বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
শীর্তাতদের পাশে যুক্তরাজ্য আ.লীগের সেক্রেটারির সৈয়দ ফারুক রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারের এখতিয়ার রয়েছে জাতিসংঘের আদালতের নওগাঁ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত জগন্নাথপুরে সাবেক মেম্বার সমাজসেবী ছুরত মিয়ার দাফন সম্পন্ন বাসুদেব মন্দিরে তারকব্রহ্ম মহানামযজ্ঞ উপলক্ষে সন্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে সরকারি ভূমি থেকে ২৭টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ নেওয়ার খানের পিতার মৃত্যুতে জগন্নাথপুর বিএনপির শোক প্রকাশ জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ চিকিৎসক দ্বারা দুইদিন ব্যাপি ফ্রি ডেন্টাল মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে আটঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

গরু নাই, তাই বাবা-ছেলে জগন্নাথপুরে মই আর লাঙ্গল টানছে

আলী আহমদ::
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৯৩১ Time View
এক কৃষক তাঁর ছেলেকে নিয়ে হালচাষের জন্য মই টানছেন। এ সময় আরেক কৃষক এগিয়ে এসে তাদেরকে লাঙ্গল টানতে সহযোগিতা করেন। পিছনে একজন কৃষক লাঙ্গল ধরছেন আর সামনে কাঁধে জোয়াল এর বদলে লাঠি নিয়ে দুইজন কৃষক ক্ষেতে লাঙ্গল টানছেন।
গতকাল সোমবার দুপুর ১টার দিকে জগন্নাথপুরের দ্বিতীয় বৃহৎ মইযার হাওরে এমন দৃশ্য দেখা যায়।
কথা  হয় বোরো ক্ষেতে গরুর বদলে মই টানতে থাকা জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ভবানিপুরের কৃষক শানু মিয়ার সঙ্গে। তিনি বলেন, তিনি একজন বর্গা চাষী। বর্গা নিয়ে জমি চাষাবাদ করে সাত সদস্য পরিবারের সংসারের সারা বছরের যোগান দিতে হয়। গরু দিয়েই ক্ষেতে মই দিতে হয়। কিন্তু আমরা গরীব মানুষ। গরু কোথায় পাব। তাই নিজের ছেলেকে দিয়ে সকাল থেকে বাবা-ছেলে মিলে ক্ষেতে মই টানছি। মই এর কাজ শেষে লাঙ্গল টানতে হয়।

এ কাজে আধুনিক যন্ত্র ট্রুাক্টর দিয়ে কাজ করা সম্ভব। এতে খরচ হবে বেশি। এমনিতেই ধানের দর কমে গেছে। তাই খরচ বাঁচাতে প্রতিবেশী এক কৃষক ভাইয়ের সহযোগিতায় আমরা তিনজন মিলে ক্ষেতে ট্রাক্টরের বিপরীতে লাঙ্গল টানছি। এবার তিনি ১৩ কেয়ার জমিতে বোরো আবাদ করছেন।

কৃষকের ছেলে এমরান আহমদ বলেন, সংসারে বাবাকে সহযোগিতা করতে মাঠে কাজ করছি। আমাদের কৃষি কার্ড থাকলেও সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা পাইনি।

কৃষক বাহার মিয়া জানান, দরিদ্র কৃষক নিজের ছেলেকে নিয়ে ক্ষেতে কাজ করছিলেন। গরুর বদলে লাঙ্গল টানতে তিনজন মানুষের প্রয়োজন। দুইজন দিয়ে লাঙ্গল টানা অসম্ভব। তাই একজন প্রতিবেশী হিসেবে আরেক কৃষককে সহায়তার জন্য লাঙ্গল টানার কাজে আমি তাদেরকে সাহায্য করেছি।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দরিদ্র কৃষকদের সহায়তার জন্য আমাদের নিকট আলাদাভাবে কোন বরাদ্দ নেই।

জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর বাঁচাও আন্দোলন কমিটির আহবায়ক সিরাজুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এক সময় কৃষি প্রধান এই এলাকায় কৃষকদের ঘরে ঘরে গরু, জোয়াল এবং লাঙ্গলসহ কৃষি যন্ত্রপাতি ছিল। প্রযুক্তি এই যুগে বদলে গেছে সেই চিত্র। আধুনিকতার কারণে এখন কৃষিখাতে খরচ বেশি। সেই তুলনা ধানের ন্যায্য মুল্য পাচ্ছেন না কৃষকরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24