মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি

ঢাকা ছাড়া হয়না বিএনপি’র কমিটি!

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই, ২০১৭
  • ২৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
ঢাকা ছাড়া সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র কমিটি হয় না! এটা প্রায় কিংবদন্তিতে পরিণত হয়েছে। এবারও গত এপ্রিল মাসে ঢাকা থেকে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র ৫১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন হয়েছে। কমিটিতে ওয়ান ইলেভেনে শীর্ষ সংস্কারপন্থী খ্যাত বহিষ্কৃত নেতা নজির হোসেনকে স্থান দেওয়া হয়েছে। সভাপতি পদে সাবেক সাংসদ কলিম উদ্দিন মিলন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক ও তরুণ সংগঠক নূরুল ইসলাম নূরুলকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে গঠিত কমিটিতে বিএনপি-ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাকালীন ত্যাগীদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কমিটি গঠনের পর জেলা শহরে গত রমজানে ইফতার ও আনন্দ মিছিল করা হলেও ত্যাগীদের ওই অংশকে দেখা যায়নি। তাছাড়া তৃণমূলে বিএনপির যে কোন্দল রয়েছে তা নিরসনেও এখন পর্যন্ত কোন দৃশ্যমান উদ্যোগ নিতে পারেনি জেলা বিএনপির নতুন কমিটি।
নেতাকর্মীরা জানান, গত দেড় দশক ধরে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র কমিটি তৃণমূলের মতামতের বদলে ঢাকা থেকে করা হচ্ছে। এতে তৃণমূলের মতামত প্রতিফলিত হচ্ছে না। এই কারণে কোন্দল আরো বাড়ছে বলে মনে করেন তৃণমূল নেতৃবৃন্দ। তবে এই কোন্দলের মধ্যেও বিএনপির তরুণরা প্রবীণদের টেক্কা দিয়ে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তারা নিজ উদ্যোগে তৃণমূলের বিভক্তি দূর করতেও চেষ্টা চালাতে দেখা যাচ্ছে। সম্প্রতি জেলা কমিটির দায়িত্বশীলরাও নির্বাচনকে সামনে রেখে কোন্দল নিরসনের চেষ্টা চালাতে দেখা যাচ্ছে। এদিকে প্রবীণরাও মনোনয়নের জন্য লড়াইয়ে নেমেছেন।
এ বিষয়ে জেলা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক ও সাবেক সাংসদ নাছির উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমরা তৃণমূল নেতৃবৃন্দ নতুন এই কমিটি গঠন বিষয়ে কিছুই জানিনা। কেন্দ্র আমাদের ডেকে নিয়ে ঢাকায় কমিটি ঘোষণা করেছে। বর্তমান কমিটি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেনা জানিয়ে তিনি বলেন, সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনায় অভিজ্ঞ নেতাদের কোন পরামর্শ নেওয়া হচ্ছেনা। নির্বাচনকে সামনে রেখে কোন্দল নিরসনের কোন উদ্যোগ এখন পর্যন্ত নিতে পারেনি জেলা বিএনপির বর্তমান দায়িত্বশীলরা। এতে তৃণমূল হতাশ বলে মনে করেন তিনি।
২০১৪ সনে জেলা বিএনপির কমিটি বিলুপ্ত করে নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে আহ্বায়ক করে ঢাকা থেকে জেলা কমিটি গঠন করেন খালেদা জিয়া। এর আগেও ফজলুল হক আছপিয়াকে সভাপতি ও কলিম উদ্দিন মিলনকে সাধারণ সম্পাদক করে ঢাকা থেকে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। ২০১৪ সনের আহ্বায়ক কমিটি প্রতিটি উপজেলায় কমিটি করতে গেলে চরম প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়। প্রতিটি উপজেলায় পাল্টাপাল্টি কমিটি হয়। বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষ-মামলা ও ১৪৪ ধারা জারির মুখেও পড়ে দলটি। সর্বশেষ কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুগতদের বেশিরভাগই গুরুত্বপূর্ণ পদ পেয়েছেন বলে মনে করেন ত্যাগীরা। কমিটির দায়িত্বশীলরা কর্মসূচি চালাতে দেখা গেলেও অবমূল্যায়নের শিকার নেতৃবৃন্দকে এখনো তাদের সঙ্গে দেখা যায়নি। তবে দায়িত্বশীলরা বলছেন তাদের যোগ্য সম্মান দিয়েই কোন্দল নিরসনে প্রচেষ্টা শুরু হবে।
এদিকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাকালীন ও দুঃসময়ের নেতৃবৃন্দ প্রচারণা চালাচ্ছেন। খাঁটি জাতীয়তাবাদী আদর্শেগড়া এই নেতৃবৃন্দ নির্বাচনী এলাকার কোন্দল নিরসনেরও চেষ্টা করতে দেখা যাচ্ছে। সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক ও জেলা বিএনপির সাবেক নির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক নাদির আহমদ মনোনয়ন চাওয়াকে কেন্দ্র করে তিনি তৃণমূল নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন। তার সঙ্গে জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবুল মনসুর শওকতও রয়েছেন। এখানে প্রবীণদের মধ্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেওয়ান জয়নুল জাকেরীনও আলোচনায় রয়েছেন। সুনামগঞ্জ-১ আসনে মনোননয়ন প্রত্যাশী তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপি’র নবগঠিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান কামরুলকেও প্রচারণার পাশাপাশি ব্যক্তিগত উদ্যোগে কোন্দল নিরসনের উদ্যোগ নিতে দেখা গেছে। গত ১২ জুলাই তিনি মধ্যনগর থানার বহুধাবিভক্ত কমিটিকে নিয়ে একই মঞ্চে সমাবেশ করেছেন। তাছাড়া সম্প্রতি হাওরের দুর্যোগে কৃষকদের নিয়ে কাজ করায় দেশব্যাপী ‘হাওরবন্ধু’ হিসেবে পরিচিতি পাওয়ায় তার একটা আলাদা ইমেজ তৈরি হয়েছে বলে মনে করেন তৃণমূল নেতারা। কৃষকবন্ধু হিসেবে জাতীয় গণমাধ্যমও তাকে তুলে ধরেছে। তার এই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে কেন্দ্র। এই আসনে বিএনপিতে প্রত্যাগত সংস্কারপন্থী নেতা নজির হোসেনও প্রচারণা চালাচ্ছেন জোরেসুরে। পুরনো নেতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সহায়তা চাচ্ছেন। তছাড়া বিএনপির গেলবারের মনোনীত প্রার্থী ডা. রফিকুল ইসলামও রয়েছেন আলোচনায়।
সুনামগঞ্জ-৫ আসনের কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক সহ সম্পাদক, সিলেট জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এবং ছাতক উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরীকেও প্রচারণার সঙ্গে কোন্দল নিরসনে ব্যক্তিগত প্রচেষ্টা চালানোর তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে। এই আসনে জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন মিলন ও শিল্পপতি ইঞ্জিনিয়ার মুনসেফ আলীও রয়েছেন মনোনয়ন নিয়ে শীর্ষ আলোচনায়। মিলন দুই উপজেলার নেতৃবৃন্দকে নিয়ে শীঘ্রই মনোনয়ন বিষয়ে সভা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-৩ আসনে লন্ডনপ্রবাসী বিএনপি নেতা কয়ছর চৌধুরী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ এবং জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এটিএম হেলাল মনোনয়ন আলোচনায় রয়েছেন। তাদের সঙ্গে প্রবীণদের মধ্যে আলী আহমদ (অবসর প্রাপ্ত কর্নেল) ও ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী শাহীনূর পাশা চৌধুরীও রয়েছেন। সুনামগঞ্জ-২ আসনে জেলা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক ও সাবেক সাংসদ নাছির উদ্দিন মনোনয়ন আলোচনায় রয়েছেন। এখানে কোন তরুণ নেতাকে এখনো দেখা যায়নি।
সুনামগঞ্জ-৪ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সহসভাপতি নাদির আহমদ বলেন, বড়ো দুঃসময়ে ছাত্রদলের নেতৃত্ব নিয়েছিলাম। লাঞ্ছিত হয়েছি। কিন্তু আদর্শ ত্যাগ করিনি। জাতীয়তাবাদী আদর্শ বুকে ধারণ করেই পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করার চেষ্টা করছি। দলে যে দ্বন্দ্ব রয়েছে তা নিরসনে দ্রুত উদ্যোগ নিতে হবে।
জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক ও তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, যে আশা নিয়ে চেয়ারপার্সন আমাদের দায়িত্ব দিয়েছেন আমরা সে দায়িত্ব পালনে তারুণ্যকে বিসর্জন দিয়ে দলকে শক্তিশালী করতে সচেষ্ট থাকার অঙ্গিকারাবদ্ধ। জেলা কমিটির পাশাপাশি আমি ব্যক্তিগতভাবে আমার এলাকায় সবাইকে নিয়ে কোন্দল নিরসনের চেষ্টা করছি। তাছাড়া সম্প্রতি হাওরের কৃষকদের পাশে সর্বক্ষণ কাজ করায় দলের পাশাপাশি সাধারণ কৃষকরাও আমাকে উৎসাহিত করছেন। আশা করি আগামী নির্বাচনে দল আমার এসব বিষয় মূল্যায়ন করবে।
জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন, দলীয় চেয়ারপার্সন দায়িত্ব দেবার পর আমরা তৃণমূলের কোন্দল নিরসনের উদ্যোগ নিয়েছি। দ্রুত প্রতিটি উপজেলা সফরের সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমাদের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে অল্পবিস্তর যে ভুল বোঝাবুঝি আছে তা দূর করতে আমি কাজ করছি। নবীন-প্রবীণদের সুপরামর্শে দলকে সংগঠিত ও আগামী নির্বাচনে কাক্সিক্ষত সফলতার লক্ষ্যে আমাদের কাজ শুরু হয়ে গেছে। সিনিয়র নেতাদের সম্মান দিয়ে এবং জুনিয়র নেতাদের ভালোবাসা দিয়ে হৃদয় জয় করে দলকে আমরা ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী করার চেষ্টা করছি। অভিমান করে কাউকে দূরে থাকতে দেবনা আমরা।
সুত্র-সুনামকষ্ঠ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24