রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ব্যবহার করা সাইকেল ৬২ বছর পর মধুপুর থেকে জাতীয় জাদুঘরে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৭ মার্চ, ২০১৬
  • ৬৯ Time View

মোরসালিন মিজান ॥ একটি পুরনো বাইসাইকেল। এত পুরনো যে, বলে বোঝানো যাবে না। অজপাড়াগাঁয়ে ছিল গত ৬২ বছর। বিবর্ণ গায়ের রং। এখানে-ওখানে ক্ষত। কোন কোন যন্ত্রাংশ খসে পড়েছে। ব্যবহার করার তো প্রশ্নই আসে না। এর পরও সাইকেলটি ঘিরে বিপুল আগ্রহ। কৌতূহলের শেষ নেই। কারণ সাইকেলটি আর সাইকেল হয়ে নেই, ইতিহাসের অমূল্য স্মারক হয়ে উঠেছে! এই বাহনের সঙ্গে জড়িয়ে আছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি। বাংলার অবিসংবাদিত নেতা নির্বাচনী প্রচারে এই সাইকেল ব্যবহার করেছেন। নিজে চালিয়েছেন। এখন আর চলে না। তাতে কী? বিশেষ ব্যবস্থায় নিয়ে আসা হয়েছে রাজধানী শহর ঢাকায়। স্থান হয়েছে জাতীয় জাদুঘরে। আপাতত পরিচর্যার কাজ চলছে। অচিরেই প্রদর্শিত হবে গ্যালারিতে।

জানা যায়, বাইসাইকেলটির মালিক রাজবাড়ী জেলার মধুপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল ওয়াজেদ ম-ল। ইংল্যান্ডের ডানলপ কোম্পানির বিএসএ মডেলের সাইকেল তিনি কিনেছিলেন ১৯৪৮ সালে। মূল্য ২২০ টাকা। তখন এই টাকা অনেক। তারও বেশি মূল্যবান হয়ে ওঠে যখন এটি ব্যবহার করেন বাংলার অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমান। ঘটনাটি ১৯৫৪ সালের। হ্যাঁ, তখন যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন নিয়ে গরমাগরম অবস্থা। তরুণ নেতা শেখ মুজিব যুক্তফ্রন্ট প্রার্থী ওয়াজেদ চৌধুরীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচার চালাতে রাজবাড়ী যান। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নির্দেশে ম্যাজিস্ট্রেটের চাকরি ছেড়ে নির্বাচনে অংশ নেন ওয়াজেদ চৌধুরী। তাঁর বাসা থেকেই নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন মুজিব। মোল্লা জালাল, ওবায়দুর রহমান ও মোনাক্কাসহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় নেতা প্রচারে অংশ নেন। গাঁয়ের কাঁচা রাস্তা। বহুদূর পাড়ি দিতে হবে। এ অবস্থায় বাইসাইকেল-ই ছিল ভরসা। ১০ থেকে ১২টির মতো বাইসাইকেলের ব্যবস্থা করা হয়। বঙ্গবন্ধু চালাচ্ছিলেন একটি। কিন্তু রাজবাড়ীর অদূরে বেলগাছি পৌঁছতেই দেখা দেয় বিপত্তি। শেখ মুজিবুর রহমানের সাইকেলটি বিকল হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় ঘটনাস্থলের খুব কাছে হওয়ায় মোনাক্কা চেয়ারম্যানের বাড়িতে ওঠেন তাঁরা। বাকি কথাগুলো অনেকবার বলেছেন ওয়াজেদ মিয়া। তাঁর স্মৃতিচারণটি এ রকমÑ আমি তখন অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র। মোন্নাক্কা মিয়া ছিলেন আমার চাচাত ভাই। ওই দিন সাইকেল চালিয়ে আমি তাঁর বাড়ি যাই। লিচু গাছের নিচে হেলান দিয়ে দাঁড় করানো ছিল সাইকেল। সেটি দেখে বঙ্গবন্ধু জানতে চান, এই সাইকেল কার? জবাবে আমি বলি, আমার। নেতা তখন বলেন, তোর সাইকেলটি কয়েকদিনের জন্য আমাকে দে। আর আমি না আসা পর্যন্ত এই বাড়িতেই থাক। আমি এখানেই তোর সাইকেল ফেরত দিয়ে যাব। টানা ১৫ দিন প্রচারের কাজ করে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু। সাইকেল ফেরত দিয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরেন। বলেন, ভাল থাকিস আর মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করিস। মানুষকে ভালবাসিস। পারলে দেশের জন্য রাজনীতিটাও করিস।

এরপর অনেক অনেক ইতিহাস! শেখ মুজিবুর রহমান গোটা বাংলাদেশের একমাত্র নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন। তিনিই বঙ্গবন্ধু। মহান নেতার নেতৃত্বে পাওয়া হয় স্বাধীন বাংলাদেশ। জাতির পিতার স্বীকৃতি পান শেখ মুজিব। স্বাধীন দেশে প্রিয় নেতার সঙ্গে দেখা করতে ঢাকায় আসেন ওয়াজেদ। ১৯৭২ সালে ধানম-ির বঙ্গবন্ধু ভবনে তাঁদের দেখা হয়। ওয়াজেদ একাধিক সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন, প্রথম দেখাতেই বঙ্গবন্ধু তাঁকে চিনতে পারেন। জানতে চান, সাইকেলটা এখনও আছে? আমি মাথা নেড়ে হ্যাঁ বলি। তিনি তখন কী জানি ভেবে বলে বসেন, আমি মরে গেলে এটি জাদুঘরে দিয়ে দিবি। ওয়াজেদ তখন ভাবতেও পারেননি, বঙ্গবন্ধু এত সহজে মরে যাবেন। কিন্তু তাই হয়েছিল। দুই বছরের মাথায় নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল তাঁকে। এই বেদনাবিধুর ঘটনা কোনদিন ভুলতে পারেন না ওয়াজেদ। বঙ্গবন্ধুর কথামতো সাইকেলটি জাদুঘরে দেখার চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু ’৭৫ পরবর্তী সময়ে সেটি আর সম্ভব হয়নি। পরবর্তীতেও চেষ্টা অব্যাহত ছিল। অবশেষে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সাইকেলটি তিনি জাতীয় জাদুঘরে হস্তান্তর করতে সক্ষম হন।

সাইকেলটি গ্রহণ করতে মধুপুর গ্রামে গিয়েছিলেন জাদুঘরের কর্মকর্তা ড. স্বপন কুমার বিশ্বাস ও সিরাজুল ইসলাম। জনকণ্ঠকে সিরাজুল ইসলাম বলেন, জাতির জনকের এই স্মৃতিচিহ্ন সংগ্রহের চেষ্টা জাদুঘর আগে একাধিকবার করেছিল। তবে নানা কারণে সম্ভব হয়নি। আমরা কাজটি করতে পেরে আনন্দিত। তিনি বলেন, ওয়াজেদ মিয়া বহুকাল এই সাইকেল আগলে রেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচিহ্ন জাদুঘরে দিতে পেরে তিনিও আনন্দিত। সাইকেলটি দেয়ার সময় অশীতিপর বৃদ্ধ আমার হাত ধরে কেঁদে ফেলেন। কথা বলতে পারেননি। তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তাঁর কন্যা। তিনিও অঝোর ধারায় কাঁদেন। আমরা তাঁদের আশ্বস্ত করে বলে এসেছি, এই ধন আমরা আগলে রাখব।

বর্তমানে সাইকেলটি রয়েছে জাদুঘরের ল্যাবরেটরিতে। সেখানে এটিকে গ্যালারিতে প্রদর্শনের জন্য উপযুক্ত করা হচ্ছে। কনসারভেশন ল্যাবের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম হায়দার বলেন, সাইকেলটি বহু পুরনো হওয়ায় অনেক কাজ করতে হয়েছে। আরও কিছু কাজ বাকি। আমরা মূল স্মারকটি অবিকৃত রেখেই পরিচর্যার কাজ করছি। ২৬ নম্বর গ্যালারিতে সাইকেলটি প্রদর্শন করা হবে বলে জানায় জাদুঘর কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24