শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুস্থতা আল্লাহ পাকের নেয়ামত একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড নাড়িয়ে দিল জগন্নাথপুরবাসীকে, ক্রাইম সিন ইউনিটের ঘটনাস্থল পরিদর্শন অফিসার্স ক্লাব থেকে রানীগঞ্জের তহশীলদারসহ ৪ জুয়াড়ি গ্রেফতার আজানের মর্মবানী জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী

জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি

স্টাফ রিপোর্টার::
  • Update Time : শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯
  • ২৭৮ Time View
জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি।
গতকান শুক্রবার বিকেলে জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জ ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামে বাসষ্ট্যান্ডের জায়গায় নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে সাব্বির মিয়া নামে ১০ বছরের এক শিশু গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। নিহত শিশু নবীগঞ্জের কামারগাও নগরকান্দি গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে। সে আলমপুর গ্রামের একটি মাদ্রাসার ৩য় শ্রেণীর ছাত্র। শিশু সাব্বির তার মামা ইজাজুল ইসলামের বাড়িতে থেকে পড়াশুনা করত।
পুশিল ও স্থানীয়রা জানান,  আলমপুর গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা মজনু মিয়া ও তার আপন ভাই খালেদ মিয়ার মধ্যে স্থানীয় কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী বাসস্ট্যান্ডের মালিকানা জায়গা নিয়ে পূর্ব বিরোধ চলছে। ওই বাসস্ট্যান্ডের ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেল মজনু মিয়ার ছেলে নোমান আহমদ। এ বিরোধকে কেন্দ্রে করে শুক্রবার বিকেলে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বৈঠক বসে। বৈঠকে মজনু মিয়া উপস্থিত হননি। বৈঠকে বাসস্ট্যান্ডের ম্যানেজার পদ থেকে মজনু মিয়ার ছেলে নোমানকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত হলে এই সিদ্ধান্ত জানাতে বাসস্ট্যান্ডের শ্রমিক নেতা আলমপুর গ্রামের ইজাজুল ইসমাম,মমরাজ মিয়া, মজনু মিয়ার বাড়িতে যান। এসময় মজনু মিয়ার সঙ্গে তাদের বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়। একপযার্য়ে সংর্ঘষে জড়িয়ে পড়েন। সংর্ঘষকালে ঘটনাস্থল এলাকায় শিশু সাব্বির দাঁড়িয়ে ছিল। ওই সময় প্রতিপক্ষের বন্দুকের গুলিতে শিশু সাব্বির নিহত হয়। এঘটনায় আরো দুইজন গুলিবিদ্ধ হন।
তবে এঘটনায় আজ শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত থানা কোন মামলা হয়নি।
অপর দিকে গত শুক্রবার জগন্নাথপুর উপজেলা পাইলগাঁও ইউনিয়নের খানপুর এলাকা থেকে মামুন মিয়া (২০) নামে এক সিএনজি চালকের ক্ষতবিক্ষত লাশ একটি ডোবা থেকে জগন্নাথপুর থানা পুলিশ উদ্ধার করে। নিহত যুবক নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ মধ্যসমেত গ্রামের আব্দুল মালিকের ছেলে। পরিবারের দাবি দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করো লাশ ডোবায় ফেলে দিয়েছে।
এঘটনায়ও আজ সন্ধ্যা পর্যন্ত মামলা হয়নি।
জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, দুইটি ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24