মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৩৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে দু’পক্ষের বিরোধে বলীর শিকার শিশু সাব্বিরের খুনীরা এখনও ধরা পড়েনি জগন্নাথপুরে ৬০ কৃষক কৃষাণীদের প্রশিক্ষণ প্রদান জগন্নাথপুরে সনাক্তকারী ‘বহিরাগতদের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন প্রাণের চেয়েও প্রিয় মহানবী (সা.) সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান জগন্নাথপুর আ,লীগের সন্মেলন কে স্বাগত জানিয়ে সৈয়দপুর বাজারে মিছিল জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন ১ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে ফের বুধবার থেকে ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং

গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
  • Update Time : সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ১২০ Time View

ভারতে বাঙালিরা, হিন্দু-মুসলমান নির্বিশেষে, মানসিকভাবে অসাম্প্রদায়িক। অন্তত তেমনটাই ধারণা ছিলো। কিন্তু গত ১০ বছরে এই ধারণাটা একটু একটু করে ভেঙে পড়েছে। হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক দল যখন নিজেদের ঘাঁটি গড়তে ব্যস্ত, তখনই মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে মুসলিম বিদ্বেষ। গত জুনে পিটিয়ে হত্যা করা হয় মুসলিম ধর্মালম্বী তবরেজ আনসারিকে। আর এবার তবরেজের পর ফের নৃশংস গণপিটুনির সাক্ষী হলো ঝাড়খন্ড। গোমাংস বিক্রেতা সন্দেহে পিটিয়ে খুন করা হলো একজনকে। বেদম মারে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন আরো দু’জন।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, ঝাড়খন্ডের খুন্তি জেলায় এই ঘটনাটি ঘটে। হোয়াটসঅ্যাপে গোমাংস বিক্রির খবর ছড়ানোর পর প্রতিবেশী জালটান্ডা সুয়ারি গ্রামে তিনজনের উপর চড়াও হয় ১২ থেকে ১৫ জনের একটি দল। উত্তেজিত গ্রামবাসীদের দেখে পালানোর চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হন ওই তিনজন। তারা জনতার হাতে ধরা পড়ে যান। এরপরই শুরু হয় বেধড়ক মার। গণপিটুনিতে মৃত্যু হয় কালান্তুস বারলা নামে এক যুবকের। আহতরা হলেন ফাগু কাচ্চাপন্দ ও ফিলিপ হাহোরো। তারা তিনজনই আদিবাসী খ্রিস্টান।

স্থানীয় ডিআইজি জানান, জালটান্ডা সুয়ারি গ্রামে কী ঘটেছিল তা এখনো স্পষ্ট নয়, পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। চলছে জিজ্ঞাসাবাদ।

গত তিন মাসে এই নিয়ে ঝাড়খণ্ডে দুটি গণপিটুনির ঘটনা ঘটল। জুনে পিটিয়ে হত্যা করা হয় তবরেজ আনসারিকে। ১৭ জুন ঝাড়খন্ডের খরসওয়ান জেলায় তবরেজ আনসারিকে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে, চোর সন্দেহে পেটানো হয়েছিল। তবরেজকে গণপিটুনির সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঝড় তোলে। ভিডিওতে দেখা যায়, কিছু অতিউত্‍‌সাহী নৃশংস ভাবে তাকে পেটাতে পেটাতে জোর করে ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বাধ্য করছে। ঘটনার পাঁচ দিন পর, ২২ জুন পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন মারা যান ওই যুবক।

সৌজন্যে কালের কণ্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24