সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রামীণ ফোনের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই, জনতার ধাওয়ায় বাইকসহ আটক ১ জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেল জগন্নাথপুরের আমিরসহ ৩ শিক্ষা সংগ্রামী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৪২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
হাওরপাড়ের দরিদ্র মানুষদের স্বপ্ন দেখায় তাঁরা। এরা শিক্ষা সংগ্রামী। দারিদ্রতার কষাঘাত দমাতে পারেনি তাঁদের। এসএসসি-এইচএসসি কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হবার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে এঁরা। এঁদের একজন রোমায়েল মেধা তালিকায়ও স্থান পেয়েছে। মা-ছেলের সংসার আর নিজের লেখাপড়ার খরচ চালাতে নৌকায় মাঝির কাজ করেছে রোমায়েল আহমদ। চরম দারিদ্র্যের সঙ্গে লড়াই করে এইচএসসি পাস করার পর এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে সে। একইভাবে জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আমির হোসেন একই সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। পিতৃহীন এবং দিনমজুর মায়ের সন্তান সুনামগঞ্জ শহরতলির আলমপুরের মোজাহিদুর রহমানও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবার সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু সুযোগ পেয়েও এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে কীভাবে ভর্তি হবে, ঢাকায় কোথায় থাকবে, লেখপাড়া, থাকা-খাওয়ার খরচ আসবে কোথা থেকে-এই চিন্তায় পেয়ে বসেছে তাঁদের।
রোমায়েল আহমদের বাড়ি সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় খ ইউনিটে মানবিক বিভাগে মেধাতালিকায় ৪৪তম স্থান অধিকার করেছে রোমায়েল।
রোমায়েলের বাবা সনজব আলী কৃষক ছিলেন, মারা গেছেন ২০১৩ সালে। তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে সে সবার ছোট। দুই বোনের বিয়ে হয়েছে। দুই ভাইও বিয়ে করে আলাদা থাকেন। মা তাহমিনা বেগম কেবল আছেন তার সঙ্গে।
রোমায়েল জানায়, গ্রামের লক্ষীপুর তাওয়াক্কুলিয়া দাখিল মাদ্রাসা থেকে দাখিল পাস করার পর সিলেট সদর উপজেলার সফির উদ্দিন হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয় সে। সেখানে বিনা বেতনে তাকে পড়তে দেওয়া হয়। কলেজের পাশের জুগিরগাঁও গ্রামের আনোয়ার মিয়ার বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করে সে। বাড়িতে আনোয়ার মিয়ার ছোট দুই ছেলেকে পড়ানোয় থাকা-খাওয়ার কোনো খরচ লাগত না।
এইচএসসি পরীক্ষার ছয়মাস আগে বড় ভাই এবং এক মাস আগে মেঝো ভাই সংসার থেকে আলাদা হয়ে চলে যাওয়ার পর মাকে নিয়ে বেকায়দায় পড়ে রোমায়েল। এরপর পরীক্ষা না দিয়েই চলে আসতে চায় বাড়িতে। তখন গ্রামের আরেক বড় ভাই সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আলী আজম তাকে উৎসাহ দেন পরীক্ষা দিতে। তাঁর উৎসাহে এইচএসসি এবং পরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেয় রোমায়েল।
এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে সিলেট থেকে বাড়িতে চলে এসে সংসার চালাতে গ্রামের পাশে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের শিক্ষাতরীতে তিনমাস মাঝির কাজ করে রোমায়েল। সেই সঙ্গে চলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির প্রস্তুতি। ঢাকায় ভর্তি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার সময় মা এক প্রতিবেশির কাছ থেকে দুই হাজার টাকা ধার করে এনে দেন তাকে। এই টাকা এখনো শোধ করা হয়নি। আলী আজম সেখানে থাকার ব্যবস্থা করে দেন।
রোমায়েল জানায়, সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে পড়াশোনা করতে চায়। পড়াশোনা করে একজন ন্যায় বিচারক হতে চায় সে।
রোমায়েল আহমদ বলে,‘আগামি ২২ অক্টোবরের মধ্যে ভর্তি হতে হবে। আমার হাতে কোনো টাকা-পয়সা নেই। কীভাবে ঢাকায় যাব, ভর্তি হব, কোথায় থাকব, কীভাবে লেখপড়া চালাব এ নিয়ে চিন্তিত ছিলাম। কিন্তু আমার এই চিন্তা কিছুটা দূর হয়েছে। প্রথম আলোর অন লাইন সংস্করণে আমার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ পাওয়ার খবর দেখে অনেকেই ফোন দিয়ে আমাকে সহায়তা করার আশ্বাস দিয়েছেন।’
সুনামগঞ্জের কৃতী সন্তান কুমিল্লার জেলা ও দায়রা জজ জেসমিন আরা বেগম স্থানীয় একজন গণমাধ্যমকর্মীকে ফোন দিয়ে বলেছেন,‘আমি যেন তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করি, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ফি, হলে সিট পাইয়ে দেওয়াসহ সকল দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া পুলিশ হেডকোয়ার্টারের প্রশাসন বিভাগ থেকে এডিশনাল এসপি আমজাদ হোসেন ফোন দিয়ে জানিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাঁরা ভর্তি ফি’সহ অন্যান্য খরচের দায়িত্ব নেবেন। জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আল ইমরান ভর্তি খরচ বাবদ ১৫ হাজার টাকা দেবার আশ্বাস দিয়েছেন।
রোমায়েল আহমদই কেবল নয়, সুনামগঞ্জ শহরতলির আলমপুরের মোজাহিদুর রহমানের অবস্থা আরও করুণ। কিন্তু তাঁর সংগ্রাম চলমান। ৪ বোন ১ ভাইয়ের সংসারের ২ নম্বর সন্তান সে। ৭ বছর আগে বাবা মতিউর রহমান মারা গেছেন। সেই থেকেই মা জাকিয়া বেগম ইটের ভাটার শ্রমিক।
আলমপুর দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসা থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়ে শহরতলির মাইজবাড়ি আলহেরা আলিম মাদ্রাসা থেকে জিপিএ-৫ পেয়ে আলিম পাস করেছে সে। এবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে সে। মেধা তালিকায় তার অবস্থার খ ইউনিটে ১৮৫ তম। মোজাহিদুরের দুশ্চিন্তা কাটছে না, কীভাবে ঢাকা যাবে, ভর্তি ফি’ কোথায় পাবে। পড়াশুনা চালিয়ে যাবে কীভাবে?
দৃঢ়চেতা মোজাহিদুর অবশ্য বলেছে,‘আমাকে পড়তেই হবে। ভর্তিও হতে হবে। যে করেই হোক আমি পড়াশুনা চালিয়ে যাব। এসএসসি পাসের আগে লজিংয়ে থেকে টিউশনি করেছি, এসএসসি পাসের পর আমার থাকা-খাওয়াসহ সবকিছুর দায়িত্ব নিয়েছিলেন টিআইবি’র সচেতন নাগরিক কমিটি সনাক’এর সুনামগঞ্জের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া। একটি ব্যাংক থেকেও মাসে ২ হাজার টাকা করে পেয়েছি আমি। এই টাকা মাকে দিয়েছি, কিছু জমিয়ে রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষায় যাওয়া আসার খরচ চালিয়েছি।’ মোজাহিদুর বললো, ‘আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষায় ভাল করতে চাই এবং এডমিন ক্যাডারের একজন সৎ কর্মকর্তা হতে চাই।’
রোমায়েল, মোজাহিদুরের মতো সংগ্রামী শিক্ষার্থী জগন্নাথপুরের শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের আমির হোসেনও। বাবা দিনমজুর সুন্দর আলী এবং মা ফাতেমা গতর খেটে পড়াশুনা করিয়েছেন আমির হোসেনকে।
কলকলিয়া ইউনিয়নের পাড়ারগাঁও আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পাওয়ার পর কলকলিয়া শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ে ভর্তি হয় সে। কলেজ কর্তৃপক্ষ তাঁর কাছে থেকে ভর্তির কোন টাকা পয়সা নেননি। উপবৃত্তির টাকা পেয়েছে সে। এইচএসসিতে জিপিএ-৪.৬৭ পাবার পর কলেজ কর্তৃপক্ষ উচ্চ শিক্ষায় সহায়তা বাবদ ১০ হাজার টাকা দেন তাকে। সেই টাকা দিয়েই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় যাওয়া-আসা করেছে সে। মেধা তালিকায় তার অবস্থান খ ইউনিটে ১২৪১ তম।
আমির হোসেন বললো-‘আমার বাবা দিনমজুর তবুও স্বপ্ন দেখেন, আমি যেন পড়াশুনা করি, আমি চাই এডমিন ক্যাডারে চাকুরি করবো এবং একজন সৎ কর্মকর্তা হিসাবে দেশের জন্য কাজ করবো।’
সূত্র-সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24