রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১০:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পাটলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল হকের উদ্যাগে ব্যারিষ্টার ইমনের জন্মদিন পালন যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নুর তাপস ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমনের জন্মদিন পালন করল জগন্নাথপুরের আ.লীগ জগন্নাথপুরে মাছ ধরা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১০ জগন্নাথপুরে সিএনজি চালক হত‌্যাকাণ্ড, আটক-১ জগন্নাথপুরে নিসচার স্কুল পর্যায়ে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, নিহত ৪, শতাধিক আহত জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সাব্বিরের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিম-লে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ

চা-শ্রমিক দিবস: একটি দু:খগাঁথা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২০ মে, ২০১৮
  • ৫৯ Time View

জামালগন্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামিম আল ইরানঃ চা বাগান ঘুরে অসংখ্য দিবস আমরা পালন করে থাকি।সরকারি বা বে-সরকারি, জাতীয় বা আন্তর্জাতিক, ব্যক্তিগত বা পারিবারিক দিবস। এ সবের বাইরেও কিছু দিবস আমাদের জানার বাইরে থেকে যায়। যার তাৎপর্য কোন অংশেই কম নয়। এরকম একটি দিবস হল চা-শ্রমিক দিবস বা ‘‘মুল্লুক চল” দিবস।
১৮৫৪ সালে সিলেটের মালিনী ছড়ায় যখন প্রথম চায়ের বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয় তারপর থেকেই আসাম অঞ্চলে (সিলেট তখন আসামের অংশ) চা-শিল্পের ব্যাপক বিস্তার লাভ করতে থাকে। চা-শিল্প মূলত একটি শ্রমঘন(labour intensive)শিল্প। চা শিল্পের বিস্তারে প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় শ্রমিক সংকট। ১৮৫৩ সালে আসামে প্রতি বর্গমাইলে লোকসংখ্যা ছিল ৩০ জন, সিলেটে ছিল ২০০ জন। তাছাড়া আসামের মাটি ছিল সোনা ফলা। ফলে এই অঞ্চলের কৃষকরা চা বাগানে কাজ করাকে অসম্মানজনক মনে করত।
এ জন্য ব্রিটিশরা চা শ্রমিকের জন্য আসামের বাইরে হাত বাড়ায়। মূলত বিহারের ছোট নাগপুর, উড়িষ্যা, অন্ধপ্রদেশ, মধ্য প্রদেশ থেকে এই সব শ্রমিকদের সংগ্রহ করা হয়। শ্রমিক সংগ্রহকারীরা এই সমস্ত দারিদ্রপীড়িত এলাকার মানুষকে এক সমৃদ্ধ জীবনের স্বপ্ন দেখিয়ে ভুলিয়ে ভালিয়ে জাহাজে তোলে। তারপরই শুরু হয় এক করুন কাহিনী। যে জাহাজে ২০০ জনের ধারণ ক্ষমতা সেখানে তোলা হয় ১০০০ জনকে। পথ কাটে ক্ষুধা আর যন্ত্রনায়। জাহাজ যখন ঘাটে ভীড়ে তখন লাশ এবং জীবন্ত মানুষের সংখ্যা থাকে সমান। এরপর তাদেরকে নিয়ে আসা হয় আসামে তাদের জন্য নির্ধারিত এলাকায়। এখন যেখানে সবুজ সুন্দর চা বাগান দেখছেন সেখানে তখন ছিল বিস্তীর্ণ জঙ্গল। এই জঙ্গলে ছিল হিংস্র পশুপাখি আর পোকা-মাকড়। শ্রমিকদের প্রাথমিক কাজ ছিল এই ভয়ংকর জঙ্গল পরিষ্কার করে চা বাগানের উপযোগী করা।
অপর দিকে চা বাগানের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব ছিল ইংরেজদের হাতে। আসামের এই জঙ্গলে তখন দাগী অপরাধী, বখাটে এবং উচ্ছৃঙখল ইংরেজদের পাঠানো হত। একদিকে ভয়ংকর জঙ্গল, হিংস্র জন্তু-জানোয়ার, অর্ধহার, অনাহার, রোগ শোক অন্যদিকে ইংরেজদের অমানবিক আচরণ। দ্রুতই এইসব অসহায় মানুষদের রঙিন স্বপ্ন ফিকে হয়ে যেতে থাকে। মরতে থাকে তারা গণহারে। সরকারি এক হিসেবে দেখা যায়, প্রথম তিন বছরে যে ৮৪,৯১৫ জন শ্রমিক আমদানি করা হয়েছিল, তার মধ্যে ৩১,৮৭৬ জন এভাবেই মারা যায়।
ইংরেজদের বিরুদ্ধে যখন সারাদেশে স্বদেশী আন্দোলন চলছিল তখন এর ঢেউ চা বাগানগুলোতেও পড়ে। চা-শ্রমিকরাও আস্তে আস্তে তাদের অধিকার সম্বন্ধে সচেতন হতে থাকে, অত্যাচার-অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে থাকে। তাদের নেতা পন্ডিত দেওশরন এবং গঙ্গা দীতির নেতৃত্বে ১৯২১ সালের ২০ মে ‘‘মুল্লুক চল’’ বা ‘‘দেশে চল’’ কর্মসূচির ডাক দেয়। সিলেটের বিভিন্ন চা বাগান থেকে পঙ্গপালের মত বের হয়ে প্রায় ৩০,০০০ চা শ্রমিক সিলেট রেলস্টেশনে এসে জড়ো হয়। কিন্তু বৃটিশ সরকার রেল যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। তারা তখন রেল লাইন ধরে হেঁটে চাঁদপুর পৌছায়। চাঁদপুর জাহাজঘাটে ব্রিটিশ সরকার গুর্খা রেজিমেন্টের সৈন্যদের দ্বারা নির্বিচারে গুলি চালিয়ে শতশত শ্রমিককে হত্যা করে। কত মানুষ ঐদিন নিহত হয়েছিল তার পরিসংখ্যান কখনও জানা যায়নি। তারপর থেকেই ঐদিনকে চা শ্রমিকরা ‘‘চা-শ্রমিক দিবস’’ হিসেবে পালন করে আসছে।
আজ চা-শিল্প বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের দিক থেকে দ্বিতীয়,মোট জিডিপির ১% আসে এই শিল্প থেকে। ১৬২টি চা বাগানে ৩ লক্ষাধিক চা-শ্রমিক কর্মরত আছে। সবুজ মনোরম চা-বাগানগুলো লক্ষ লক্ষ পর্যটক আকর্ষণ করে। কিন্তু এই সমস্ত কিছুর পেছনে জড়িয়ে আছে রক্ত, ঘাম, ইজ্জত লুন্ঠন আর অত্যাচারের কাহিনী। আয়েশ করে চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে যখন আমরা সতেজ হই এই করুণ কাহিনী তখন আমাদের অজানা থেকে যায়। আজ এই দিনে শ্রদ্ধা জানাই এই নিপীড়িত মানুষ জনের প্রতি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24