বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:২৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কলকলিয়া ইউনিয়ন আ,লীগ সেক্রেটারী দীপাল বাবুর শ্রাদ্ধ আজ মীরপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী কে কত ভোট পেলেন জগন্নাথপুরে ম্যাজিস্ট্রেট এর গাড়ির ধাক্কায় শিশু আহত জগন্নাথপুরে আইনশৃঙ্খলা সভায়-প্রভাবশালী মাদক কারবারিদের গ্রেফতারের দাবী

জগন্নাথপুরের হাওরপাড়ে নেই সংক্রান্তির পিঠা উৎসব

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ১৪১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওরপাড়ের লোকজনের মধ্যে হিন্দু ধর্মালম্বীদের পৌষ সংক্রান্তিতে পিঠেপুলির উৎসব নেই। টানা দুই বছর অকাল বন্যায় বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় হাওরপাড়ের বাসিন্দারা কোন রকম খেয়ে না খেয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এর মধ্যে নতুন বছরের বোরো ফসলের চাষাবাদ নিয়ে রয়েছেন দুঃশ্চিতায়। কারনে এখনও হাওরের পানি কমেনি। আবাদ নিয়ে পড়েছেন শঙ্খায়। আর্থিক অভাব অনটনের কারণে হাওর পাড়ের সনাতন ধর্মালম্বী অধ্যুষিত গ্রামগুলোতে পৌষ সংক্রান্তির পিঠেপুলি কিংবা নতুন জামাকাপড় কিনার কোন আমেজ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।
রোববার হিন্দু ধর্মালম্বীদের অন্যতম উৎসব পৌষ সংক্রান্তি পালিত হয়। এ দিনকে ঘীরে বাড়ি বাড়ি হরেকরকম পিঠাপুলির উৎসব আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে। পাশাপাশি নতুন জামা কাপড় পড়ে একে অন্যেও বাড়িতে বেড়াতে যান। ওই দিন মুসলিম সম্প্রদায়দেরও নিমন্ত্রন করা হয়। উৎসব ভাগাভাগি কওে আনন্দে মেতে উঠেন সবাই। হাওরের ফসলডুরি কারনে এবার যেন সেই উৎসব আনন্দ নেই।
জানা গেছে, জেলার অন্যতম জগন্নাথপুরের সর্ব বৃহৎ নলুয়া হাওর বেষ্টিত জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া, চিলাউড়া-হলদিপুর, রানীগঞ্জ, পাইলগাঁও ও আশারকান্দি ইউনিয়নের কমপক্ষে ২৫টি গ্রাম সনাতন ধর্মালম্বী বাসিন্দারা একমাত্র বোরো ফসলের ওপর নির্ভরশীল। গত দ্ইু বছর ধরে অকাল বন্যায় বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় গ্রামগুলোর বাসিন্দারা আর্থিক অভাব অনটনে কষ্টে আছেন।
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের দাসনোওয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা কৃষক গুপেন্দ্র দাস বলেন, গত দুই বছর ধরে সাত কেদার জমিতে বোরো আবাদ করে এক ছটাক ধান তুলতে পারিনি। আর্থিকভাবে ঋণগ্রস্থ অবস্থায় আছি। তাই এবার পৌষ সংক্রান্তির পিঠা পায়েশ ও পরিবার পরিজনের নতুন কাপড় কিনে দিতে পারছি না।
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড সদস্য নান্টু দাস জানান, পৌষ সংক্রান্তি গ্রাম বাংলার অত্যন্ত জনপ্রিয় উৎসব। পিঠাপুলির আয়োজনের সাথে পরিবারের সকলের নতুন কাপড় পড়ে এ দিনটি পালন করেন। হাওরে ফসল ডুবির কারণে এবার হাওর অঞ্চলের মানুষ পিঠে খাওয়া থেকে বঞ্চিত।
জগন্নাথপুর বাজারের পাইকারী গুড় ব্যবসায়ী শরিফ মিয়া জানান, প্রতি বছর পৌষ সংক্রান্তিতে প্রচুর পরিমাণে মরিচা গুড় বিক্রি হয়। এবার তুলনামুলকভাবে গুড় বিক্রি খুবই কম হচ্ছে।
জগন্নাথপুর বাজারের ঝলক ফ্যাশের মালিক শ্যামল গোপ বলেন, বছরে একবার পৌষ সংক্রান্তিতে ধনী দরিদ্র সবাই নতুন কাপড় ক্রয় করেন। ফসল হারানোর প্রভাবে এবার ব্যবসা খুব মন্দা।
জগন্নাথপুর উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রনব কুমার বণিক বলেন, পৌষ সংক্রান্তি সনাতন ধর্মালম্বীদের অন্যতম আনন্দ উৎসব। গত দুই বছরের ফসল ডুবির প্রভাবে উপজেলার কমপক্ষে ২৫টি গ্রামে সনাতন ধর্মালম্বীরা পৌষ সংক্রান্তির পিঠাপুলির আয়োজন করতে পারছেন না। এ উৎসবে আত্বীয় স্বজনদের উপস্থিতি নানা রকম পিঠে ও খাবারের আয়োজন সরগরম করে রাখে প্রতিটি পরিবারকে। গ্রামগুলোতে থাকে নানা রকমের মেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব বলেন, এবার পৌষ সংক্রান্তিতে হাওরপাড়ের ফসল ডুবির প্রভাব রয়েছে। বিশেষ করে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পরিবারে পিঠেপুলির আয়োজন নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24