বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:১৪ অপরাহ্ন

কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি জগন্নাথপুরে বন্যা পরিস্থিতি ফের অবনতি

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৫
  • ৪২ Time View

শংকর রায় ও আজজিুর রহমান :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা দিয়ে বয়ে যাওয়া কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রভাহিত হওয়ায় উপজেলার রানীগঞ্জ,পাইলগাঁও ও আশারকান্দি ইউনিয়নের ৫০ হাজার মানুষ আবারও গৃহবন্দি হয়ে পড়েছেন। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ৫০০ হেক্টর আউশ, আমন ধান ও বীজতলা।এছাড়াও বন্যার পানিতে তিনটি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় যাতায়াতে চরম দুর্ভোগের পাশাপাশি বিদ্যালয়গুলোর ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি কমে গেছে। গো-খাদ্য ও বিশুদ্ব পানির সংকট দেখা দেওয়ায় নানা রোগের প্রাদুরভাব দেখা দিয়েছে। ফেচী- জগন্নাথপুর রাস্তার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ায় উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে।রানীগঞ্জ ও রৌয়াইল বাজারে হাটু পানি থাকায় ক্রেতা বিক্রেতারা নোকা যোগে দোকান ঘরে প্রবেশ করতে হচ্ছে। রানীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী ধনেশ চন্দ্র রায় জানান, কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো রানীগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন বলে তিনি দাবী করেন।
রৌয়াইল গ্রামের বাসিন্দা ইউপি সদস্য নাজমুল হক বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যা কবলিত হওয়ার পাশাপাশি আউশ আমনের বীজতলা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।
রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজলুল হক বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি আবারও বৃদ্ধি পাওয়ায় রানীগঞ্জ বাজার বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছেন। ব্যবসা বাণ্যিজের পাশাপাশি ইউনিয়ন পরিষদের যাতায়াতেও লোকজন ভোগান্তিতে পড়েছেন।
রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানিবৃদ্ধি পাওয়ায় শিক্ষাথীদেরকে হাঁটু পানির মধ্যে কষ্ট করে হেঁটে বিদ্যালয়ে আসতে হচ্ছে। যে কারণে শিক্ষাথীদের উপস্থিতি কিছুটা কমে গেছে।
পাইলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আপ্তাব উদ্দিন বলেন, ৫০টি গ্রাম বন্যাকবলিত হয়েছেন। এপরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন করতে হবে।
আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব খান বলেন, কুশিয়ারা নদী ব্যাষ্টিত ইউনিয়নের কমপক্ষে ১০টি গ্রাম বণ্যাকবলিত হয়ে পড়েছেন। বেশকয়েকটি রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। তন্মেধ্যে দাওরাই পাটকুরা রাস্তার ওপরদিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। নদী ভাঙ্গনে ইউনিয়নের কয়েকটি স্থানে ঘরবাড়ি ভাঙ্গনের কবলে পড়েছেন। লোকজন ঘরবাড়ি ছেড়ে উচু জায়গায় এসে আশ্রয় নিচ্ছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে আবারও কিছু গ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে তাই সরেজমিনে বন্যা কবলিত এলাকায় রয়েছি। তিনি বলেন, কিছুদিন আগে এসব এলাকায় মন্ত্রী এম এ মান্নান এর নির্দেশে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোন আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়নি বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24