তাঁকে ডেকে নেন এবং তাঁর কাছে ৪৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় তাঁকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানো হয়। পরে রাত আটটায় বাদী দুই লাখ টাকা ওসির কাছে জমা দেন। সাদা কাগজেও তাঁর জোরপূর্বক স্বাক্ষর নেওয়া হয়। এ ঘটনা কাউকে বললে তাঁকে মিথ্যা মামলা দিয়ে রিমান্ডে এনে ক্রসফায়ারের হুমকি দেওয়া হয়।
এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামাল উদ্দিন জানান, আইনজীবী কুতুব উদ্দিন আহমেদ যে অভিযোগ এনেছেন, তা পুরোপুরি মিথ্যা। বরং ৯ অক্টোবর কুতুব উদ্দিন আহমেদ ওই বাড়ি জোর করে দখল করতে আসেন। এবং কয়েকজনকে মারধর করেন। এ ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলাও হয়েছে। সেই মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে।
কুতুব উদ্দিন আহমেদ তাঁর আরজিতে বলেছেন, ওই বাসার আসল মালিক ছিলেন তাঁর মা জোবেদা আহমেদ। জোবেদা আহমেদ দখল থাকা অবস্থায় ২০০৮ সালের ৮ মার্চ কুতুব উদ্দিন আহমেদের নামে হেবা দলিল করে দেন। এই আটতলা ভবন সংস্কারের জন্য তিনি ভাড়া বাসায় থাকেন। সংস্কারকাজ শেষ হওয়ায় ৯ অক্টোবর তিনি মালামাল নিয়ে বাসায় উঠতে যান। সুত্র প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24