বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে দুইটি সরকারি ইজারাকৃত জলাশয় থেকে মাছ শিকারের অভিযোগ

জগন্নাথপুরসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় চলতি দায়িত্বের প্রধান শিক্ষকদের পদায়নে নীতিমালা লংঘনের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ জুন, ২০১৮
  • ১২৩ Time View

বিন্দু তালুকদার
সুনামগঞ্জের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকদের জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের পদায়নের বিষয়ে নীতিমালা লংঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চানন বালা আত্মগোপনে থাকাসহ নানা নাটকীয়তার পর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সোমবার বিকালে নোটিশ বোর্ডে পদায়িত শিক্ষকদের তালিকা প্রকাশ করেছে।
তালিকা প্রকাশের পরপরই নীতিমালা লংঘন করে অনেককে সুবিধাজনক স্থানে পদায়ন করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করে অনেককে পছন্দমত স্কুলে পদায়ন করেছেন। ৫০৩ জন শিক্ষককে পদায়নে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে গোপনে লাখ লাখ টাকার বাণিজ্য হয়েছে বলে জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন একাধিক শিক্ষক-শিক্ষিকার স্বজনরা।
প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদে চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন শিক্ষিকার সরকারি চাকুরিজীবী আত্মীয় সোমবার সন্ধ্যায় নিজের নাম প্রকাশ না করার শর্তে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরকে জানান, শতভাগ নীতিমালা লংঘন করে পদায়ন করা হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দীর্ঘদিন লুকিয়ে থাকলেও হঠাৎ করে সোমবার সন্ধ্যায় অফিসের বারান্দায় শিক্ষকের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। ইচ্ছাখুশি শিক্ষকদের পদায়ন করেছেন ডিপিও সাহেব।
জামালগঞ্জ উপজেলা সদরের নয়াহালট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা কল্পনা রানী তালুকদারকে পার্শ্ববর্তী পূর্ব লম্বাবাঁক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন না করে অন্তত ২০ কিলোমিটার দূরে ফেনারবাঁক ইউনিয়নের সুজাতপুর-ভুতিয়ারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন করা হয়েছে। অথচ লম্বাবাক স্কুলে পদায়ন করা হয়েছে দূরের গজারিয়া চাঁনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মালা ঘোষ চৌধুরীকে।
শিক্ষিকা কল্পনা রানী তালুকদারের স্বামী বরুন কুমার দাস বলেন,‘আমার স্ত্রীকে নিজ ইউনিয়নের তিনটি স্কুলে পদ থাকার পরও পদায়ন না করে ২০ কিলোমিটার দূরে পদায়ন করা হয়েছে। শূন্য তিন বিদ্যালয়ের ১ টিতে অন্য ইউনিয়ন থেকে এক মহিলা শিক্ষককে পদায়িত করা হয়েছে ।’
সদর ইউনিয়নের নয়াহালট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রহিমা খাতুনকে পার্শ্ববর্তী পূর্ব লম্বাবাঁকে না দিয়ে ফেনারবাঁক ইউপির ছয়হারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন করা হয়েছে।
জগন্নাথপুরের আলীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা অজন্তা দাসকে পার্শ্ববর্তী আদুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন না করে দূরের চাঁদ বোয়ালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন করা হয়েছে।
পাটলি ইউনিয়নের ইসলামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রিতা রানী দাসকে পার্শ্ববর্তী প্রভাকরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন না করে ৫ কিলোমিটার দূরের কামিনীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদায়ন করা হয়েছে।
শিক্ষিকা রিতা রানী দাসের স্বামী রনজু দাস বলেন,‘আমার স্ত্রী অন্তঃস্বত্বা, তাকে পার্শ্ববর্তী দুইটি স্কুলে পদ থাকার পরও সেগুলোতে না দিয়ে ৫ কিলোমিটার দূরে পদায়ন করা হয়েছে। পদায়নের নামে তার সাথে অমানবিক আচরণ করা হয়েছে।’
তবে নীতিমালা লংঘন করে আর্থিক সুবিধা পেয়ে শিক্ষকের পদায়নের বিষয়ে কথা বলতে চাইলে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চানন বালা তাঁর বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করে বলেন, ‘মাত্র দুইদিন সময় পেয়েছিলাম কাজ করার। আইন অনুযায়ী যতটুকু সম্ভব স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ভিত্তিতে কাজ করেছি। প্রভাবিত হয়ে বা স্বার্থ আদায় করে কোন কাজ করিনি। এমপিসহ নানা জনের অনেক সুপারিশ ছিল। সবকিছু যাচাই-বাছাই করে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে কাজ করেছি। আর্থিক সুবিধা নিয়েছি এমন কোন ঘটনা কেউ প্রমাণ করতে পারবেন না।’
কাজের স্বার্থে তিনি ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন বন্ধ করে জেলা শহরের সরকারি স্থাপনায় কাজ করেছেন বলে জানান।
জানা যায়, মঙ্গলবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এর বিদ্যালয়-২ শাখার উপ সচিব মনোয়ারা ইশরাত এই প্রজ্ঞাপন জারি করেন। প্রজ্ঞাপনে সুনামগঞ্জের ৫০৩ জন সহকারি শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকের শূন্যপদে চলতি দায়িত্ব প্রদানের আদেশ জারি করা হয়। প্রজ্ঞাপন জারির পরপরই পছন্দসই স্কুলে পদায়নে শিক্ষকদের মধ্যে দৌঁড়ঝাপ শুরু হয়। শিক্ষক ও তাদের আত্মীয়-স্বজনেরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে ধরনা দেন।
পাশাপাশি শিক্ষকদের পছন্দমত স্কুলে পদায়ন করার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ার লক্ষ্যে কিছু শিক্ষক সিন্ডিকেট তৈরি করেন বলে একাধিক সূত্রে জানায়।
প্রজ্ঞাপনের শর্তে উল্লেখ করা হয়েছে- প্রধান শিক্ষকের চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারি শিক্ষকগণকে একই উপজেলার সবচেয়ে নিকটবর্তী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে পদায়নের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে। পদায়নের ক্ষেত্রে উল্লেখিত কোন শর্তের ব্যতয় ঘটলে এবং এবিষয়ে অভিযোগ প্রমাণিত হলে পদায়নকারী কর্মকর্তা বা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে। কিন্তু অনেক পুরুষ শিক্ষককে সুবিধাজনক স্কুলে আবার অনেক নারী শিক্ষককে দুর্গম এলাকায় পদায়ন করা হয়েছে।
একাধিক শিক্ষক জানান, সুবিধাজনক স্কুলে পদায়নে অনেকের কাছ থেকে অর্থ আদায় করা হয়েছে এবং যাদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা পেয়েছেন কর্তৃপক্ষ তাদেরকে পছন্দমত স্কুলে পদায়ন করেছেন। নীতিমালা অনুযায়ী শিক্ষকদের পদায়ন করা হয়নি। এমনকি নারী শিক্ষকদের নীতিমালা লঙ্ঘন করে দুর্গম হাওর অঞ্চলে পদায়ন করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন,‘ নীতিমালা লঙ্ঘন করে শিক্ষকদের পদায়ন করা হলে বিষয়টির খোঁজ খবর নেয়া হবে। অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24