বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০১:৫৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে আমন ধানের সোনালী শীষে দোলছে হাওর ধূম পড়েছে ধান কাটার বাম্পার ফলনে কৃষকরা আনন্দিত

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৯ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৯০ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক:: বোরো ফসলের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে কৃষি বিভাগের উৎসাহে জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষকরা আমন ধান চাষে মনোযোগী হয়েছিলেন আমনের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকের মুখে কিছুটা হলেও হাসির ঝিলিক দেখা গেছে। সম্প্রতি কৃষি বিভাগের উদ্যোগে রানীগঞ্জের গন্ধবপুর হাওর থেকে নবান্ন উৎসবের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে ধান কাটা শুরু করলে বর্তমানে উপজেলার বিভন্ন হাওরে ধান কাটার ধূম পড়েছে।

গত দু’বছর ধরে অকাল বন্যায় বোরো ফসল হারিয়ে হতাশাগ্রস্থ কৃষকরা চাষাবাদে অমনোযোগী হয়েপড়লে কৃষি বিভাগের উৎসাহে অনেকেই এবার আমান চাষাবাদে মনোযোগী হন। অনেক প্রতিকূলতার পর আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকদের মধ্যে হাসির ঝিলিক দেখা দিয়েছে। বোরো পাশাপাশি এখন থেকে কৃষকরা আমনের দিকে ঝুকবেন বলেও আশা করছেন কৃষি বিভাগের লোকজন। আমন ধান অধ্যূষিত উপজেলার কলকলিয়া,পাটলী,মীরপুর,রানীগঞ্জ,পাইলগাঁও,আশারকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন হাওরে এখন সোনালী ধান দোলছে, আর কৃষকেরা মনের আনন্দে ধান কাটছেন। তবে এবার কৃষকের ধানকাটা ও মাড়াইয়ে অত্যাধুনিক মেশিন ব্যবহার করছেন। ধান কাটছেন মেশিনে মাড়াইও দিচ্ছেন মেশিনে। অন্য দিকে কৃষানীরা ধান কুলা দিয়ে মোয়াইছেন। (বাতাসে ধানের ছোট ছোট খড় ঝারছেন)


উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের কৃষক নজরুল ইসলাম জানান,১২ কেদার জমিতে বোরো চাষাবাদ করেছিলাম এক ছটাক ধানও কাটতে পারিনি। ভয়ে ভয়ে ছয় কেদার জমিতে আমন চাষাবাদ করেছি সোনালী ধানে মনটা ভরে উঠেছে। ধান কাটা শুরু হয়েছে। তিন কেটার জমির ধান কেটেমাড়াই দিচ্ছি।
রানীগঞ্জ হাওরের কৃষক হাছান আহমদ বলেন, আমি ১২ কেদার জমিতে আমন ধান করেছিলাম, ফসল ভাল হয়েছে, ইতিমধ্যে ৬ কেদাকাটা হয়ে গেছে। কৃষক আপ্তাব মিয়া বলেন ৬ কেদারে আমন ধন করেছিলাম, ফসল মোটামোটি ভাল হয়েছে। অনেক কৃষকের সাথে আলাপ করে দেখা গেছে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবার আমন ফলন ভাল হওয়াতে সবার মুখে আনন্দের ঝিলিক দেখা গেছে। এতে কিছুটা হলেও গত বছরের বোরো ফসল হানির ও বন্যার ক্ষতি পূরণ হবে বলে কৃষকরা আশা করছেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে, এবার জগন্নাথপুর পৌরসভা, উপজেলার কলকলিয়া, পাটলি, মিরপুর, রাণীগঞ্জ, চিলাউড়া-হলদিপুর, আশারকান্দি, সৈয়দপুর-শাহারপাড়া, পাইলগাঁও সহ প্রতিটি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের পাশে থাকা ৮ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে আমন ধান আবাদ করা হয়েছে। এবার কৃষি অফিসের পরামর্শে উপসী জাতের উন্নত জাতের ধান আবাদ করায় অন্য বছর থেকে ভাল ফলন হয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এবার বোরা ফসল হানির পর আমরা আমন আবাদে কৃষকদের উৎসাহ দেই। কৃষকরা প্রথমে চাষাবাদে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেও আমাদের উৎসাহ ও সহযোগীতায় চাষাবাদ শুরু করেন। তিনি বলেন,বোরো ফসল হারানোর ক্ষতি পোষাতে আমরা পরামর্শ নিয়ে উন্নত প্রযুক্তির উপসী জাতের ধান আবাদ করায় ভাল ফলন পেয়েছেন। এবার লক্ষ্যমাত্রার অধিক আমন হয়েছে।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুযেন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুরে এবার আমনের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে আশার সঞ্চার হয়েছে। এতে বোরো ফসল হানির ক্ষতি কিছুটা হলেও লাঘব হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24