শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত জগন্নাথপুরে অটোচালককে হত‌্যা করে লাশ ডোবায় ফেলে দিল দুবৃর্ত্তরা জগন্নাথপুরে ‘ভুয়া’নাগরিক সনদধারীদের ঠেকাতে জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে স্থানীয়রা জগন্নাথপুরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা প্রদান যুবলীগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী রোববার মিটিং ডেকেছেন : ওবায়দুল কাদের দেশে দারিদ্র কমলেও বৈষম্য বাড়ছে:পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না

চিনে ফেলায় খুন করা হয় স্কুল ছাত্র সাঈদকে, আদালতে র‌্যাবের ‘সোর্স’ গেদার জবানবন্দি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৩ মার্চ, ২০১৫
  • ৫২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক :: জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের খাশিলা গ্রামের সন্তান ‘সিলেট শহরে বসবাসকারী হযরত শাহ মীর (রহ.) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র আবু সাঈদকে অপহরণ করা হয়েছিল মুক্তিপণের জন্য। অপহরণের পর দেখা যায় সাঈদ পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমানের পূর্বপরিচিত। সাঈদ চিনে ফেলে এবাদুরকে। তাই খুন করা ছাড়া অন্য কোন উপায় ছিল না।’
শিশু আবু সাঈদ খুনের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত র‌্যাবের ‘সোর্স’ পরিচয়দানকারী আতাউর রহমান গেদা রবিবার সিলেট মহানগর হাকিম ১ম আদালতের বিচারক সাহেদুল করিমের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এমন তথ্য জানিয়েছে।
জবানবন্দির বরাত দিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী থানার এসআই শাহ ফজলে আজিম পাঠোয়ারী জানান- অপহরণের পর সাঈদকে নিয়ে আসা হয় বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল এবাদুরের কুমারপাড়া ঝর্ণারপাড়েরর বাসায়। বাসায় আনার পর কনস্টেবল এবাদুর জানায় সাঈদ তার পূর্বপরিচিত। সাঈদও চিনে ফেলে এবাদুরকে। এ অবস্থায় সাঈদকে ছেড়ে দিলে নিজেরা ফেঁসে যাবে এমন আশঙ্কায় খুন করা হয় তাকে। খুন করার সময় গেদা নিজে সাঈদের গলা চেপে ধরে।এসআই পাঠোয়ারী আরও জানান, সাঈদকে খুনের পর মুক্তিপণ আদায় ও লাশ গুমের চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু এর আগেই পুলিশের হাতে ধরা পড়ে যায় সে এবং তার সহযোগী পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর ও জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব ওরফে আবদুর রাকিব।
কোতোয়ালী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই ফায়াজ আহমদ জানান, আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে গেদা অপহরণ ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তার ৫ সহযোগীর নাম উল্লেখ করেছে। এর মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান ও জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব গ্রেফতার হওয়ার পর আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। বাকিদের একজন হচ্ছেন জেলা ওলামা লীগের প্রচার সম্পাদক মুহিবুর রহমান মাছুম। অন্য দুইজনের নাম পরিচয় তদন্তের স্বার্থে উল্লেখ করেননি তিনি।প্রসঙ্গত, গত ১১ মার্চ রায়নগর থেকে অপহৃত হয় স্কুলছাত্র আবু সাঈদ। এরপর তার পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। ১৪ মার্চ নগরীর ঝর্ণারপাড়স্থ পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমানের বাসা থেকে সাঈদের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। ওইদিন কনস্টেবল এবাদুর, জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব ও র‌্যাবের সোর্স পরিচয়দানকারী আতাউর রহমান গেদাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24