রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

চাঁদা নিতে গিয়ে গণধোলাইয়ের শিকার ২ ছাত্রলীগ নেতা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৭
  • ২৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্মাণকাজের জন্য চাঁদা নিতে গিয়ে ছাত্রলীগের সাবেক দুই নেতা নির্মাণ শ্রমিকদের হাতে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন। সোমবার রাতের ওই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। তবে ছাত্রলীগ নেতারা চাঁদা দাবি করার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

পুলিশ, বিশ্ববিদ্যালয় ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা যায়, ২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ১০তলা ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। এটি নির্মাণ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গোপালগঞ্জের হাবিব অ্যান্ড কোং।

অভিযোগ পাওয়া যায়, সোমবার প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার আবদুল লতিফ ও সাব-কন্ট্রাক্টর মতিয়ার রহমানের কাছে ছাত্রলীগ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি হাদিউজ্জামান হাদি ও শহীদ মুক্তার ইলাহি হল ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইমতিয়াজ বসুনিয়া ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। কিন্তু তারা টাকা দিতে অস্বীকার করলে ছাত্রলীগের নেতারা জোর করে তাদের কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা নিয়ে যান। রাতে তারা টাকা নিতে আবারও আসবে বলে জানায়।

আবদুল লতিফ ও মতিয়ার রহমান বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়িকেও জানায়। এরপর সোমবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে হাদি ও ইমতিয়াজের নেতৃত্বে ছয় থেকে সাতজন ক্যাম্পাসে নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের অস্থায়ী অফিসে গিয়ে টাকা দাবি করেন। কিন্তু টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুর এবং তাদের মারপিট করে। এসময় সেখানে থাকা ৫০ থেকে ৬০ জন নির্মাণ শ্রমিক ধাওয়া দিয়ে হাদি ও ইমতিয়াজকে আটক করে গণধোলাই দেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাদিউজ্জামান হাদির মাথার আঘাত গুরুতর বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সহকারী প্রক্টর ড. মো. রুহুল আমিনকে আহ্বায়ক, সহকারী প্রক্টর মো. আতিউর রহমানকে সদস্য সচিব ও মুহা. শামসুজ্জামানকে সদস্য করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। কমিটি সদস্যরা কাজ শুরু করেছেন।

হাসপাতালে ইমতিয়াজ বসুনিয়া সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, তারা চাঁদাবাজি করতে সেখানে যাইনি। আক্রোসবশত হত্যার উদ্দেশ্যেই তাদের লোহার রড দিয়ে মারপিট করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা করা হবে।

আবদুল লতিফ ও মতিয়ার রহমানের অভিযোগ, প্রায় সময় ছাত্রলীগের নামে চাঁদা দাবি করা হয়। টাকা না পেলেই কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় সাবেক দুই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলেও তারা জানান।

বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ মহিবুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কোন পক্ষই লিখিতভাবে অভিযোগ দেয়নি।

কোতয়ালি থানার ওসি এবিএম জাহিদুল ইসলাম জানান, এখনও কোন পক্ষ মামলা করেননি। মামলা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. আবু কালাম মো. ফরিদ-উল-ইসলাম জানান, তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার উপর ভিত্তি করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24