শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১

জগন্নাথপুরে বাঁধের কাজে গাফিলতির অভিযোগে মুচলেকা দিলেন ৩ সভাপতি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৬০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ঃ
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় হাওরের ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ, মেরামত সংস্কার কাজে গাফিলতির অভিযোগে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির ( পিআইসি) ৩ সভাপতিকে আটক করা হয়। পরে ২৮ ফেব্রুয়ারি মধ্যে সঠিকভাবে কাজ শেষ করার মুচলেকায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। মুচলেকা প্রদানকারী প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতিরা হলেন,১৫ নং প্রকল্পের সভাপতি জুয়েল মিয়া,১৬ নং প্রকল্পের সভাপতি আবুল কাসেম ও ৫০ নং প্রকল্পের সভাপতি মশহুদ আহমদ।
সোমবার স্হানীয় সরকার সুনামগঞ্জের উপ পরিচালক এমরান হোসেনের নেতৃত্বে সুনামগঞ্জের ছয় জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ৩৬টি প্রকল্প পরিদর্শন করে তিনটি প্রকল্পের সভাপতিকে কাজে গাফিলতির অভিযোগে প্রকল্পের সভাপতি কে আটক করেন। তারমধ্যে জুয়েল মিয়া ও আবুল কাশেম কে ঘটনাস্থলে জনসাধারনের উপস্থিতিতে মুচলেকা আদায় করা হয়। ৫০ নং প্রকল্পের সভাপতি কে সন্ধ্যায় ইউএনও কার্যালয়ে এনে মুচলেকা আদায় করে ছেড়ে দেয়া হয়।
হাওর পরিদর্শনকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা হলেন,আমিনুল এহসান খান, শোভন রাংসা,শাকিল আহমেদ,আসিফ আল জিনাত,রাহুল চন্দ।
স্হানীয় সরকার সুনামগঞ্জের উপ পরিচালক এমরান হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,জনগনের উপস্থিতিতে বাঁধের কাজে গাফিলতির অভিযোগে প্রকল্পের সভাপতি জুয়েল মিয়া ও আবুল কাশেম বাঁধ নির্মাণের কাজ সঠিকভাবে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শেষ করার অঙ্গীকার করেন। এবং মঙ্গলবার থেকে ১০০ শ্রমিক দিয়ে কাজ করবেন বলে অঙ্গীকার করেন। অপরদিকে বালি দিয়ে বাঁধ দেয়ার অভিযোগে ৫০ নং প্রকল্পের সভাপতি মশহুদ আহমদ কে আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে আসা হলে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এটেল মাটি দিয়ে বাঁধের কাজ শেষ করার অঙ্গীকার করেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ পর্যবেক্ষণ উপজেলা কমিটির সভাপতি মাহফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,তিন জনকে আটক করে মুচলেকা আদায় করা হয়। এছাড়াও ১৯,২০,৬,১১ নং প্রকল্পের সভাপতি কে কাজের আংশিক ত্রুটি সংশোধন করতে সর্তক করা হয়।
প্রসঙ্গত জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ৫০টি প্রকল্পের মাধ্যমে ৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা ব্যায়ে ৩২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ মেরামত সংস্কার কাজ করা হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী ২৮ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে কাজ শেষ করার কথা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24