শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০১:১৫ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বিএনপির গ্রুপিং আবারো তুঙ্গে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৬
  • ৩৮ Time View

সানোয়ার হাসান সুনু : জগন্নাথপুরে বিএনপির রাজনীতিতে আবারো গ্রুপিং মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। দীর্ঘদিন পর জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির সম্মেলনকে সামনে রেখে আবারো বিবদমান দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছেন। একইদিন উভয় গ্রুপ সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেছে। এ নিয়ে উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও আতঙ্ক বিরাজ করছে। যে কোন মুহুর্তে সংঘর্ষের আশংকা করছেন এলাকাবাসী। জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সম্মেলনকে কেন্দ্র করে বিএনপি’র দু’গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। আগামী ২২ অক্টোবর পৌর শহরের মাদ্রাসা পয়েন্টে উপজেলা বিএনপি’র সম্মেলনকে সামনে রেখে বিএনপির দু’গ্রুপ একই স্থানে সম্মেলন আহবান করায় এ উত্তেজনা দেখা দেয়। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির প্রথম সদস্য কলিম উদ্দিন মিলনের সাথে দেখা করে তৃণমূল বিএনপির পক্ষে বিএনপির নেতারা সম্মেলন না পেছানো হলে একই দিনে একই সময়ে একই স্থানে পৃথক সম্মেলন আহবানের ঘোষনা দেন। জগন্নাথপুর তৃণমূল বিএনপির নেতা জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি এম.এ মালেক খান জানান, তৃণমূল বিএনপির পক্ষে আমরা জেলা বিএনপির আহবায়ক ও প্রথম সদস্যর সাথে দেখা করে আমাদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে এসেছি। তিনি বলেন বিএনপির আহবায়ক লেঃ কর্ণেল (অবঃ) সৈয়দ আলী আহমদ গত দুই বছরে মাত্র দুটি সভা করেছেন। আহবায়ক কমিটির সংখ্যাগরিষ্ট সদস্যদের বাদ দিয়ে তিনি পকেট কমিটি গঠন করেছেন। তিনি প্রতিটি ইউনিয়নে ত্যাগী নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে নিজেস্ব বলয় তৈরী করেছেন। ফলে বাধ্য হয়ে আমি তৃণমূল বিএনপির মতামতের প্রেক্ষিতে প্রতিটি ইউনিয়নে কমিটি গঠন করি। এসব বিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত না দিয়ে গোপনে সম্মেলন করার পায়তারা বন্ধ করতে আমরা একই স্থানে সম্মেলনের ডাক দিয়েছি। তৃণমুল বিএনপির পক্ষে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক জগন্নাথপুর পৌর মেয়র মোঃ আক্তার হোসেন বলেন- কর্ণেল আলী আহমদ জনপ্রিয় দল বিএনপিকে জগন্নাথপুরে আন্ডারগ্রাউন্ড পার্টিতে পরিনত করেছেন। গত দুই বছরে পৌর শহরে প্রকাশ্যে কোন কর্মসূচী নিতে দেখা যায় নি। জনপ্রিয় ও ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে ভুইফুর লোকদের দিয়ে তিনি গোপনে কাজ করেন। এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির আহবায়ক সাবেক এমপি নাছির উদ্দিন চৌধুরীর সাথে আলাপ হলে তিনি বলেন জগন্নাথপুর বিএনপির রাজনীতি সম্পন্ধে আমরা অবগত আছি। সম্মেলনের তারিখ এখনও নিশ্চিত নয়। কেন্দ্রের সাথে আলাপ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেব। তিনি বলেন- দেশ ও দলের স্বার্থে সকল প্রকার কোন্দল পরিহার করে সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। জানাগেছে, একটানা দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ছিলেন সাবেক পৌর মেয়র মোঃ আক্তার হোসেন। এ সময় আক্তার হোসেনের নেতৃত্বে জগন্নাথপুরে বিএনপি শক্তিশালী হয়ে উঠে। তবে গত ২ বছর আগে শিক্ষাবিদ লে.কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদকে আহবায়ক করে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে বিএনপি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। এরপর থেকে রাজনীতির মাঠে একটি কর্ণেল গ্রুপ ও আরেকটি আক্তার গ্রুপ নামে পরিচিতি পায় এবং আলাদাভাবে তাদের রাজনৈতিক সকল কর্মসূচি পালন করা হয়। হঠাৎ করে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সম্মেলনকে সামনে রেখে আবারো উভয় গ্রুপ মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে।

শুক্রবার রাতে জগন্নাথপুর পৌর শহরের মাদ্রাসা পয়েন্ট এলাকার একটি ভবনে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির উদ্যোগে সম্মেলন সফলের লক্ষে প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়। উপজেলা বিএনপির আহবায়ক লে. কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদের সভাপতিত্বে ও প্রথম সদস্য কবির আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, কর্ণেল গ্রুপের বিএনপি নেতা আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টার, অ্যাডভোকেট মল্লিক মঈন উদ্দিন সুহেল, সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খসরু, আব্দুল মুকিত প্রমূখ এবং আক্তার গ্রুপের বিএনপি নেতা মঞ্জুর আহমদ কাবেরী, মির্জা আবুল কাশেম স্বপন, জামিল হোসেন গেদন, মামুর আহমদ, মোজাম্মিল আলী প্রমূখ। সভায় প্রথমে আক্তার গ্রুপের মোজাম্মিল আলী বক্তব্য রাখতে চাইলে উপস্থিত স্বাক্ষর না করার কারণে তাঁর বক্তব্য থামিয়ে দেন কর্ণেল গ্রুপের কবির আহমদ। এ নিয়ে আক্তার গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে আক্তার গ্রুপের নেতাকর্মীরা সম্মেলনের তারিখ পিছিয়ে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন কমিটি পূণঃগঠনের দাবি জানালে কর্ণেল আলী গ্রুপ প্রত্যাখান করেন। অবশেষে কর্ণেল গ্রুপের নেতারা সম্মেলনের পক্ষে মতামত দিলে লে. কর্ণেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ আগামি ২২ অক্টোবর জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করলে মির্জা আবুল কাশেম স্বপনের নেতৃত্বে আক্তার গ্রুপের নেতারা দ্বিমত পোষন করে সভার সিদ্ধান্ত ও সম্মেলনকে প্রত্যাখান করে চলে যান। সভায় বিভিন্ন ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকগণ উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির আহবায়ক সাবেক এমপি নাসির উদ্দিন চৌধুরীর সাথে দেখা করে লিখিত অভিযোগ দিয়ে জগন্নাথপুরে বিএনপির সম্মেলন প্রত্যাহারের দাবি জানান আক্তার গ্রুপের নেতারা। তাদের দাবি মানা না হলে একই দিনে জগন্নাথপুরে পৃথকভাবে বিএনপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বলে আল্টিমেটাম দেয়া হয়। এ সময় আক্তার গ্রুপের কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা দলের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ মালেক খান, জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আতাউর রহমান, জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান চৌধুরী, সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক মির্জা আবুল কাশেম স্বপন, বিএনপি নেতা মঞ্জুর আহমদ কবেরী, এমএ কয়েছ, গোলজার আহমদ, হাফিজ কবির আহমদ, জামিল হোসেন গেদন, আব্দুল কাইয়ূম মেম্বার, এমএ আজিজ, তাজিবুর রহমান, শামীনুর রহমান, মামুর আহমদ, মোজাম্মিল আলী, শাহেদ আহমদ, তকবুর হোসেন, আকিক মিয়া, যুবদল নেতা ছায়াদুজ্জামান, ছাত্রদল নেতা জাহেদ আহমদ, জুবেল, জালাল, জয়নুল, সাকিল, কামরুল, জিয়া সমাজ কল্যাণ পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির সভাপতি আশরাফুল হক সুমন, সাধারণ সম্পাদক হিফজুর রহমান তালুকদার জিয়া, পরিষদ নেতা শাহ কামাল, শাহ রিপন প্রমূখ। প্রসঙ্গত-আগামী ২২ অক্টোবর জগন্নাথপুরে বিএনপির সম্মেলনের ডাক দেন কর্ণেল গ্রুপের নেতাকর্মীরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24