শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দুই বছর ধরে এম্বুলেন্স বিকল, রোগী দূর্ভোগ চরমে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ৪৪ Time View

সানোয়ার হাসান সুনু : প্রায় ৩ লাখ মানুষের চিকিৎসাস্থল জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দু’টি এম্বুলেন্স প্রায় দুই বছর ধরে বিকল হয়ে পড়ে থাকায় গুরুতর রোগীরা চরম দূর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নাম ব্যবহার করে একটি প্রাইভেট এম্বুলেন্সও থাকলেও সেটি দরিদ্র রোগীদের কোন উপকারে আসছে না। এ এম্বুলেন্স চালকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের। তাই মধ্যবিত্ত ও বিত্তশালী রোগীরা বাধ্য হয়ে উচ্চ মূল্যের ভাড়ায় লাইটেস সহ অন্যান্য যানবাহন ব্যবহার করলেও বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের গরীব শ্রেণির লোকজন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, ১৯৮৭ইং সনে এরশাদ সরকারের শাসনামলে তৎকালীন অত্র এলাকার এম.পি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মরহুম হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী (পরে স্পীকার) এর প্রচেষ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১টি অত্যাধুনিক এম্বুলেন্স বরাদ্দ করেন। দীর্ঘদিন রোগী পরিবহনে এম্বুলেন্সটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এক পর্যায়ে এম্বলেন্সটি বিকল হয়ে পড়লে ১৯৯৮ইং সনে শেখ হাসিনা সরকারের আমলে তৎকালীন অত্র এলাকার এম.পি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদ এর প্রচেষ্টায় আরেকটি অত্যাধুনিক এম্বুলেন্স প্রদান করা হয়। দীর্ঘদিন চালুর পর এটিও বিকল হয়ে যায়। অবশেষে ২০০৪ইং সনে চারদলীয় জোট সরকারের শাসনামলে অত্র উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নতুন আরেকটি অত্যাধুনিক এম্বুলেন্স প্রদান করা হয়। দীর্ঘদিন চালুর পর ২০১৩ইং সনে এটিও বিকল হয়ে পড়ে। জাপা আমলের এম্বুলেন্সটির অস্তিত্ব না থাকলেও আওয়ামীলীগ ও বিএনপি আমলের বরাদ্দকৃত দু’টি এম্বুলেন্স উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গ্যারেজে পড়ে আছে। এগুলো প্রায় দু’বছর ধরে অবহেলায় পড়ে থাকলেও সচল করার কোন উদ্যেগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। প্রায় প্রতিদিনই উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে শত শত রোগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে আসেন এর মধ্যে গুরুতর অধিকাংশ রোগীকে সাধারনত সিলেট এম.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এম্বুলেন্সগুলো বিকল থাকায় গুরুতর রোগী নিয়ে আত্মীয় স্বজনরা পড়েন বিপাকে। ফলে গুরুতর রোগী নিয়ে উপজেলাবাসীকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এলাকার ভুক্ত ভোগীদের অভিযোগ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও দায়িত্বহীনতার ফলে এম্বুলেন্সগুলো সচল করা হচ্ছে না। অন্যদিকে ৩১ শয্যা থেকে ৫১ শয্যায় উন্নিত জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে একটি অত্যাধুনিক এক্সরে মেশিন স্থাপন করা হয় এবং দীর্ঘদিন একজন টেকনোশিয়ানও ছিলেন। রোগীরা বিনা পয়সায় এক্সরে করাতে পারতেন। কিন্তু আজ দীর্ঘ পাঁচ বছর যাবত অত্যাধুনিক এক্সরে মেশিনটিও বিকল হয়ে পড়ে আছে এবং টেকনেশিয়ানের পদও শূন্য রয়েছে। রোগীরা এখন সরকারী ফ্রি এক্সরে সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। রোগীদের এখন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর বাহিরে পৌর শহরে গজিয়া ওঠা বিভিন্ন ডায়গনিস্টিক সেন্টারে চড়া মূল্যে এক্সরে করতে হচ্ছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকার বাসিন্দা তরুণ সমাজকর্মী তোফাজ্জল হক সুমন জানান, চিকিৎসা সেবায় জগন্নাথপুর উপজেলাবাসীর একমাত্র ভরসাস্থল উপজেলা স্বাস্থ্য কমেপ্লেক্সে এম্বুলেন্স না থাকায় দরিদ্র রোগীরা সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। জরুরী ভিত্তিতে একটি নতুন এম্বুলেন্স প্রদান করে উপজেলার দরিদ্র জনসাধারনের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে বর্তমান সরকারের স্বাস্থ্য সেবার অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে সংশ্লিষ্টদের সুনজর দিতে জোর দাবি জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুল হাকিমের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, বিগত ২ বছর ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি এম্বুলেন্সই বিকল হয়ে পড়ে আছে। এগুলো একেবারে অকেজো থাকায় নতুন একটি এম্বুলেন্সের জন্য দীর্ঘ প্রায় দুই বছর ধরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি চালাচালি করে আসছি। কিন্তু কোন ফল পাচ্ছি না। এম্বুলেন্স না থাকায় রোগী নিয়ে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে। তিনি জানান, বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানকে অবহিত করলে তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে একটি ডিও দিয়েছেন। আশা করছি এখন এব্যাপারে সুরাহা পাওয়া যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24