বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৪৭ অপরাহ্ন

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজরিত কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের ভিড় বেড়েছে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ১৫২ Time View

পঙ্কজ দে, কলকাতা থেকে ফিরে:
বাংলাদেশের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড় বেড়েছে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজরিত কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাংলাদেশের অনেক শিশু শিক্ষার্থীকেও অভিভাবকরা নিয়ে গেছেন রবি ঠাকুরের স্মৃতি দেখানোর জন্য। সোমবার ও আজ মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে রবীন্দ্র ভারতীতে দর্শনার্থীদের জন্য অনুষ্ঠানেরও আয়োজন রয়েছে। স্থানীয়রা বলেছেন,‘গত কয়েকদিনে সবচেয়ে বেশি দর্শনার্থী দেখেছেন তারা জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি ও রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে।
জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি
জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি তৎকালীন কলকাতার বিখ্যাত ঠাকুর পরিবারদের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি কলকাতার জোড়াসাঁকোতে অবস্থিত ঠাকুর পরিবারের প্রাচীন বাড়ি। বর্তমানে এই বাড়িটি রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই বাড়িতেই বিশ্বকবি এবং প্রথম বাঙালি নোবেলজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জন্মগ্রহণ করেছিলেন। কবির শৈশবকাল এই বাড়িতেই কাটে এবং ১৯৪১ সালের ৭ই আগস্ট তিনি মৃত্যুবরণ করেন। আঠারো শতকে প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর যিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দাদা, তিনি এই বাড়িটি নির্মাণ করেন। এই বাড়িটির মূল ভবনে ঠাকুর পরিবারের বিভিন্ন সদস্যদের ব্যবহৃত কামড়া, কবিগুরুর জীবদ্দশার বিভিন্ন ছবি, আসবাবপত্র, ব্যবহৃত সামগ্রী নিয়ে একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠা হয়েছে। সারাদিনের ঘুরাঘুরির জন্যে একটি আকর্ষণীয় স্থান এই জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি।
রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সূচনা
রবীন্দ্রনাথের মৃত্যুর পর থেকেই ঠাকুর পরিবারের সদস্যরা একে একে জোড়াসাঁকোর বাস তুলে অন্যত্র চলে যান। বাড়ির দক্ষিণ-পূর্ব অংশের মালিকানা থেকে যায় গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর
ও অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের হাতে। কালক্রমে দেশভাগ ও স্বাধীনতা অর্জনের ডামাডোলে বাড়ির একটি বড়ো অংশই চলে যায় বহিরাগতদের হাতে। উনিশশো পঞ্চাশের দশকের গোড়ার দিকে রবীন্দ্রভারতী সোসাইটির তরফে সুরেন্দ্রনাথ মজুমদার পনেরো লক্ষ টাকা দিয়ে বাড়িটি কিনে নেন। পরে বাড়ির তদনীন্তন মালিক হাইকোর্টে মামলা করে আরও তিন লক্ষ টাকা দাবি আদায় করেন। এর ফলে সুরেশচন্দ্র বেশ অর্থসংকটে পড়েন। তিনি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছে সাহায্যের জন্য আবেদন জানান। এরপর পশ্চিমবঙ্গ সরকার ও রবীন্দ্রভারতী সোসাইটির মধ্যে একটি চুক্তি সাক্ষরিত হয়। সরকারি অনুদানের শর্ত হিসেবে ঠাকুরবাড়িতে সংগীত, নৃত্য ও নাটক শিক্ষার একটি অ্যাকাডেমি স্থাপনের প্রস্তাব রাখা হয়। এরপর ১৯৫৫ সালে স্থাপিত হয় পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য নৃত্য, নাটক, সংগীত ও চারুকলা অ্যাকাডেমি। উদয়শংকর, অহীন্দ্র চৌধুরী ও রমেশ বন্দ্যোপাধ্যায় যথাক্রমে নৃত্য, নাটক ও সংগীতের বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরে অবশ্য উদয়শংকর তাঁর পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন। ১৯৫৯ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকার আসন্ন রবীন্দ্র-জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়িতে রবীন্দ্রনাথের নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেন। রবীন্দ্রভারতী সোসাইটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পশ্চাতে সরকারের মূল উদ্দেশ্যটির সঙ্গে নিজেদের উদ্দেশ্যের সাদৃশ্য লক্ষ্য করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে মিশে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কবি-পুত্র রথীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে আলোচনার পর পশ্চিমবঙ্গ সরকার সমগ্র ঠাকুরবাড়ির দখল নেন। বিচিত্রা ভবন থেকে সেই সময় বিশ্বভারতী গ্রন্থনবিভাগের কাজকর্ম চলত। বিশ্বভারতী বিচিত্রা ভবন খালি করে দেয়। জোড়াসাঁকোর পাশাপাশি বরাহনগর অঞ্চলে বিটি রোডের ধারে ১৮২০-এর দশকে নির্মিত মরকত কুঞ্জটিকেও বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি শিক্ষাপ্রাঙ্গণে পরিণত করা হয়। পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় পাস হওয়া রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় আইন রাষ্ট্রপতির সম্মতি পায় ১৯৬২ সালের ১০ জানুয়ারি। সেই বছরই পঁচিশে বৈশাখ যাত্রা শুরু হয় রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের।
রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম25488961_10211377690984129_
কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম “জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ী ’’ হিসাবে পরিচিত যা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাড়ি ছিল। এটি চিত্তরঞ্জন এভিনিউ-এ গিরিশ পার্কের কাছে অবস্থিত। অষ্টাদশ শতকে প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রপিতামহ) এটির নির্মাণ করেছিলেন। এর পরিসীমার মধ্যে বহু ভবন আছে। কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম, বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ যা ঠাকুরবংশের বিশেষত অবনীন্দ্রনাথ এবং রবীন্দ্রনাথের বিভিন্ন কার্যকলাপের সংগ্রহের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ১৯৬১ সালে রাজ্যে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শতবার্ষিকী উদযাপনের সময় তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী ড. বিধানচন্দ্র রায় আইনসঙ্গতভাবে এই বাড়ি অধিগ্রহণ করেন। অবশেষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী, প-িত জওহরলাল নেহেরুর দ্বারা ৮-ই মে আনুষ্ঠানিক ভাবে এই বাড়িতে রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়ামের প্রতিষ্ঠা হয়। প্রারম্ভে কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম একটি বৃহৎ এলাকা এবং জাতীয় গ্রন্থাগার দ্বারা প্রদান করা রবীন্দ্রনাথের ৪০-টি চিত্রাঙ্কন ও ছবি নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়। এই মিউজিয়াম ১৯৬২ সালে স্থাপিত রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল, যা সাহিত্য এবং সম্পাদন শিল্পকলার বিভিন্ন ক্ষেত্রে শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর প্রচারের জন্য স্থাপিত হয়েছিল। প্রতি বছর কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়ামে পয়লা বৈশাখ, ২৫ শে বৈশাখ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মদিন, ২২ শে শ্রাবণ, কবির মৃত্যুদিন, বিশ্ব বিখ্যাত কবিদের জন্মবার্ষিকী. উদযাপিত হয়।
কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়ামে ১৯ শতকের প্রধান ব্যক্তিত্বদের তথা ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর এবং দ্বারকানাথ ঠাকুরের বই, প্রকৃত চিত্রাঙ্কন, পা-ুলিপি, ছবি ইত্যাদির এক অসামান্য সংগ্রহ আছে। কলকাতার রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়ামে আপনি আলোকসজ্জা এবং শব্দ প্রদর্শন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে, এই বাড়িতে ঠাকুর পরিবারের আগমন, তাদের বাংলার নবজাগরণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা এবং কবির ঘটনাবহুল জীবন নিয়ে রচিত ডকুমেন্টারি উপভোগ করতে পারবেন।
এছাড়াও রবীন্দ্র ভারতীর প্রবেশদ্বারের বাম পাশেই রথীন্দ্রমঞ্চ, সামনে সোনার তরী, সঙ্গীত ভবন, মহর্ষি ভবন; ভিতরে ঢুকলেই পর্যটকদের চোখে পড়বে।
রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়ামে যুক্তরাষ্ট্র কর্নার, জাপান গ্যালারী, চায়নীজ স্টাডিজ, আর্টিষ্ট স্টুডিওসহ নানা গ্যালারী রয়েছে। সর্বোপরি বাংলাদেশ গ্যালারীতে কবিগুরুর বাংলাদেশের নানা স্মৃতি রয়েছে।
১৮৪৬ সালে রবি ঠাকুর বারানসী যাবার জন্য ‘পদ্মাবোটে’ রওয়ানা দেন। পদ্মা, ইছামতি, আত্রাই, নাগর নদীতে পদ্মাবোটে ঘুরে বেড়িয়েছেন রবীন্দ্রনাথ। রচনা করেছেন অসংখ্য মূল্যবান সাহিত্য সম্ভার। কবির সার্ধশত জন্মবার্ষিকীতে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে চমৎকার কাঠের তৈরি দৃষ্টিনন্দন পদ্মাবোট মিউজিয়ামে উপহার দেওয়া হয়েছিল। এটি সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে এই কক্ষের।
জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়িতে বিলিয়ার্ড রুম, ভিক্টোরিয়া রুম, মিটিং রুম, পেন্টিং রুম, ড্যান্স রুম ও ঠাকুর দালানে এই পরিবারের পুরোনো অনেক প্রদর্শনীও পর্যটকদের দেখার মতোই।
গত শুক্রবার দিনভর রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম ঘুরে দেখার সময় ঢাকার ডেমরার বাবু, মৌলভীবাজারের রাজনগরের রাহাদ খান, টাঙ্গাইলের রফিকুল ইসলাম, দিল্লী থেকে আসা কিং ভট্টাচার্য, কলকাতার বাঘাযতিনের ডোনা চন্দ, প্রিয়াংকা রায়, স্বপ্না মন্ডল, মেদিনিপুরের সৌমেন জানা ও সোনালী জানার সঙ্গে পরিচয় হলো। এঁদের কেউ কেউ বললেন,‘দীর্ঘ দিনের পরিকল্পনায় রবীন্দ্র ভারতী মিউজিয়াম আসা। ঘুরে দেখার সময় মনে হয়েছে একদিনের দেখায় এখানকার অনেক কিছুই জানা হবে না।’
জোড়াসাঁকোর ঠাকুর বাড়ির প্রবেশদ্বারের দোকানী অভিষেক গুপ্তা ও দিব্যদৃষ্টি সেঞ্জে বললেন,‘এই মৌসুমেই এখানে পর্যটক বেশি আসেন। বাংলাদেশী পর্যটকেরা আগের চেয়ে এখন বেশি যাচ্ছেন।’ তাঁদের মতে বাংলাদেশ থেকে ভারতের ভিসা প্রাপ্তি সহজ হওয়ায় এবং যাতায়াত ব্যবস্থাও আগের চেয়ে ভাল হওয়ায়, বিশেষ করে মৈত্রি এক্সপ্রেস এখন সরাসরি আসায়; বাংলাদেশি পর্যটক বেড়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24