মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

জগন্নাথপুরের ফারজানাকে যৌতুকের জন্য হত্যা, আদালতে অভিযোগ দায়ের

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২২ জুলাই, ২০১৭
  • ১৯ Time View

স্টাফ রিপোর্টার :-
জগন্নাথপুরের ফারজানা আক্তার কে যৌতুকের জন্য পিঠিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এব্যাপারে সুনামগঞ্জের আমল গ্রহনকারী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ছাতক জোনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

আগামী ২আগষ্ট অভিযোগটি শুনানীর আদেশ

আদালতে দায়েরকৃত অভিযোগ থেকে জানা যায়, প্রায় দেড় বছর পূর্বে
জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের দরিকুঞ্জনপুর গ্রামের রইছ মিয়ার মেয়ে ফারজানা আক্তার (২১) কে ছাতক উপজেলার দোলারবাজার ইউনিয়নের রামপুর খাইরগাঁও গ্রামের নুরুল আমীনের ছেলে কাতার প্রবাসী সামছুল আলমের নিকট উভয় পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে দেয়া হয়।

ফারজানার সংসারে মুনতাহা নামের ৪মাসের কন্যা সন্তান রয়েছে। প্রায় ৫/৬মাস পূর্বে ফাজানার স্বামী সামছুল আলম কাতারে চলে যাওয়ার পর শ্বশুর নুরুল আমীন ও বাসুর সাইফুল আলমসহ পরিবারের অপর লোকজন ২ লাখ টাকা যৌতুকের দাবীতে ফারজানাকে শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। ফারজানা তার কন্যা সন্তানের ভবিষ্যত বিবেচনায় শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন সহ্য করে বসবাস করে আসছিল। গত ১৭জুন মধ্যরাতে ফারজানাকে মারপিঠ ও শ্বাসরুদ্ধ করে খুন করার পর গলায় ওড়না পেছিয়ে তার শয়ন কক্ষের ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রাখা রেখে ঐদিন রাতেই ফারজানা আত্মহত্যা করেছে ফারজানা বাবার বাড়িতে খবর দেয়া হয়। এ ঘটনার পর পরই ফারজানা আক্তারের শ্বশুরসহ পরিবারের সদস্যরা শিশু কন্যা মুনতাহাকে নিয়ে পালিয়ে যায়।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করেন। সুরতহাল রিপোর্টে ঘটনাস্থল পরির্দশনকারী এস আই সোহেল রানা উল্লেখ করেন ফারজানা আক্তারের শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত জখমসহ একাধিক আঘাতের চিহৃ রয়েছে।

নিহত গৃহবধুর ভাই সাহেল মিয়া তালুকদার জানান, ঘটনার পর থেকে কাতারে অবস্থানরত তার স্বামী সামছুল আলমের সাথে মুঠোফোনে কল করা হলেও সামছুল আলম রিসিভ করেননি। ময়না তদন্ত শেষে ফারজানার শ্বশুর বাড়ির লোকজন না থাকায় তার মৃত দেহ জগন্নাথপুরের দরিকুঞ্জনপুর গ্রামে ১৮ জুন আমাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।
এব্যাপারে ভাই সাহেল মিয়া তালুকদার বাদী হয়ে গত ২জুলাই নিহত ফারজানা আক্তারের শ্বশুর নুরুল আমীন, বাসুর সাইফুল আলম, তার স্ত্রী রেছানা বেগম, রুস্তুম আলীর পুত্র সজিব আহমদ ও সুহেব আহমদ, ভাতগাঁও ইউনিয়নের বাদে ঝিগলী গ্রামের আরশ আলীর পুত্র মোহাম্মদ আলী, খাইরগাঁও গ্রামের মৃত মকই মিয়ার পুত্র গিয়াস উদ্দিন, মরম আলীর পুত্র ফারুক মিয়া, মৃত ইছুব আলীর পুত্র নিজাম উদ্দিনসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩ জনকে আসামী করে সুনামগঞ্জের আমল গ্রহনকারী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ছাতক জোনে অভিযোগটি দায়ের করেছেন। আদালত আগামী ২আগষ্ট অভিযোগটি শুনানীর আদেশ দিয়েছেন বলে বাদি সাহেল মিয়া তালুকদার জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24