শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১

দলীয় প্রতীক না দেওয়ায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হতাশ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৯৯ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রদান করা হবে বলে মনোনয়ন ফরম বিতরণ করার পর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করায় হতাশ হয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।
মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অনেকেই জানিয়েছেন, ঢাকায় গিয়ে হাজারো মানুষের মধ্যে ঠেলাঠেলি করে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা প্রদান করার সময় শারিরীক-মানসিকভাবে আহত হয়েছেন অনেকেই।
যদিও আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কাছ থেকে আদায়কৃত ফরম সংগ্রহ বাবদ ৫ হাজার টাকা সবার বাড়ির ঠিকানায় পাঠানো হবে।
একাধিক প্রার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন,‘ দলীয় মনোনয়ন প্রদান করা হবে কিনা এনিয়ে বার বার সিদ্ধান্ত বদল করা হয়েছে। দলীয় মনোনয়ন যদি নাই দেয়া হবে তাহলে কেন হাজার-হাজার নেতাকর্মীকে ঢাকা নেয়া হল। এতে প্রার্থীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা কেন্দ্রের উপর চরমভাবে হতাশ হয়েছেন। ’
আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দলের প্রতীক দেয়া হবে দল থেকে ঘোষণা দেয়া হয়। পরে দুইটি ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দেয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু কয়েকদিন পর আবারও সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে দুইটি ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দেয়া হবে বলে জানানো হয়। ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা প্রদানের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। দলের মনোনয়ন সংগ্রহ করার জন্য ৪-৫ ফেব্রুয়ারি বিভিন্ন উপজেলার হাজারো নেতাকর্মী রাজধানী পৌঁছেন। দলের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও প্রতীক পাওয়ার আশায় নেতাকর্মীরা জেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের বাসা-বাড়ি ও অফিসে ধরনা দিতে শুরু করেন। ধানমন্ডি ৩ নং রোডের আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার দলীয় কার্যালয় থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম প্রদান করা হয়। চেয়ারম্যান পদে ২০ হাজার ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ হাজার টাকা আদায় করা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দেয়া হয়নি।
জানা যায়, হাজার হাজার নেতাকর্মীদের চাপে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডির দলীয় কার্যালয়ের পেছনের জানালা দিয়ে ফরম বিক্রি করা হয়। ফরম সংগ্রহ ও জমা দিতে গিয়ে নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতা হয়। পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুলিশ ডাকা হলেও অনেক সময় পুলিশও ব্যর্থ হয়। কার আগে কে ফরম সংগ্রহ করবেন ও জমা দিবেন এই প্রতিযোগিতায় পুরুষ-মহিলাদের অনেকেই আহত হন।
একাধিক প্রার্থী জানান, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য বিভিন্ন কাগজপত্রের ফটোকপি সরবরাহ করতে গিয়ে হিমশিম খান দোকানদারগণ। দলীয় কার্যালয়ের আশপাশের সকল ফটোকপির দোকানে লাইন ধরে কাগজপত্র ফটোকপি করেন প্রার্থীগণ। এই পরিস্থিতি দেখে স্থানীয় বাসিন্দাদের কেউ কেউ হাসাহাসি করেন। কিন্তু উপায় না পেয়ে লাইনে দাঁড়িয়েই ফটোকপি করেন সবাই। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রতীক না দেয়ার বিষয়টি খুবই কষ্টের।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে ঢাকায় গিয়েছিলেন উপজেলার পলাশ ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ৪,৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যা আমিনা খাতুন ও ধনপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যা রেহেনা পারভীন। তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরেছেন এই দুই নারী জনপ্রতিনিধি।
ক্ষোভ ও হতাশার সূরে তারা বলেন,‘ আমরা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। আওয়ামী লীগকে সমর্থন করি ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে ঢাকায় গিয়েছিলাম। কিন্তু আওয়ামী লীগের নেতারা আমাদের সাথে যেসব আচরণ করেছেন তা জীবনেও ভুলব না। মনোনয়ন প্রদান তো অনেক দূরের বিষয়, আমাদেরকে মানুষ হিসেবেই গণ্য করেননি নেতারা। দলের অফিসে ফরম বিক্রি করতে যে ঝামেলা দেখেছি, তা রিলিফের চাল বিতরণেও হয় না। আমরা তিন-চারদিন ঢাকায় থেকেছি, কত টাকা খরচ হয়েছে। হাজার হাজার মানুষকে ঢাকায় নিয়ে এত দুর্ভোগ দিয়ে শেষে বলা হলো প্রতীক দেয়া হবে না। ’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা যুব লীগ নেতা পাবেল আহমদ বলেন,‘ ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দেয়া হবে কি হবে না এনিয়ে চার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। যদি প্রতীক নাই দেয়া হবে তাহলে কি প্রয়োজন ছিল এসব করার। ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কারণ সকল প্রার্থীই সাথে করে এক-দুইজন নেতাকর্মীকে সঙ্গে নিয়েছেন। কয়েকদিন হোটেলে থাকা-খাওয়া ও চলাফেরা করতে অনেক টাকা খরচ হয়েছে। দলীয় ফরম সংগ্রহ করা ও জমা দিতে গিয়ে অনেকে আহত হয়েছেন। তৃণমূল পর্যায়ের এতএত নেতাকর্মীদের সাথে এই আচরণ করা উচিত হয়নি।’
ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম। তিনিও ঢাকায় ছিলেন গত কয়েকদিন।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আমিনুল ইসলাম বলেন,‘ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন প্রদানকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রের প্রতি তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আস্থা হারিয়েছেন। ৫ হাজার টাকার দলীয় ফরম সংগ্রহ করতে গিয়ে অতিরিক্ত ১৫-২০ হাজার করে টাকা খরচ হয়েছে এবং সময় নষ্ট হয়েছে প্রার্থীদের। মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করতে অনেক নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী লাঞ্ছিত হয়েছেন। ’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24