সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জগন্নাথপুরসহ বিভিন্ন উপজেলায় রোপা আমনের ব্যাপক ক্ষতি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৫
  • ১৬০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: টানা বৃষ্টিপাত ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে জগন্নাথপুরসহ সিলেটের নিম্নাঞ্চলে বন্যা দেখা দেয়ায় প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ফসল হারিয়ে জগন্নাথপুর,নবীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, কোম্পানীগঞ্জ ও জৈন্তাপুর উপজেলার কৃষকদের মাথায় হাত পড়েছে। তবে জগন্নাথপুরের কুশিয়ারা নদীর পানি কমতে শুরু করলেও কৃষকরা বেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছেন, হঠাৎ করে কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে রানীগঞ্জ ও পাইলগাঁও ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়ে। এতে করে অত্র অঞ্চলের আউস ও আমন তলিয়ে যায়।এতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হন। এছাড়াও গত কয়েক দিন থেকে ভারতের মেঘালয় পাহাড়ে টানা বৃষ্টি হওয়ায় ঢল নামে। পাহাড়ী ঢলে কোম্পানীগঞ্জ, জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট উপজেলার বেশিভাগ এলাকা প্লাবিত হয়। এসব উপজেলার নিচু এলাকার আউস ও আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়। অপরদিকে কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে নদী এলাকার মানুষ বন্যা কবলিত হওয়ার পাশাপাশি নদীপাড়ে রোপা আমন তলিয়ে যায়। জগন্নাথপুর ও নবীগঞ্জ উপজেলার কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হন।
জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মজলুল হক জানান, কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় রানীগঞ্জ ইউনিয়নের সবকটি হাওরের বীজতলা তলিয়ে যায়। এতে করে আগামী আউস ও আমনের ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়।
পাইলগাঁও ইউনিয়নের বাসিন্দা কৃষক আব্দুল আলীম জানান, কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পুরো ইউনিয়নের বীজতলা তলিয়ে গেছে। এতে করে তার ১০ কেদার রোপা আমনের চারাসহ কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পানি দ্রুত না কমলে এবার রোপা আমন চাষাবাদ ব্যাহত হবে।
পাইলগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আপ্তাব উদ্দিন কুশিয়ারার পানি বৃদ্ধিতে ইউনিয়নের রোপা আমন ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন বিষয়টি ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে কৃষি বিভাগকে জানানো হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিসার আসাদুজ্জামান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুরে বন্যার পানিতে ১২০ হেক্টর আমন ও ১০১ হেক্টর বীজতলা তলিয়ে গেছে। বন্যার পানি পুরোপুরি কমে গেলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নির্ণয় করা যাবে।
কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইমরুল কায়েস জানান, বন্যায় ৩৫০ হেক্টর আউস, আমন ও ৫০ হেক্টর বীজতলা পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে।
গেয়াইনঘাটের কৃষি কর্মকর্তা মো. আনিসুজ্জামান জানান, বন্যার পানিতে ৪৮০ হেক্টর আউস, ৫০ হেক্টর বীজতলা ৩০ হেক্টর সবজি ক্ষেত তলিয়ে গেছে।
সিলেট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক খায়রুল বাশার জানান, এবার সিলেট জেলায় ৮২ হেক্টর রোপা আমন আবাদ করা হয়েছে। গত কয়েক দিনের বৃষ্টি ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ৯ হাজার হেক্টর রোপা আমন তালিয়ে গেছে। তবে বর্তমানে পাহাড়ি ঢল নেমে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24