রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন

ডাক্তারদের ফি নিয়ে নৈরাজ্য

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ১৩০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:;

রাজধানীতে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে বেশির ভাগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকই এক হাজার টাকা বা তার বেশি নেন রোগী দেখার ফি বাবদ। নামিদামি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে যাঁরা বসেন তাঁদের ফি ১২০০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ঢাকার বাইরেও অনেক চিকিৎসকই এখন ৭০০ থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত ফি নেন। ফলে চিকিৎসার প্রয়োজন হলে রোগীরা প্রথমেই চিন্তায় পড়ে চিকিৎসকের ফি নিয়ে। ফি বেশি হওয়ায় বিশেষজ্ঞ পর্যায়ের চিকিৎসকরা নিম্ন আয়ের মানুষের নাগালের বাইরে। তাঁদের ভরসা একমাত্র সরকারি হাসপাতাল। কিন্তু বেশির ভাগ কর্মজীবী মানুষের পক্ষে কাজ ফেলে দিনের বেলা সরকারি হাসপাতালে যাওয়াও কঠিন হয়ে পড়ে।

সরকারের পক্ষ থেকে চিকিৎসকদের জন্য রোগী দেখার ফির কোনো হার নির্ধারণ করে না দেওয়ায় যে যার খুশিমতো ফি নিয়ে থাকেন বলে মনে করেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। অন্যদিকে চিকিৎসকরাও একাট্টা হয়ে ফি নির্ধারণে আপত্তি তুলছেন। তাঁদের অজুহাত, অন্য পেশার ক্ষেত্রেও তো ফি নির্ধারণ করা নেই।

সরকারেরই স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের মহাপরিচালক আসাদুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চিকিৎসা ব্যয়ের উল্লেখযোগ্য একটি অংশ হচ্ছে চিকিৎসকের ফি। এটা নির্ধারণ করা খুবই জরুরি। তা না হলে নৈরাজ্য চলতেই থাকবে। এ ক্ষেত্রে ডাক্তারদের ক্যাটাগরি করে তার ভিত্তিতে ফি শ্রেণিবিন্যাস করা যেতে পারে। বিশ্বের বহু দেশে এমন নজির রয়েছে। এটা করতে পারলে রোগীরা উপকৃত হবে। ’

আসাদুল ইসলাম আরো বলেন, চিকিৎসার প্রশ্নে শুরুতেই মানুষ চিন্তায় পড়ে ডাক্তারের ফি নিয়ে। এটা খুবই উদ্বেগজনক। অন্য পেশা আর চিকিৎসাসেবা পেশাকে এক পাল্লায় দেখা যাবে না।

বেশ কিছুদিন ধরে হাঁটু ও কোমরের ব্যথায় ভুগছেন লোকমান হোসেন। তা নিয়েই নিজেকে এক রকম টেনেহিঁচড়ে কাজের প্রয়োজনে ছোটাছুটি করেন। সবাই বলে চিকিৎসক দেখাতে। পরিবারের লোকজনও চাপে রাখে প্রতিদিন। অফিস আর সরকারি হাসপাতালের সময়সূচি এক হওয়ায় সরকারি হাসপাতালে যেতে পারছেন না তিনি। আবার শুক্রবার সরকারি হাসপাতাল থাকে বন্ধ। শুক্রবার সকালে ধানমণ্ডি লেকের পারে হাঁটতে এসে এসব কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন তিনি। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিস সহকারী লোকমান হোসেন নিজেকে সামলে নিয়ে চোখ মুছে বলেন, ‘সমস্যার কথা শুনে সবাই শুধু ডাক্তারের কাছে যাইতে বলে। কিন্তু আজকাল ডাক্তারের কাছে তো খালি হাতে যাওন যায় না। ওষুধ, পরীক্ষা-নিরীক্ষা না হয় পরের কথা। শুরুতেই তো নগদ একটা হাজার টাকা দেওয়া লাগে। আর ওই এক হাজার টাকা দিয়া আমার বাসার প্রায় এক সপ্তাহের বাজার চালাইতে পারি অথবা বাচ্চার স্কুলের দুই মাসের বেতন দেওন যায়। তাই ডাক্তারের ফি আর অন্যান্য খরচের কথা চিন্তা করলেই শারীরিক কষ্ট ভোগ করে হলেও মনে হয়, আগে না হয় অন্য খরচ সামাল দেই। ’

রাজধানীর মোহাম্মদপুর ইকবাল রোডে নিজস্ব প্রতিষ্ঠান কেয়ার হাসপাতালে প্রসূতি ও বন্ধ্যত্বের চিকিৎসা করেন অধ্যাপক ডা. পারভীন ফাতেমা। তিনি নতুন রোগীর কাছ থেকে ফি নেন ১২০০ টাকা। দ্বিতীয়বার দেখাতে গেলে নেন ৭০০ টাকা। তাঁর চেম্বারে গিয়ে সব রোগী ও স্বজনকে দেখেই বোঝা যায় তাঁরা ধনী পরিবারের লোক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোগী কালের কণ্ঠকে বলেন, “ডাক্তার ম্যাডাম (পারভীন ফাতেমা) প্রথমেই জানতে চেয়েছেন—‘টাকা আছে তো’। ”

ধানমণ্ডিতে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে বসেন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ এহতেশামুল হক। তিনি দিনে দুই দফা (সকাল ও বিকেল) রোগী দেখেন ওই হাসপাতালে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, নতুন রোগীর ক্ষেত্রে ডা. এহতেশামুল হকের ফি ১২০০ টাকা এবং এক মাসের মধ্যে পুনরায় গেলে তখন ফি নেওয়া হয় ৮০০ টাকা।

ওই দুই চিকিৎসক ছাড়াও এখন ঢাকার অনেক চিকিৎসকই ফি নেন ১২০০ থেকে ১৬০০ টাকা। আর বেশির ভাগ চিকিৎসকের ফি এক হাজার টাকা।

দক্ষিণ বাড্ডার বাসিন্দা আরসাদ আলী বলেন, ‘দেশের বাইরে অনেক স্থানেই চিকিৎসা করিয়েছি। কিন্তু বাংলাদেশের মতো চিকিৎসার নামে ডাক্তারদের ফি নিয়ে এমন বেপরোয়া বাণিজ্য পৃথিবীর আর কোথাও আছে বলে জানা নেই। এখানকার ডাক্তাররা নিজেদের ইচ্ছামতো ফি নির্ধারণ করে থাকেন। সরকার এ ক্ষেত্রে রীতিমতো দেখেও না দেখার ভান করছে। কোনো রকম নিয়ন্ত্রণ নেই। ’ তিনি আরো বলেন, পাশের দেশ ভারতেও ৫০০ টাকার ওপরে কোনো ফি নেই। সরকার সেখানে ডাক্তারদের ফির বিষয়টি কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে ব্যর্থই থেকে যাচ্ছে।

ঢাকার বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, কোথাও কোনো ডাক্তারের ভিজিটই এখন ৫০০ টাকার নিচে নেই। বরং ৫০০ থেকে শুরু করে যার যত ইচ্ছা বেশি নিচ্ছেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও তাঁদের প্রশ্রয় দেয়। সাধারণ চেম্বারের বাইরে বড় হাসপাতালের চেম্বারে চিকিৎসকদের ফি আকাশচুম্বী।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, সেবার নামে ডাক্তাররা বেপরোয়া হয়ে মানুষের টাকা কেড়ে নিচ্ছেন। বেশির ভাগ সিনিয়র ডাক্তারই এখন এক হাজার টাকা করে ভিজিট নেন। প্রতিদিন রোগী দেখেন ৪০-৫০ জন করে। কেউ কেউ আরো বেশি রোগীও দেখেন। ফলে দিনে কেবল রোগীর ফি থেকেই তাঁদের আয় হয় ৪০-৫০ হাজার টাকা। এর বাইরে ল্যাবরেটরি, প্যাথলজি, ওষুধ কম্পানি, হাসপাতালের কমিশনসহ নানা মাধ্যমে আসে আরো কয়েক হাজার টাকা। এত টাকার পেছনে ছুটতে গিয়ে তাঁদের নীতিনৈতিকতা কিছুই থাকে না। প্রাইভেট প্র্যাকটিসের আড়ালে তাঁরা এক ধরনের টাকার মেশিনে পরিণত হয়ে উঠছেন। চিকিৎসকদের এই প্রবণতা বন্ধ করা না গেলে দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় সেবাব্রত বা মানবিকতা বলে কিছুই থাকবে না।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ডাক্তারদের ফি নির্ধারণ নিয়ে বিভ্রান্তি আছে। বেশির ভাগ ডাক্তারই বলে থাকেন, আইনজীবী, প্রকৌশলী, শিল্পীসহ অন্য পেশার ক্ষেত্রে ফি নির্ধারণের ব্যবস্থা না থাকলে শুধু চিকিৎসকদের বেলায় ফি নির্ধারণের প্রশ্ন আসতে পারে না। তাই বিষয়টি নিয়ে আরো আলোচনা-পর্যালোচনা প্রয়োজন।

মহাপরিচালক বলেন, তবে সরকার সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা কার্যক্রম এগিয়ে নিয়ে এর আওতায় বিশেষ স্কিমের মাধ্যমে দরিদ্র শ্রেণির মানুষের জন্য বিনা মূল্যে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে বেশি নজর দিচ্ছে।

এদিকে সরকারের পক্ষ থেকেও চিকিৎসকের ফি নির্ধারণ করার কোনো উদ্যোগ নেই। নতুন প্রস্তাবিত স্বাস্থ্যসেবা আইনের খসড়ায় কেবল ডাক্তারদের ফি নির্ধারণে সরকার পদক্ষেপ নেবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু ওই ফি কত হবে সে ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি।

প্রস্তাবিত খসড়া আইনের ১০ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ‘(১) সরকার সময় সময় গেজেট প্রজ্ঞাপন দ্বারা চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আদায়যোগ্য চার্জ বা ফিস এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার চার্জ বা ফিস নির্ধারণ করিবে; (২) চিকিৎসকের ফিস বা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আদায়যোগ্য চার্জ বা মূল্য বা ফিসের তালিকা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা চেম্বারের দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করিতে হইবে; (৩) চিকিৎসাসেবা বাবদ আদায়কৃত চার্জ বা মূল্য বা ফিসের রসিদ সংশ্লিষ্ট সেবাগ্রহীতা বা তাহার অভিভাবক বা তাহার প্রতিনিধিকে প্রদানপূর্বক উক্ত রসিদের অনুলিপি সংরক্ষণ করিতে হইবে। ’

তবে বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) নতুন মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল এক চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ডাক্তারদের স্বার্থের প্রশ্ন এলেই অন্য পেশার চেয়ে মহান পেশা হিসেবে চিহ্নিত করে আমাদের মানসিকভাবে কাবু করার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু অন্য পেশার মানুষরাও তো মানুষকে কোনো না কোনোভাবে সেবার নামে লাখ লাখ বা হাজার হাজার টাকা কামিয়ে নেন, তা নিয়ে তো কথা হয় না। ’ তিনি পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘সরকারের উচিত সব পেশার জন্যই ফি নির্ধারণের উদ্যোগ নেওয়া। আর ওই উদ্যোগের অংশ হিসেবেই তখন আমরা চিকিৎসকদের ফির ব্যাপারে পদক্ষেপ নেব। তবে এটাও ঠিক যে কোনো চিকিৎসক যেন ফি আদায়ে বেপরোয়া হয়ে না ওঠেন। ’

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও গণস্বাস্থ্য সংস্থার কর্ণধার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীও একই সুরে বলেন, চিকিৎসকদের ফি নিয়ে কথা বলা ঠিক হবে না। কারণ অন্য পেশায় অনেক বেশি ফি নেওয়া হয়। সেগুলো নির্ধারণের বিষয়ে তো কোনো পদক্ষেপ নেই। তিনি অবশ্য বলেন, ‘ডাক্তাররা ফি যেটাই নেন না কেন চিকিৎসাটা যেন ঠিকমতো দেন সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি। সেই সঙ্গে ডাক্তারদের কমিশন বাণিজ্য এবং চিকিৎসার নামে নানা রকম প্রতারণা বন্ধ করতে সরকারের আরো দায়িত্বশীল পদক্ষেপ নেওয়ার আছে। ’ বিএমএর সাবেক মহাসচিব অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান কালের কণ্ঠকে বলেন, ফি নিয়ন্ত্রণে এর আগে উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা ফলপ্রসূ করা যায়নি। তা ছাড়া অন্য পেশাজীবীরাও যে যার মতো ফি নিচ্ছেন। তাই কেবল ডাক্তারদের ফি নির্ধারণের উদ্যোগ নেওয়া হলে সেটা পেশাগত বৈষম্য তৈরি করতে পারে। ডা. আর্সনাল বলেন, ‘তবে আমরা ডাক্তাররা যেহেতু অন্য যেকোনো পেশাজীবীদের চেয়ে আলাদা বা মানুষের জীবন-মরণের সেবামূলক ব্রত নিয়ে এ পেশায় এসেছি, তাই এ ক্ষেত্রে নিজেদেরই আরো সচেতন ও নীতি-আদর্শ মেনে চলা উচিত। ’

বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) রেজিস্ট্রার ডা. জাহিদুল হক বসুনিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, দেশে এখন পর্যন্ত ডাক্তারদের প্রাইভেট প্র্যাকটিসের ক্ষেত্রে কোনো ফি নির্ধারণ হয়নি। এ ক্ষেত্রে আইন বা নীতিও নেই। নেই কোনো গাইডলাইনও। বহু আগে একবার ডাক্তারদের ফি নির্ধারণে সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা আর এগোয়নি।
সূত্র-কালের কন্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24