সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:১৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জগন্নাথপুরে পল্লী চিকিৎসকের ঔষধ সেবনে প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : শুক্রবার, ৫ জুলাই, ২০১৯
  • ১০৫৭ Time View
পেটের সন্তান নষ্ট করতে পল্লী চিকিৎসক নিধির দাসের শরণাপন্ন হন সুমি বেগম (২৫)। তার কাছ থেকে ওষুধ এনে রাতে সেবনের পর রক্তক্ষরণ শুরু হয়।
একপর্যায়ে আজ শুক্রবার দুপুরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন এই হতভাগ্য নারী।ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের জগন্নাথরপুরে। তিনি উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের কাতিয়া অলৈতলী গ্রামের ফয়জুল ইসলামের স্ত্রী।

সুমি বেগমের স্বামী ফয়জুল ইসলাম বলেন, তাঁর স্ত্রী সুমি বেগম দুই সন্তানের মা। এর আগে দুইটি সন্তানই সিজারে ভূমিষ্ট হয়। ছোট সন্তানের বয়স ১০ মাস। আর বড় মেয়ের বয়স দুই বছর। অসাবধানতাবশত তাঁর স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ায় স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখে পড়েন। তাই স্ত্রীকে বাঁচাতে পেটের সন্তান নষ্ট করতে বড় ফেচি বাজারের পল্লী চিকিৎসক নিধির দাসের কাছে যান।সেখান থেকে বৃহস্পতিবার ওষুধ কিনে এনে রাতে স্ত্রীকে খাওয়ান। ফয়জুল ইসলাম আরো বলেন, ওষুধ সেবনের এরপরই  রক্তকরণ শুরু হয়। আস্তে আস্তে রক্তকরণ বাড়তে থাকে। আজ শুক্রবার দুপুরে মুমূর্ষু অবস্থায় তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। এ সময় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি অভিযোগ করেন, পল্লী চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। এতে মারা গেছেন তাঁর স্ত্রী।

জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. তারিকুল ইসলাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসার পূর্বেই ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি দুই মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। অতিরিক্ত রক্তকরণের কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

পল্লী চিকিৎসক নিধির দাসের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘দুই মাসের গর্ভ নষ্ট করার জন্য ওই নারী ও তাঁর স্বামী আমার কাছে আসেন। তাঁদের অনুরোধে আমি গর্ভ নষ্টের জন্য এমএম কিট ট্যাবলেট দিয়েছি। এর বাইরে আর কিছু আমার জানা নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24