বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৪৫ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুর পৌর বিএনপির কর্মকান্ডে ক্ষুব্দ হয়ে বিএনপির রাজনীতি থেকে চীরবিদায় নিলেন মাহফুজুল

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০১৫
  • ৩৯ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর পৌর বিএনপির কর্মকান্ডে ক্ষুব্দ হয়ে বিএনপির রাজনীতি থেকে বিদায় নিলেন পৌর বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব শাহ মাহফুজুল করিম। সোমবার পৌর বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবের লিখিত পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করেন, আপনারা উভয় যখন শত চেষ্টা, তদবীর করে কখনও পৌর বি.এন.পির সদস্য হতে পারেন নাই। তখনকার কমিটির সহ-সভাপতি আমি ছিলাম। আমি ঐ এলাকার সন্তান যে এলাকায় জগন্নাথপুর পৌরসভার সব চেয়ে বেশী ভোট ধানের শীষের। যা সংসদীয় উপজেলা ও পৌর নির্বাচনে শতভাগ প্রমানিত। নির্বাচনের সময় আমি-ই মূখ্য ভূমিকা রাখি যা বলার অবকাশ নেই। আপনাদের কাছে আমি হয়ত রাজনৈতিক ভাবে অনবিজ্ঞ এবং রাজনীতির প্রথম শ্রেণীর ছাত্র? কিন্তু ক্রীড়া বিভাগে আমার যোগ্যতা, দক্ষতা, সুনাম এবং যে সব পদ পদবী নিয়ে আছি তা এখনও জগন্নাথপুর উপজেলার কোন ক্রীড়াবিদ বা ব্যক্তিত্ব আমার রেকর্ড ভাঙ্গতে পারে নাই, যা প্রমানীত। আমাদের পৌর আহবায়ক কমিটি কিভাবে আসছে এবং ওয়ার্ড কমিটিগুলো কিভাবে হয়েছে তা বিশ্লেষন করে কলঙ্খের মাত্রা বৃদ্ধি করার ইচ্ছা আমার নেই। আপনাদের ভাগ্য সুপ্রসন্ন এবং বসন্তের মাত্রা একটু বেশী। তাই সভাপতি/সম্পাদক হয়ে গেছেন? পদ পেয়ে বেগম খালেদা জিয়া-ও তারেক রহমানের চেয়ে বেশী ক্ষমতাবান হয়ে নতুন অবস্থায় যে চমক দেখিয়েছেন তা কিয়ামত পর্যন্ত কলঙ্খ মুছবেনা। তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিগত ১৯ শে সেপ্টেম্বর পৌর বি.এন.পির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ঐ সম্মেলনে পৌর বি.এন.পির সম্মানিত কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে আপনারা সভাপতি/সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন এটা গর্বের বিষয়। ঐ অনুষ্ঠানে জেলা বি.এন.পি আহবায়ক জনাব নাছির উদ্দিন চৌধুরী, জেলা বি.এন.পির প্রথম সদস্য জনাব কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন, জেলা বি.এন.পির সদস্য জনাব মিজানুর রহমান চৌধুরী সহ অনেক অতিথী উপস্থিত ছিলেন। আমি উপস্থাপনায় ছিলাম। আমাদের প্রধান অতিথী থেকে শুরু করে সব অতিথি মহোদয়েরা যে সব দিক নির্দেশনা এবং শক্তিশালী কমিটির কথা বলে গেছেন আপনারা তাদের নির্দেশকে অবজ্ঞা, অবহেলা, বৃদ্ধাঙ্গুলী এমনকি চরম অসম্মান প্রদর্শন করেছেন, যা কখনও বরদাশত করা সম্ভবপর নহে। পৌর বি.এন.পির ১৮ জন কাউন্সিলরদের এতটুকু অপমান অবহেলা করেছেন যা জগন্নাথপুর উপজেলার ইতিহাসে কখনও দেখিনাই। আপনারা আপনাদের পোষ্য, গৃহপালিত, আত্মীয়, অদক্ষ, অযোগ্য, অরাজনৈতিক, দালাল, চামচা, চাটুকাদের সংগ্রহ করে পৌর কমিটি গঠন করে জেলায় প্রেরণ করেছেন। যা জগন্নাথপুর উপজেলার সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ঠ কলঙ্খিত ও পকেট কমিটি হিসেবে কিয়ামত পর্যন্ত স্মরনীয় হয়ে থাকবে। দলের কি পরিমান ক্ষতি করেছেন অল্প-দিনের মধ্যেই অক্ষরে অক্ষরে টের পাবেন। আপনারা দলের গঠনতন্ত্রের নাটকীয় অজুহাত দেখিয়ে শতভাগ যোগ্য, পরীক্ষিত, সাহসী, ত্যাগী, মেধাবী ও জনপ্রিয় ব্যক্তিদেরকে লাথি মেরে যে-খল নায়কের ভূমিকা রেখেছেন এটা অন্তত শহীদ জিয়ার সিপাহ সালাহদের অন্তর থেকে কখনও যাবেনা। যেখানে দল শতভাগ শক্তিশালী হওয়ার লক্ষন ও পরিবেশ ছিল। আপনাদের ভূল, বেঈমানী, মুনাফিকি আর স্বার্থের কারনে দলের ১৩টা বেজে যাবে। এবং বি.এন.পি তিলে তিলে নিঃশেষ হয়ে যাবে এটা সময়ের ব্যাপার মাত্র। আপনারা ১ম মাসে যে বেঈমানী, মুনাফিকি আর হারামী দেখাইয়াছেন আমাদের বুঝতে আর বাকি রইলনা আপনারাই বিশ্ব বেহায়া আর বেঈমান হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের উত্তরসূরী? আপনারাই জগন্নাথপুর পৌর বি.এন.পির ভবিষ্যৎ মীরজাফর ? আপনাদের এহেন কার্য্যকলাপ বুঝতে পারায় পাপীদের সঙ্গ ছাড়া একান্ত কর্তব্য বলে মনে করি। তাই আমার পদ ও আপনাদের কলঙ্খিত কমিটির পদ থেকে অব্যাহতি নেওয়া শতভাগ সমীচীন এবং ফরজে আইন বলে আমি মনে করি। এটা শহীদ জিয়ার হাতে গড়া অভিভাবক সংগঠন। এটা কারো পিতৃমাতৃ সম্পদ নয়? আপনারা পিতৃমাতৃ সম্পদ মনে করে যে কলঙ্খের জন্ম দিয়েছেন এবং দলের শতভাগ ক্ষতি করেছেন ঐ কলঙ্খের অংশীদার থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এবং আপনাদের মত ব্যক্তিদের সঙ্গে রাজনীতি করা কখনও সম্ভবপর নয়। বিধায় পদত্যাগ করতে বাধ্য!! যোগ্য পরীক্ষিত মেধাবী ও সাহসী ব্যক্তিরা বি.এন.পি করার অধিকার রাখে এবং অগ্রনী ভূমিকা সব সময় রাখে কিন্তু পদ পদবী থেকে তাদেরকে অনেক দূরে রাখা হয়। যা বাংলাদেশ তথা সারা দুনিয়ার সব মানুষের কাছে আজ পরিস্কার।

তিনি বলেন, আপনাদের মত ব্যক্তিদের নেতৃত্বে রাজনীতি করার অর্থ হচ্ছে দলের সাথে বেঈমানী আর বিশ্বাস ঘাতকতার সামিল। তাই আমাকে আমার পদ থেকে এবং আপনাদের কলঙ্খিত পকেট কমিটির পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করে কলঙ্খ মুক্ত ও ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে চলার সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি। আপনাদের সঙ্গে আমি কখনও আর রাজনীতি করবনা, করবনা, করবনা!!
অতিশীঘ্র আমার আবেদন মঞ্জুর করে আমাকে হাবিয়া দোযখ থেকে রেহাই দেওয়ার প্রত্যাশা করি। বিদায় বি.এন.পি বিদায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24