বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৫২ পূর্বাহ্ন

কৃতজ্ঞতা জাতির পিতার প্রতি-এম,এ মান্নান

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৭
  • ২২ Time View

এমএ মান্নান এমপি
আমি কৈশোর-তারুণ্যে, ঐ প্রজন্মের অন্য সকল বাঙালির মত বঙ্গবন্ধু’র প্রভাব বলয়েই বেড়ে উঠেছি। আমি পাকিস্তানের সারগোদা পাবলিক স্কুলে ১৯৬২ সাল পর্যন্ত ‘ও’ লেভেল পড়াশুনা করেছি। স্কুলে পাকিস্তানিদের বৈষম্যমূলক আচরণে আমার মধ্যে চরম অপমানবোধ ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ঐ সময়ের শত দুঃখ-কষ্টের মধ্যেও শেখ মুজিব ও আওয়ামী লীগের মধ্যে সান্তনা ও প্রেরণা খোঁজতাম।
পাকিস্তান থেকে দেশে ফিরে আসার পর ষাটের দশকের পুরোটা সময়ই ঢাকায় আয়-রোজগারের চেষ্টায় ব্যস্ত ছিলাম। এর মধ্যেও দূর থেকে বঙ্গবন্ধুকে দেখতাম আর উৎসাহ খুঁজে পেতাম। নৈশ কলেজে পড়াশুনা করতাম ও নানা ধরণের কাজ করতাম। ষাটের দশক আমার এভাবেই কাটে। এই দশকের শেষ প্রান্তে দেশব্যাপী নিয়মিত অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রথম শ্রেণির চাকুরির জন্য নির্বাচিত হই। ঐ সময় ছয় দফা আন্দোলন, ৬৯’ এর গণ-আন্দোলন এবং আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা আমাদের আন্দোলিত করত ও সারাক্ষণ উত্তেজিত রাখতো। যদিও আমি আন্দোলনের সাথে সাংগঠনিকভাবে সরাসরি সম্পৃক্ত ছিলাম না। কিন্তু বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের প্রতি পুরোপুরি অনুগত ছিলাম এবং নিজেকে তৃণমূল পর্যায়ের একজন কর্মীর ভূমিকায় দেখে আনন্দবোধ করতাম।
স্বাধীনতার পর ১৯৭২ এর জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে কোন এক সন্ধ্যায় স্বাধীন বাংলাদেশে উপরে উল্লিখিত সরকারি চাকুরি রক্ষার স্বার্থে বর্তমান মাননীয় স্পীকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীর পিতা জনাব রফিক উল্লাহ্ চৌধুরীর (যিনি বঙ্গবন্ধুর অফিসে সাচিবিক দায়িত্ব পালন করতেন) সহায়তায় আমি এবং অন্য আরেকজন চাকুরী প্রত্যাশী রমনা পার্কের কাছে তখনকার গণভবনে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করি। কাঠের গোল ঘরের দোতলায় বঙ্গবন্ধুর যখন সাক্ষাৎ পাই, তখন আনন্দে, কৃতজ্ঞতায় শরীর কাঁপছিল আমাদের। রাত তখন বারোটার কাছাকাছি, তিনি পাইপ হাতে কামরায় পায়চারী করছিলেন। অদূরে দাঁড়িয়ে ছিলেন তাঁর রাজনৈতিক সচিব বর্তমান বাণিজ্যমন্ত্রী জনাব তোফায়েল আহমদ ও আওয়ামী লীগের অন্যতম জ্যেষ্ঠ নেতা জনাব নুরুল হক। বঙ্গবন্ধু আমার দিকে তাকিয়ে তার চিরাচরিত দরাজ কণ্ঠে বললেন, ‘কি চাও তোমরা’। আমি তার কাছে এগিয়ে গিয়ে আমরা যে চাকুরি পেয়েছিলাম সেটি ফিরে পাবার জন্য তার সদয় বিবেচনা প্রার্থনা করি। তিনি গভীর মনোযোগের সঙ্গে আমার কথা শুনলেন এবং দাঁড়ানো অবস্থায়ই তাঁর স্বভাবসুলভ দৃঢ় কণ্ঠে বললেন, ‘হ্যাঁ, তোমাদেরকেই আমাদের দরকার। তোমরা নিচে গিয়ে রফিক উল্লাহ চৌধুরীর সঙ্গে কথা বলো, সেই ব্যবস্থা করবে।’ পরবর্তীতে অনেক আমলাতান্ত্রিক চড়াই উৎড়াই পার হয়ে ১৯৭৪ সনের জুলাই মাসের ২৩ তারিখে আমিসহ ৭০ জনের পুরো ব্যাচ যার যার নির্ধারিত চাকুরিতে যোগদান করি। আজ কৃতজ্ঞতার সঙ্গে বার বার বলছি বঙ্গবন্ধুর জন্যই আমার চাকুরি হয়েছিল এবং সেই ধারাবাহিকতায়ই এখন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। আমার এই ঋণ শোধ হবার নয়।
এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে এর আগেও আমার আরেকবার স্বল্প সময়ের জন্য দেখা হয়েছিল। ১৯৬৯/৭০-এর সময়ে আমি ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য সংস্থা কেয়ারে কাজ করতাম। ’৬৯-এর বন্যার সময় কেয়ার কর্তৃপক্ষ আমাকে রিলিফ বিষয়ে খোঁজ-খবর নেবার জন্য ময়মনসিংহে পাঠায়। আমি সংস্থার গাড়িতে টাঙ্গাইল হয়ে ময়মনসিংহে যাচ্ছিলাম। বেলা তখন দুইটা প্রায়। টাঙ্গাইলের পাকুল্লা নামক স্থানে মহাসড়কে জটলা দেখি। ঐ সময় ‘শেখ মুজিব’ তাঁর আওয়ামী লীগ সতীর্থদের নিয়ে সারাদেশ চষে বেড়াচ্ছেন, বাঙালিদের সংগঠিত করছেন, এটা আমি জানতাম। অকুতোভয় সেই স্বপ্নের নেতাকে কাছে থেকে দেখার জন্য আমি এগিয়ে যাই। তাঁর পাশে ছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদসহ আরো অনেকে। তাঁরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে ঐ অঞ্চলের একটি পরিচিত দোকানের সন্দেশ খাচ্ছিলেন। সম্ভবত আমার চকচকে নতুন জীপ গাড়ী দেখে কৌতুহল বশত: তিনি জিজ্ঞেস করেন তুমি কে? আমি কাছে গিয়ে পরিচয় দিলাম। ত্রাণকর্মী হিসেবে আমার ময়মনসিংহে যাওয়ার কথা তাঁকে জানালাম। তিনি উচ্চকণ্ঠে বললেন, ‘ভালো ভালো’ এটি ভালো কাজ, এ কাজ করো। এখানে বলা প্রয়োজন তিনি তাঁর চেয়ে বয়সে ছোট সকল বাঙালিকে দেখা মাত্র তুমি সম্বোধন করতেন, স্বজাতির প্রতি তাঁর স্নেহ, ভালবাসা ও ঐক্যের এ ছিল এক জীবন্ত উদাহরণ।
আজ বাঙালি জাতির এই মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীতে বড় বেশি মনে পড়ছে তাঁকে। আমার মতো একজন সাধারণ পরিবারের সন্তানের প্রথম শ্রেণির সরকারি চাকুরি রক্ষা সম্ভব হয়েছিল জাতির জনকের আনুকূল্য ও নির্দেশে। তাঁর স্মৃতির প্রতি আমার অশেষ শ্রদ্ধা। তিনি ও তাঁর পরিবারসহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।
লেখক : অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী, বাংলাদেশ সরকার, সংসদ সদস্য-সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24