রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

ছাতকে আ.লীগের দুই নেতার দ্বন্দ্বে যাত্রীদের দুর্ভোগ

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ আগস্ট, ২০১৭
  • ২৫ Time View

ছাতক প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের দুই নেতার দ্বন্দ্বে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন তাঁদের সমর্থকরা। পরে এক পক্ষের লোকজন সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। এতে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে প্রায় চার ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। চরম ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ছাতক ও দোয়ারাবাজার আসনে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও ছাতক পৌরসভার আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছে। তাঁদের দ্বন্দ্বের কারণে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। বৃহস্পতিবার ছাতক উপজেলা পরিষদে নিয়মিত মাসিক সমন্বয় সভায় অংশ নেন দুই পক্ষের জনপ্রতিনিধিরা। দুপুরে সভা শেষে সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের সমর্থক উত্তর খুরমা ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ ও ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর সমর্থক সিংচাইড় ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের লোকজনের মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। এরপর হাতাহাতি হয়। ওই সময় পুলিশ গিয়ে দুই পক্ষের সঙ্গে মিটমাটের চেষ্টা করে।
তখন গুজব ছড়িয়ে পড়ে উপজেলা পরিষদের ভেতরে ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লালকে আটকে রাখা হয়েছে। এই খবর শুনে সংসদ সদস্য মানিক ও বিল্লালের সমর্থকরা ছাতকের গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে সুনামগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে অবস্থান নেয়। তারা রেললাইনের ব্যারিকেড বার ফেলে দিয়ে সড়ক অবরোধ করে এবং বিভিন্ন স্লোগান দেয়। এতে রাস্তার দুই পাশে কয়েকশ যানবাহন আটকা পড়ে। পুলিশ এসে লোকজনকে বোঝানোর পর বিকেল ৬টার দিকে অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।
অপরদিকে মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী সমর্থকরা উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিল করে শহরের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার এলাকায় প্রতিবাদ সভা করে। এসময় এমপি সমর্থক জিবরান রহমান নামের এক কলেজ ছাত্রকে ছুরিকাঘাত করা হয়। তাকে আহত অবস্থায় ছাতক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জিবরান আহত হওয়ার ঘটনায় বিক্ষুব্ধ মেয়র গ্রুপকে দায়ি করা হচ্ছে। অপর দিকে প্রায় ২ ঘন্টা অবরুদ্ধ থাকার পর পুলিশ প্রহরায় চেয়ারম্যান বিলাল আহমদসহ অন্যান্যদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে দেয়া হয়।
ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা (ইউএনও) মো. নাছির উল্লাহ খান বলেন, ‘আজ উপজেলা পর্যায়ে সমন্বয় সভা ছিল। সেখানে উপজেলার সব বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকতা, চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও ইউপি চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন। সমন্বয় সভা শেষে দুই পক্ষের লোকজনের মধ্যে বাগবিত-া হয়েছে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। এরপর খবর পেয়েছি, একপক্ষ গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে কর্মসূচি পালন ও স্লোগান দিয়েছে।’
সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার তাপস রঞ্জন ঘোষ জানান, সমন্বয় সভায় ওই দুই ইউপি চেয়ারম্যানের দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র গোবিন্দগঞ্জ পয়েন্টে একপক্ষ সড়ক অবরোধ করে। সুনামগঞ্জ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24