সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

কুরআনে নারী পুরুষ উভয়কেই দৃষ্টি অবনত রাখার নির্দেশ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪৫ Time View

মাহমুদুল হক জালীস : ইসলাম মানবজাতির প্রাত্যহিক আদর্শ জীবনব্যবস্থা। মানুষের চলন-বলন থেকে শুরু করে জীবনের সকল ক্ষেত্রে ইসলামের অনিন্দ্য সুন্দর বিধিবিধান ও আদর্শ রয়েছে। যা পালনে মানুষের ইহকাল এবং পরকাল শান্তিতে কাটবে। সমাজে ছড়াবে না অশান্তির বীজ। পথেঘাটে হয়রানি হবে না মা বোন। ইজ্জত-আবরু হরণ হবে না মস্তিষ্কবিকৃত আত্মভোলা মানুষের হাতে। নির্দিধায় চলতে পারবে প্রত্যেক নর নারী। এজন্য প্রয়োজন নারীদের পরপুরুষের সামনে চলাফেরার সময় পর্দাবৃত হয়ে বের হওয়া এবং পুরুষদের পরনারীদের দিকে দৃষ্টিপাত করা থেকে বিরত থাকা।

কেননা আল্লাহ তায়ালা কুরআন শরীফে ইরশাদ করেন, আপনি ঈমানদার নারীদের বলুন, তারা যেন দৃষ্টি নত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গকে হেফাজত করে এবং তাদেরকে যা প্রকাশ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে তাছাড়া অন্য কিছুর সৌন্দর্য প্রদর্শন না করে এবং যেন তাদের মাথার ওড়না বক্ষদেশে ফেলে রাখে এবং তারা যেন তাদের স্বামী, পিতা, শ্বশুর, পুত্র, স্বামীর পুত্র, ভ্রাতা, ভ্রাতুস্পুত্র, ভগ্নিপুত্র, স্ত্রীলোক অধিকারভ‚ক্ত বাঁদী, যৌনকামনামুক্ত পুরুষ ও বালক, যারা নারীদের গোপন অঙ্গ সম্পর্কে অজ্ঞ, তাদের ব্যতীত কারো কাছে তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ না করে, তারা যেন তাদের গোপন সাজ-সজ্জা প্রকাশ করার জন্য জোরে পদচারণা না করে।

হে মুমিনগণ, তোমরা সবাই আল্লাহর কাছে তওবা করো, যাতে তোমরা সফলকাম হও। (সূরা আন-নূর: ৩২) সূরা নূরের একত্রিশ নং আয়াতে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন মুমিন পুরুষদের দৃষ্টি সংযত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন এবং বত্রিশ নং আয়াতে নারীদের প্রতি অর্থাৎ ঈমানদার নারীদের দৃষ্টি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি মুমিন পুরুষদেরও দৃষ্টি অবনমিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। মুফাস্সিরগণ দৃষ্টি নত রাখার অর্থ করেছেন, দৃষ্টিকে এমন বস্তু থেকে ফিরিয়ে নেয়া যে বস্তু দেখা শরীয়তে নিষিদ্ধ ও অবৈধ। এমনিভাবে ইবনে কাসীর এবং ইবনে হাইয়্যান (রহ.) এর তফসীর করেছেন বেগানা নারীর প্রতি খারাপ নিয়তে দেখা হারাম এবং বিনা নিয়তে দেখা মাকরুহ এ বিধানটি এর অন্তর্ভূক্ত। কোন নারী অথবা পুরুষের গোপনীয় অঙ্গের প্রতি দেখাও এর মধ্যে অন্তর্ভূক্ত হবে। এছাড়া কারো গোপন তথ্য জানার জন্য তার গৃহে উঁকি মেরে দেখা এবং যেসব কাজে দৃষ্টি ব্যবহার করা শরীয়ত নিষিদ্ধ করেছে, সেগুলো এর অন্তর্ভুক্ত। যৌনাঙ্গ সংযত রাখার অর্থ এই যে, কুপ্রবৃত্তি চরিতার্থ করার যত পন্থা আছে, সবগুলো থেকে যৌনাঙ্গকে সংযত রাখা।

সহীহ মুসলিম শরীফে হযরত জারীর ইবনে আব্দুল্লাহ বাজালী (রাহ.) থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন যে, ইচ্ছা ছাড়াই হঠাৎ কোন বেগানা নারীর প্রতি দৃষ্টি পতিত হলে সেদিক থেকে দৃষ্টি ফিরিয়ে নাও। (ইবনে কাসীর) হযরত আলী (রা.)থেকে বর্ণিত- প্রথম দৃষ্টি মাফ, এবং দ্বিতীয় দৃষ্টি গোনাহ। এর উদ্দেশ্যও হচ্ছে, প্রথম দৃষ্টিপাত অকস্মাৎ ও অনিচ্ছাকৃত হওয়ার কারণে ক্ষমার্হ। নতুবা ইচ্ছাকৃতভাবে প্রথম দৃষ্টিপাতও ক্ষমার যোগ্য নয়। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলার আমাদেরকে দৃষ্টি হেফাজত করার তৌফিক দান করুক। আমীন। লেখক : শিক্ষার্থী, জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া, মুহাম্মদপুর, ঢাকা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24