বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:৩৯ পূর্বাহ্ন

জেলা আ.লীগ নেতাদের দ্বন্দ্বের প্রভাব ছাত্রলীগে :চারদিনের মাথায় বিভক্তি প্রকাশ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৬১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ::
আওয়ামী লীগ নেতাদের ঈমানী ঐক্য গড়া ও ভাঙার কবলে পড়েছে নবঘোষিত জেলা ছাত্রলীগের কমিটি। চারদিন পেরুনোর আগেই বিভক্তি দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থায় সাধারণ নেতা-কর্মীরা পড়েছেন বিব্রতকর অবস্থায়।
সম্প্রতি জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট ও পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলের মধ্যে ঈমানী ঐক্যে চিড় ধরে। ঐক্য ভেঙে বেরিয়ে যান আ.লীগ জাতীয় কমিটির সদস্য জগলুল। পরবর্তীতে নিজের সমর্থক-অনুসারীদের নিয়ে পালন করতে থাকেন কর্মসূচি। পাশাপাশি আগামী সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-৪ আসনে মনোনয়নের জন্য প্রস্তুতিও জোরদার করেন তিনি। অন্যদিকে, মতিউর রহমান ও নুরুল হুদা মুকুটের সঙ্গে হাত মেলান তাদের ‘রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ’ হিসেবে পরিচিত জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন। তাদের মধ্যে সৃষ্টি হয় নতুন ঐক্য।
আ.লীগ নেতাদের ঐক্য ভাঙা-গড়ার মধ্যে গত ৩ ডিসেম্বর জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্র। কমিটিতে আহ্বায়ক আরিফ উল আলম পৌর মেয়র আয়ূব বখত জগলুলের অনুসারী। যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হক কিরণ, সদস্য আশরাফুল ইসলাম ও ইশতিয়াক আলম পিয়াল জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন বলয়ের অনুসারী। যুগ্ম আহ্বায়ক দিপংকর কান্তি দে, মাসকাওয়াত জামান ইন্তি ও সদস্য অভিজিৎ চৌধুরী টিংকু জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট অনুসারী। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানের অনুসারী ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দেওয়ান এনায়েত রেজা জিসান ও সদস্য ফয়সল আহমদ। এছাড়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণের অনুসারী যুগ্ম আহ্বায়ক সুহেল রানা ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী’র বলয়ের অনুসারী যুগ্ম আহ্বায়ক আশিকুর রহমান রিপন।
কমিটি গঠনের প্রথম দিন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আহ্বায়ক আরিফ উল আলমের নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। পরদিন সব যুগ্ম আহ্বায়ক ও দু’জন সদস্য আনন্দ মিছিলের আয়োজন করেন। এই মিছিলে পরে এসে যোগ দেন আহ্বায়ক আরিফুল উল আলম। তবে কানাঘোষা চলছিল জেলা আ.লীগের নেতাদের বিরোধের কারণে বিভক্ত হয়ে পড়েছে জেলা ছাত্রলীগের ১১সদস্যবিশিষ্ট কমিটি। গতকাল বুধবার তা প্রকাশ পায়। আহ্বায়ক আরিফুল উল আলমকে বাদ দিয়ে জেলা ছাত্রলীগের ব্যানারে সুনামগঞ্জ মুক্ত দিবসের কর্মসূচি পালন করেন যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হক কিরণ, দিপংকর কান্তি দে, দেওয়ান জিসান এনায়েত রেজা, আশিকুর রহমার রিপন, সদস্য ফয়সল আহমদ ও অভিজিৎ চৌধুরী টিংকু। এসময় তাদের অনুসারীরাও উপস্থিত ছিলেন। তবে এতে উপস্থিত ছিলেন না যুগ্ম আহ্বায়ক সোহেল রানা, মাসকাওয়াত জামান ইন্তি, সদস্য ইশতিয়াক আলম পিয়াল ও আশরাফুল ইসলাম। ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কর্মসূচিতে না থাকলেও সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন আয়োজিত কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন আহ্বায়ক আরিফ উল আলম।
ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতারা বিভক্ত থাকায় এক হতে পারছেন না নবগঠিত কমিটির নেতৃবৃন্দ। আওয়ামী লীগ নেতাদের ডিঙিয়ে একসঙ্গে কর্মসূচি পালনেরও সিদ্ধান্ত নিতে গিয়েও নানা চিন্তা-ভাবনা করতে হচ্ছে তাদের। ফলে চারদিনের মাথায় বিভক্তি চরম আকার ধারণ করেছে ছাত্রলীগে। এতে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ নেতাকর্মীরা।
এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হক কিরণ বলেন, আমরা হঠাৎ করেই কর্মসূচি পালন করেছি। এতে আহ্বায়ক উপস্থিত ছিলেন না।
জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আরিফ উল আলম বলেন, কয়েকজন আহ্বায়ক ও সদস্য মিলে কর্মসূচি পালন করেছেন। এ বিষয়ে তারা আমাকে কিছু জানাননি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24